বসে গেলে জনগণ বিচার করবে

- Advertisement -

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (এনসিসি) নির্বাচনে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী ও বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাড. তৈমূর আলম খন্দকার বলেছেন, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্রস্তাব আমিই দিয়েছি। পরবর্তীতে নির্বাচন হল, আমাকে দল থেকে সরিয়ে দেওয়া হল। তারপরের নির্বাচনে দল থেকে মানোনয়ন দেওয়ার পরও আমি করিনি। রাষ্ট্রবিজ্ঞানে একটা কথা আছে- যে জনগণের চাহিদা, প্রয়োজন এবং আশা আকাক্সক্ষার। এগুলোর জন্য আমি মনে করেছি, এখন আমার নির্বাচন করা উচিৎ। কারণ আমি গাছতলা থেকে জনগণের সঙ্গে আছি। আমি রিকশা ইউনিয়ন, ঠেলাগাড়ি ইউনিয়ন করেছি। খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষের পাশে জীবন কাটিয়েছি।
শুক্রবার (৩১ ডিসেম্বর) সকালে এনসিসির সিদ্ধিরগঞ্জের কদমতলী এলাকায় গণসংযোগকালে একথা বলেন তিনি।
তিনি আরও বলেন, ‘এবার বিএনপির হস্তক্ষেপ নেই, এবার জনগণের ম্যান্ডেট। আমি যদি বসে যাই, জনগণ এর বিচার কবরে গিয়ে হলেও করবে। জনগণের সঙ্গে বেইমানি করার কোনো সুযোগ নেই। ‘
তিনি বলেন, আপনাদের বুঝতে হবে আমি কোথায় আছি, কী পর্যায়ে কাজ করছি। এখানে বিএনপির সবাই আছে। আমাদের দলের নেতাকর্মীরা নির্যাতিত। তারা জনগণকে সঙ্গে নিয়ে ঘর থেকে বের হবে এবং নারায়ণগঞ্জে গণবিপ্লব হবে। বেকার সমস্যা দূর হবে, সব সমস্যা দূর করা হবে। ইপিজেডকে বাধ্য করা হবে, তাদের ট্রেড লাইসেন্স বন্ধ করে দেওয়া হবে আমাদের ছেলেদের চাকরির জন্য। স্থানীয় লোকদের চাকরি দিতে হবে। বিভিন্ন ট্রেনিংয়ের মাধ্যমে ছেলেদের গড়ে তোলা হবে। বেকারত্ব দূর করব, প্রয়োজনে বেকার ভাতা দেওয়া হবে।
তৈমূর আলম খন্দকার  বলেছেন, সিটি করপোরেশনের দায়িত্ব হল রাষ্ট্র-শাসন ব্যবস্থা কায়েম করবে, আর জনগণের কল্যাণ পৌরসভা বা সিটি করপোরেশন করবে। এর মধ্যে বেকারত্ব দূর করা, বেকার ভাতা, স্বাস্থ্য পরিবেশের দিকে নজর দেওয়া সিটি করপোরেশনের কাজ।
স্থানীয় মানুষের সামাজিক সমস্যা দূর করা তাদের কাজ। একটা কমিউনিটিতে ঝগড়া হলেও সেটা স্থানীয় সরকারের দায়িত্ব।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page