জনতার প্রার্থী তৈমূর

জনগণের জন্য নিজেকে উৎসর্গ করলাম

‘রাস্তার মানুষের কাছে ছিলাম, বস্তিতে বস্তিতে ঘুরতাম, আবার বস্তি বস্তিতে ঘুরবো। আমারতো কোন লস নাই। এখনো জনগণের সাথে আছি, জনগণের জন্য মৃত্যু হয়; আমার হবে। রাজপথে আমার জন্ম, মৃত্যুটাও আমার রাজপথে হবে। আমার যা হবার হবে, ভাগ্যের মালিক আল্লাহ। নির্বাচনে থাকার জন্য যে কোন স্যাক্রিফাইস (ত্যাগ স্বীকার) করার জন্য আমি প্রস্তুত। ২ হাজার ১১ সালে দলের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করে নিজেকে আত্যাহুতি দিয়েছি, ২ হাজার ২২ সালে জনগণের জন্য নিজেকে উৎস্বর্গ করলাম।

সোমবার (৩ জানুয়ারী) বিকাল ৪ টায় নগরীর মাসদাইর তালাফেক্টরীর মোরস্থ নিজ বাস ভবনে তাকে দল থেকে অব্যাহতির বিষয়ে জনতে চাওয়া হলে গণমাধ্যমকর্মীদের প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন তৈমূর আলম খন্দকার।

তৈমূর আলম খন্দকার বলেন, অব্যাহতির বিষয়ে দল থেকে আমাকে কোন কিছুৃ জানানো হয়নি। তবে আমি মনে করি, যদি এটা সত্য হয়ে থাকে; তবে আলহামদুলিল্লাহ। আমি মনে করি দলের ভার-প্রাপ্ত চেয়ারম্যান জনাব তারেক রহমান, একটা সময় উচিৎ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তিনি (তারেক রহমান) আমাকে গণমানুষের জন্য উন্মুক্ত করে দিয়েছেন। এখন আমি রিক্সাওয়ালাদের তৈমূর, ঠেলাগাড়িওয়ালাদের তৈমূর। রিক্সাওয়ালাদের কাছে ফিরে যাব, ঠেলাগাড়িওয়ালাদের কাছে ফিরে যাব। আমি গণমানুষের তৈমূর, আমি গণমানুষের কাছে ফিরে যাব। আমার ভাগ্যের মালিক একমাত্র আল্লাহ। অন্য কেউ আমার ভাগ্যের মালিক এটা আমি বিশ^াস করি না।

এসময় তিনি বলেন, যারা এই সিদ্ধান্ত নিসে, তারা কী মনে করেন নৌকার প্রার্থীকে পাশ করানোর জন্য আবার পূর্বের মত এই সিদ্ধান্ত নিসে?  ২হাজার ১১সালে যেই উদ্দেশ্যে, যেই বিষয়টিকে মাথায় রেখে এই সিদ্ধান্ত নিসিলো, সরকারী দলের প্রার্থীকে পাশ করিয়ে মেয়র করানোর জন্য, এইবারও কী পূর্বেরমত সরকারী দলের প্রার্থীকে, নৌকার প্রার্থীকে পাশ করানোর জন্য এই সিদ্ধান্ত নিসে? যদি নিয়া থাকে নিসে! কিন্তু আমার ভাগ্যের মালিক একমাত্র আল্লাহ।

তিনি বলেন, ২ হাজার ১১ সনে দল আমাকে দলীয় প্রতীকে মনোনয়ন দিয়েছিল। দল থেকে দলের সিদ্ধান্ত দিছে, তাদের (দলের) সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের জন্য আমি নির্বাচনের ৫ঘন্টা আগে সড়ে গেছি, এবং আজ পর্যন্ত দলকে প্রশ্ন করিনাই কেন আমাকে দল থেকে বসে যেতে বলা হল, কেন আমাকে প্রত্যাহার করতে বলা হল। তবে রেজাল্ট যাই হইসে, দল কোন উপকৃত হইসে কিনা, জাতি কোন উপকৃত হইসে কিনা জানিনা। তবে সরকারদলীয় প্রার্থী (আইভী) মেয়র পদে নির্বাচিত হইসে, নৌকার  প্রার্থী মেয়র পদে নির্বাচিত হইসে। দলের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করে আমি দলের সিদ্ধান্ত মেনে নিয়েছি।

তিনি আরোও বলেন, এইবারও হয়তো নৌকার প্রার্থীকে বিজয়ী করার লক্ষে আমাকে হয়তো অব্যাহতি দিসে, অনেকে হয়তো মনে করতে পারেন। কিন্তু আমি মনেকরি, আমার দল আমার একটা উপকার করসে। আমি ‘ব্যাক টু দ্যা প্যাভিলিয়ন’ আমি যেখানে ছিলাম, সেখানে ফিরে এসেছি। ‘রাস্তার মানুষের কাছে ছিলাম, বস্তিতে বস্তিতে ঘুরতাম, আবার বস্তি বস্তিতে ঘুরবো। আমারতো কোন লস নাই। এখনো জনগণের সাথে আছি, জনগণের জন্য মৃত্যু হয়; আমার হবে। রাজপথে আমার জন্ম, মৃত্যুটাও আমার রাজপথে হবে। আমার যা হবার হবে, ভাগ্যের মালিক আল্লাহ। নিজেকে জনগণের জন্য উৎস্বর্গ করলাম।

উল্লেখ্য, বিএরপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল এর আগে বলেন, ক্ষমতাষীন সরকারের অধিনে বিএনপি কোন নির্বাচনে অংশ নিবে না। তবে বিএনপির থেকে কেউ যদি স্বতন্ত্রতে নির্বাচনে অংশগ্রহন করে, তবে দল থেকে কোন বিধিনিষেধ থাকবেনা। এরই প্রেক্ষিতে ও নারায়ণগঞ্জের গণমানুষের দাবিতে তৈমূর আলম খন্দকার নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ২৭ ডিসেম্বর বৈধ প্রার্থী হিসেবে চুড়ান্ত হন। ২৮ ডিসেম্বর তিনি মেয়র পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে হাতি প্রতীক পান। আগামী ১৬ জানুয়ারী নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ভোটের দিন।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ