ওয়াসার দায়িত্ব রাখতে চায়না নাসিক

১৮ বছরে সেবা বাড়েনি: বেড়েছে দূর্ভোগ আর ট্যাক্স

নগরীর পানি সরবরাহ ব্যাবস্থা অব্যাহত রাখতে অপরাগতা প্রকাশ করেছে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন। গত বছরের ২৩ জুন স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়ে প্রেরিত এক চিঠিতে ওই অপরাগতা প্রকাশ করলেও বিষয়টি গোপন রাখা হয়। এদিকে ২৮ ডিসেম্বর পানি সরবরাহে অপরাগতা প্রকাশ করে দায়িত্ব ফেরত দিতে চায় কেন এব্যাপারে বিস্তারিত জানতে চেয়েছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়।

এক দিকে উন্নত সেবা দেওয়ার স্বপ্ন দেখাচ্ছেন সদ্য বিদায়ী মেয়র। অন্যদিকে, দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হয়ে হাফছেড়ে বাঁচতে চাইছে তার নেতৃত্বাধীন রেখে আসা নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন। নির্বাচনী প্রচারণায় শুক্রবার (৩১ ডিসেম্বর) শহরের জামতলা এলাকায় গণসংযোগকালে মেয়র প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভী সাংবাদিকদের বলেন, ‘পূর্বে পানি সরবরাহ করতেন ওয়াসা, ইতোমধ্যেই সিটি কর্পোরেশন দায়িত্ব নিয়েছে। আগামীতে আমরা পানির ব্যাপারে বেশি জোর দিবো, যাতে ঠিক মতো জনসাধারণকে পৌঁছে দিতে পারি। ইতোমধ্যেই এসব পরিকল্পনা করা হয়েছে ও এডিবি আমাদের ৮০০ কোটি টাকা দিয়েছে’।

আইভীর এমন কান্ডে এনসিসি’র নির্বাচনে মেয়র পদের প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা বলছেন, এই মেয়র ১৮ বছরে নাগরীদের সেবা দিতে পারেনি, দূর্ভোগে ফেলেছে আর মানুষের মাথার উপর ট্যাক্সের বোঝা চাপিয়ে দিয়েছে। এখন উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি দিয়ে মানুষের সাথে প্রতারণা শুরু করেছে।
বলা হচ্ছে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ নিশ্চয়তা নিয়ে মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী প্রতিশ্রুতির নামে ছড়াচ্ছেন মিথ্যার ফুলঝুড়ি!

জানা গেছে, ২০১৯ সালের ৩১ অক্টোবর রাজধানীর একটি হোটেলে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের সদ্য সাবেক মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী এবং ঢাকা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক তাকসিম এ খান একটি সমঝোতা স্মারকে সই করেন। চুক্তি অনুযায়ী নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন এলাকা নিয়ে গঠিত ওয়াসার মডস অঞ্চলের যন্ত্রপাতি, স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি করপোরেশনের কাছে হস্তান্তর করা হবে। নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন পানি সরবরাহ ও পয়ঃনিষ্কাশনের কাজ করবে।

অনুষ্ঠানে তৎকালিন মেয়র আইভী বলেছিলেন, ‘এর মাধ্যমে নারায়ণগঞ্জবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি পূরণ হল। অনুষ্ঠানটি নারায়ণগঞ্জে হলে ভালো হত। কিন্তু নানা কারণে সেখানে করতে পারিনি। সেটা আপনারাও ভালোভাবে জানেন। বিস্তারিত বলতে চাই না। আমাদের হাতে আসার দুই মাসের মধ্যেই দেখবেন কয়েকটি পত্রিকায় নিউজ আসবে এখানে পানি নাই, সেখানে পানি নাই। দশ বারোটা ঝাড়– মিছিলও হবে। দিস ইজ দ্য পলিটিকস। বিষয়টি আপনাদেরকে জানিয়ে রাখছি কারণ আপনাদের সহায়তা প্রয়োজন।’ চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম।

জানা গেছে, ১৯৯০ সালের ১ জুলাই থেকে নারায়ণগঞ্জে ঢাকা ওয়াসা মডস জোন হিসেবে কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। এর আগে সেখানকার পানি সরবরাহ ব্যবস্থা ছিল নারায়ণগঞ্জ পৌরসভার হাতে। বর্তমানে এই অঞ্চলে ওয়াসার ৩১টি নলকূপ, ৩২টি স্ট্রিট হাইড্রেন্ট, ৮টি ওভারহেড ট্যাংক রয়েছে। এছাড়া নারায়ণগঞ্জে ওয়াসার দুটি পানি শোধনাগারও রয়েছে, যেগুলোর দৈনিক উৎপাদন ক্ষমতা পাঁচ কোটি ৭০ লাখ লিটার। মডস জোনের লোকবল ১৬০ জন। এসব কর্মী আগামী এক বছর নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনে কাজ করবেন। সিটি করপোরেশন ওয়াসার বকেয়া আদায় করে নিজস্ব তহবিলে জমা করতে পারবে বলে চুক্তিতে উল্লেখ করা হয়।

এদিকে দায়িত্ব গ্রহণের ১ বছর ৮ মাস পর গত বছরের ২৩ জুন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ৪৬.১৬.০০০০.০০৯.৪৩.০৯১.১৮-৩৪নং স্মারকে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে চিঠি প্রেরণ করা হয়। চিঠিতে নগরীতে পানি সরবরাহ ব্যবস্থা অব্যাহত রাখতে অপরাগতা প্রকাশ করে দায়িত্ব ফিরিয়ে নিতে বলা হয়। তবে রহস্যজনক কারণে বিষয়টি গোপন রাখা হয়। পানি সরবরাহে অপরাগতার চিঠি প্রেরণের ৬ মাস পর ২৮ ডিসেম্বর স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়ের উপ সচিব মোহাম্মদ জহিরুল ইসলাম স্বাক্ষরিত অপর একটি চিঠি (স্মারক নং ৪৬.০০.০০০০. ০৭১.২২. ০৭৭.১৫.৮২৪) প্রেরণ করে। চিঠিতে বলা হয়, স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) আইন ২০০৯ এর ৪১ ধারা ও তফসিল ৩ এর ৮.১ অনুযায়ী, করপোরেশন নগরীতে সাধারণ ও ব্যক্তিগত ব্যবহারের জন্য পর্যাপ্ত পরিমানের বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের ব্যবস্থা করবে। সেই লক্ষ্যে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের দায়িত্ব ২০১৯ সালে ওয়াসা থেকে গ্রহণ করার পর কি কারনে এ দায়িত্ব ফিরিয়ে দিতে চায়, অথবা কি কারনে পানি সরবরাহের কার্যক্রমে সিটি কর্পোরেশন অপারগ হচ্ছে তা, পর্যালোচনার জন্য সভা আহ্বানের পূর্বে কারণ সম্পর্কে অবহিত হওয়া প্রয়োজন বলে উল্লেখ করা হয়। গত বছরের ২৩ জুন সেলিনা হায়াৎ আইভী মেয়র থাকাকালে ওয়াসার দায়িত্ব ফিরিয়ে দেয়ার চিঠিটি মন্ত্রনালয়ে প্রেরণ করা হলেও নির্বাচনে অংশগ্রহণের কারনে গত ১৫ ডিসেম্বর মেয়র পদ থেকে পদত্যাগ করেন সেলিনা হায়াৎ আইভী। ২৮ ডিসেম্বর সিটি কর্পোরেশনের প্রধাণ নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর চিঠিটি প্রেরণ করা হয়।

এব্যাপারে জানতে শনিবার (১ জানুয়ারী) বিকেলে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের প্রধাণ নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল আমিনকে একাধিকবার মুঠোফোনে কল দেয়া হলেও তিনি ধরেননি। সিটি কর্পোরেশনের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো. আব্দুল আজিজকে ফোন করলে তিনি এব্যাপারে কিছুই জানেন না বলে জানান।

তিনি বলেন, ‘সিটি করপোরেশনের প্রধান দায়িত্ব হচ্ছে মানুষকে সেবা দেওয়া। সেবা দিতে গিয়ে কোটি কোটি টাকা খরচ হচ্ছে। তার উপর জনগণ পানি নিয়ে পয়সা দেয় না, তাহলে কি ভাবে রাখবে বলেন? তারপরেও আমি নতুন আসছি, রাখবে কি রাখবে না, তার বিস্তারিত জানি না।’ তিনি আরও বলেন, নগরীতে দৈনিক মানুষের পানির চাহিদা রয়েছে ১২ কোটি লিটার, উৎপাদন হচ্ছে ৯. ৮০ কোটি লিটার। যদিও বাস্তবতা আরও ভয়ঙ্কর।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ