শামীম ওসমান আমার বড় ভাই

- Advertisement -

আনুষ্ঠানিকভাবে নৌকা প্রতীক পাওয়ার সরকারদলীয় মেয়র প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াত আইভী বলেছেন, আমরা বরাবরের মত এবারো জয়যুক্ত হবো আশা করছি। সবশেষ ২০১৬ সালেও আমি নৌকা প্রতীক নিয়ে জয়ী হয়েছিলাম। বিগত দিনে আমি মানুষের কল্যাণে কাজ করেছি। আমি আশা করি এবারো জনগণ আমার সাথে থাকবে। আমি আওয়ামী লীগ করি বিধায় আমাকে নৌকা প্রতীক দেওয়া হয়েছে। দল সকল দিক চিন্তা করেই আমাকে প্রতীক দিয়েছে। তিনি আরো বলেন, আমার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী হয়তো অনেক অভিযোগ করছে।

কিন্তু তিনি যেসব এলকাতে যাচ্ছেন সবগুলো এলাকার রাস্তাঘাট কিন্তু সিটি করপোরেশন করেছেন। আমি বলবো সত্য বলুন। কারণ ভোটের পরে আমরা সবাই এক সাথেই থাকবো। আইভী আরো বলেন, আমি কখনই সরকার বা সরকারী দলের কোন সুবিধে নেইনি। আমি নিজেও আচরণবিধি লঙ্ঘন করি নাই। আমি এতদিন ঘরেই ছিলাম। কিন্তু প্রতিদ্বন্দ্বী প্রতিনিয়ত প্রচারণা করেছেন। এই নির্বাচনে শামীম ওসমানের অবস্থান প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘উনি আমার বড় ভাই, উনি একজন এমপি। এমপি হওয়ার কারণে উনি প্রচারণায় আসতে পারবেন না। যেহেতু উনি বঙ্গবন্ধুর আদর্শের কর্মী, শেখ হাসিনার কর্মী সেহেতু উনি নৌকার বাইরে যাবেন না।

উনিও কিন্তু নৌকা প্রতীক নিয়েই নির্বাচন করেন। মান-অভিমান, দলের মধ্যে নেতৃত্বের প্রতিযোগিতা থাকতেই পারে কিন্তু সকলকে আহ্বান জানাবো, একসাথে নৌকার জন্য, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য বাংলাদেশ বিনির্মাণে কাজ করি।’।

এদিকে মেয়র পদে আরও ৫ প্রার্থী প্রতীক বরাদ্দ পেয়েছেন। ইসলামী আন্দোলনের মনোনীত প্রার্থী মাওলানা মাসুম বিল্লাহ দলীয় প্রতীক হাতপাখা, খেলাফত মজলিশের প্রার্থী এ বি এম সিরাজুল মামুন দলীয় প্রতীক দেয়ালঘড়ি, খেলাফত আন্দোলনের প্রার্থী জসিম উদ্দিন বটগাছ, কল্যাণ পার্টির প্রার্থী রাশেদ ফেরদৌস দলীয় প্রতীক হাতঘড়ি বরাদ্দ পেয়েছেন। তবে স্বতন্ত্র প্রার্থী কামরুল ইসলাম বাবু এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত প্রতীক বরাদ্দ নিতে আসেননি।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page