গণসংযোগকালে তৈমূর

প্রধানমন্ত্রী চাইলে নির্বাচন সুষ্ঠু হবে

- Advertisement -

আসন্ন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের (এনসিসি) আনুষ্ঠানিক প্রচারণা মঙ্গলবার প্রতীক বরাদ্দ পাওয়ার পর থেকে শুরু হয়েছে গেছে। আগামী বছরের ১৬ জানুয়ারীর এ নির্বাচনে মেয়র পদে ৭, সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ৩৪, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১৪৮জন প্রতিন্দ›দ্বীতা করবেন। তবে, আওয়ামী লীগের দলীয় মেয়র প্রার্থী ‘নৌকা’ মার্কার সেলিনা হায়াৎ আইভী এবং আলোচিত স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা তৈমূর আলম খন্দকারের ‘হাতি’ মার্কার প্রতি রয়েছে সবার বিশেষ নজর।

নারায়ণগঞ্জকে নিরাপদ নগরী গড়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করে স্বতন্ত্র প্রার্থী তৈমূর আলম খন্দকার বলেছেন, শাবল পড়ে মানুষ মারা যাবে, রেলগেইট ভেঙ্গে যানজটে মানুষ মারা যাবে, সড়কের অব্যবস্থাপনার কারণে মানুষ মারা যাবে, যানজট হবে, শব্দ দূষণ হবে, এসব থাকবে না। জলাবদ্ধতা শেষ করে দেয়া হবে। বুধবার (২৯ ডিসেম্বর) সকালে এনসিসি নির্বাচনকে সামনে রেখে সিদ্ধিরগঞ্জের ১নং ওয়ার্ডের সিদ্ধিরগঞ্জ পুল এলাকায় গণসংযোগকালে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

তৈমূর আলম বলেন, নির্বাচন কমিশনের কোন ক্ষমতা নেই। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যদি ইচ্ছা করে, তাহলে এ নির্বাচন সুষ্ঠু হবে। বাংলাদেশের একমাত্র ‘পাওয়ার পয়েন্ট’ প্রধানমন্ত্রী। নারায়ণগঞ্জের নির্বাচন সুষ্ঠু হবে কী হবেনা, এটা নির্ভর করে প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছার উপর। আমার পা খুব শক্ত। আমি নিজের পায়েই গত পঞ্চাশ বছর যাবৎ বিভিন্ন অবস্থার মধ্যে হেঁটে চলছি। আমি শংকিত নই। কারণ জনগন আমার পাশে আছে। আমি কোন ব্যাক্তির বিরুদ্ধে অভিযোগ আনতে চাই না। নির্বাচন কমিশন নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করছে না। বিএনপির এত বড় র‌্যালি করেছে, নির্বাচন কমিশনের অনুরোধে যাইনি। অথচ আমার অভিযোগ দেয়ার পরেও তারা আওয়ামী লীগের সমাবেশ বন্ধ করেনি। সেখানে প্রতীক সহ সমাবেশ হয়েছে। আমি শংকিত যে, তারা আমাদের সাথে দ্বিমুখী আচরণ করছে।

তিনি আরও বলেন, ‘আমি নাগরিক সেবা ও নাগরিকদের সকল প্রকার সুযোগ সুবিধা দেয়ার প্রতিশ্রতি দিয়েই এই নির্বাচনে নেমেছি। নির্বাচিত হলে আমার প্রথম কাজ হবে- অযাচিত হারে যে হোল্ডিং ট্যাক্স, ট্রেড লাইসেন্স ফি বৃদ্ধি করা হয়েছে এবং পানির যে নতুন ট্যাক্স ধার্য্য করা হয়েছে এবং জন্ম নিবন্ধনসহ বিভিন্ন যে জটিলতাসহ জনদুর্ভোগ কমানো। প্রয়োজনে পানির ট্যাক্স নেওয়া হবে না, ট্রেড লাইসেন্সর ফিও পূর্বের জায়গায় নিয়ে যাওয়া হবে। জনগনের হয়রানির পরিবর্তে তাদের সেবা বৃদ্ধি করা হবে। খেটে খাওয়া মানুষের পেটে লাথি দেয়া যাবে না। তাদের আগে পুনর্বাসন করতে হবে, তারপর উচ্ছেদ করতে হবে। পুনর্বাসন ছাড়া কাউকে উচ্ছেদ করা যাবে না।

এর আগে সকাল সাড়ে ১০ টায় তৈমূর আলম সিদ্ধিরগঞ্জ পৌছালে বিএনপি নেতা-কর্মীসহ বিপুল সংখ্যক লোকজন এসে উপস্থিত হন। তবে সিদ্ধিরগঞ্জের অধিবাসী বিএনপির সাবেক এমপি মুহম্মদ গিয়াসউদ্দিন, জেলা বিএনপির সদস্য সচিব মামুন মাহমুদ, বিগত সিটি নির্বাচনে ধানের শীষের প্রার্থী এড. শাখাওয়াত হোসেন খানসহ বেশ কয়েকজন শীর্ষ নেতাকে তৈমূরের পাশে দেখা যাচ্ছেনা।

এবিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তৈমূর আলম খন্দকার বলেন, বর্তমান সরকার আমাদের নেতা-কর্মীদের নামে মিথ্যা মামলা দেয়ায় অনেকেই প্রকাশ্যে আসতে পারছেন না। তবে সকলের সমর্থন পাচ্ছি। তিনি আরও বলেন, বুধবার সকালে আমার বাসা মজলুম মিলনায়তনে জাতীয়তাবাদী ওলামা দলের দোয়া অনুষ্ঠছান চলাকালে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর আমাকে ফোন করে নির্বাচনের খোঁজ খবর নিয়েছেন। তিনি আমাকে বলেছেন, নির্বাচনের মাঠে আপনার কি কি সমস্যা আছে আমাদের জানান। বিএনপি আপনার পাশে আছে।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page