সুষ্ঠু নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চাই

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে সুষ্ঠু করতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার। তিনি বলেছেন, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনের দিকে দেশ ও বিদেশের সকল মিডিয়া তাকিয়ে আছে। মিডিয়ার কল্যাণে এসব কথাবার্তা শুধু নারায়ণগঞ্জের মানুষ শোনে না, বিশ্বব্যাপী মানুষ শোনে। বাইরে কোথাও গেলেই নারায়ণগঞ্জের ব্যাপারে অনেক কথা উঠে যায়। আমার মনে হচ্ছে নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে প্রশ্নবিদ্ধ করার চেষ্টা হচ্ছে।

কওমী মাদ্রাসাকে স্বিকৃতী দেয়ায় যে হেফাজতের লোকেরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কওমী জননী উপাধি দিয়েছিল, সেই হেফাজতের সাথে গোলযোগের মামলায় আমার জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত আহবায়ককে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃত মনিরুল ইসলাম রবি আমার সিদ্ধিরগঞ্জের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির প্রধান। গত ২৪ঘন্টায় আমার প্রায় ১৭জন নেতাকর্মীকে কোন মামলা ছাড়াই গ্রেফতার করা হয়েছে। এভাবে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড টাকে ভোটের আগেই নষ্ট করে দেয়া হচ্ছে।

মঙ্গলবার সকালে নগরের মিশনপাড়া এলাকায় প্রধান নির্বাচনী কেন্দ্রে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন বিএনপি থেকে সদ্য অব্যাহতি পাওয়া এ নেতা। তিনি বলেন, কালকে এসপি অফিসে গিয়েছিলাম তাকে পাইনি। আজকে গিয়ে বলবো আমার কাছে আর কোন বিকল্প নেই। প্রয়োজনে আপনার অফিসের সামনে বসে পড়বো। এখান থেকেই আমি আমার নির্বাচন পরিচালনা করবো। গণমাধ্যমের এক প্রশ্নের উত্তরে তৈমূর বলেন, আমি শংকিত হব না কেন। নেতাকর্মীদের বাড়িতে যখন পুলিশ হামলা করে। এজেন্টকে যখন পুলিশ ধরে নিয়ে যায় হেফাজতের মামলায়, তখন তো শঙ্কা সৃষ্টি হবেই।

সংবাদ সম্মেলনে তৈমূর আলমের উকিল মেয়ে রেশমী অভিযোগ করে বলেন, তৈমূর আলমের হাতি প্রতীকে কাজ করায় সোমবার গভীর রাতে ২২নং ওয়ার্ড থেকে আমার স্বামী আশরাফুল ইসলামকে ধরে নিয়ে গেছে পুলিশ। অথচ তার বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ নেই।এদিকে তৈমুর আলম খন্দকার সংবাদিক সম্মেলন শেষ করে যান বন্দরের ১৯ ও ২০নং ওয়ার্ডে গণসংযোগ করেন। সেখানে শান্তি নগর, লক্ষ্যারচর, মদনগঞ্জ বাজার, সোনাকান্দা, মাহামুদনগর, বেপারীপাড়া, ফরাজিকান্দা, দরি সোনাকান্দাসহ বেশ কয়েকটি এলাকায় ভোট প্রার্থনা করেন।

এসময় তৈমরকে পেয়ে এলাকার লোকজন রাস্তায় নেমে আসেন, ফুলের শুভেচ্ছায় সিক্ত করেন। গণসংযোগকালে সেখানে তৈমুর আলম খন্দকার বলেন, ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানকের ‘ঘুঘু দেখেছেন, ঘুঘুর ফাঁদ দেখেননি’ হুঙ্কার দেওয়ার ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই তার নেতাকর্মীদের ওপর পুলিশি হয়রানি শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে নির্বাচন কমিশন ও প্রশাসনের ভূমিকা সম্পর্কে আমি অবহিত করেছি। নির্বাচন কমিশন আমাকে লেভেল প্লেইং ফিল্ড ব্যবহার করার সুযোগ দেয়নি।

আমি বারবারই অভিযোগ করে আসছি, সরকারি দল, এমপি এবং তাদের বড় বড় নেতা নির্বাচনে প্রভাব পড়ে এমন উসকানিমূলক ও ভয়-ভীতিমূলক কথা বলে যাচ্ছেন। একজন বলেছেন, তৈমুরকে মাঠে নামতে দেওয়া হবে না। আরেকজন অতি সম্মানিত দায়িত্বশীল ব্যক্তি বলেছেন, তৈমুর ঘুঘু দেখেছেন, ফাঁদ দেখেননি। তার এই কথার ২৪ ঘণ্টা পার না হতেই আমি ঘুঘু এবং ঘুঘুর ফাঁদ দেখতে শুরু করেছি। তিনি বলেন, তিনি বলেন, ভাই বোনকে জিজ্ঞেস করে নির্বাচনে দাঁড়াইনি। তারা এক দলেরই লোক। তাদের মধ্যে বিভাজন পরিষ্কার। আমরা মামলা খেয়ে খেয়ে এবং গ্রেফতার হয়ে ঐক্যবদ্ধ হয়ে গেছি। তিনি আরও বলেন, এতদিন জনগণ প্রার্থী পায়নি আমরা রাজিও হইনি। এখন আমরা রাজী হয়েছি জনগণ মনের মত প্রার্থী পেয়েছে। যে প্রার্থী সবসময় জনতার থাকবে।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ