নাসিক নির্বাচন উদাহরণ সৃষ্টি হবে

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা বলেছেন, ‘নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের প্রস্তুতি অনেক আগে থেকে শুরু হয়েছে। এখন পর্যন্ত কোথাও কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। এখানে দুটো বিষয় কাজ করে। একটা হল প্রার্থীদের নির্বাচনের সময় আচরণ এবং আচরনবিধির প্রতি তাদের আস্থা এবং সম্মান প্রদর্শন। তার পরেই আসে প্রশাসনের ভূমিকা। তাদের সমন্বয়ের মাধ্যমে সকলের সাথে বোঝাপড়া করেই এই নির্বাচন পরিচালনা করতে হয়। যারা নির্বাচন কমিশনার আছেন তারা জেলা প্রশাসনের সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখেন।

বুধবার (১২ জানুয়ারি) বিকেলে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে নাসিক নির্বাচন উপলক্ষ্যে নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা, প্রশাসন ও আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠকে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।সিইসি বলেন, নির্বাচনের যে কয়েকদিন বাকি আছে আমার মনে হয় পরিবেশ আরও সুন্দর হবে। প্রার্থীদের এজেন্টদের নিয়ে অনেক সময় কথা ওঠে। এজেন্টদের ঢুকতে দেয়া হয়না বা তাদের বের করে দেয়া হয়। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট যারা আছেন তাদের এ বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে। বিশেষ করে রিটার্নিং অফিসার যারা আছেন তারা যেন সকলকে আশ্বস্ত করেন। মনে রাখবেন এজেন্টরা একজন প্রার্থীকে প্রতিনিধিত্ব করেন।

সুষ্ঠু নির্বাচনের প্রশ্নে এজেন্টদের উপস্থিতি অনেক গুরুত্বপূর্ণ। অনেক সময় এজেন্ট পাঠানো হয় না সেটা ভিন্ন কথা। তবে এজেন্টদের প্রটেকশন দেয়া প্রিজাইডিং অফিসারদের দায়িত্ব। যদি ম্যাজিস্ট্রেটদের কাছে কেউ অভিযোগ করেন তাহলে তারা সেটা সুরাহা করবেন। তিনি আরো বলেন, নির্বাচনের ভোট গননার সময় খেয়াল রাখতে হবে সেখানে প্রার্থীর এজেন্ট থাকবে এবং আপনাদের কর্মকর্তারা থাকবে। এটা যেন সকলের সামনে করা হয় এবং নির্ধারিত জায়গায় যেন এজেন্টদের স্বাক্ষর গ্রহন করা হয়। একেবারে স্বচ্ছ ভাবে যেন এই ভোট গননা হয় সেটা নিশ্চিত করতে হবে। তিনি বলেন, ”ভোট গননার পরে ফল ঘোষণার পর অনেকে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে চেষ্টা করে। এ বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে। যেহেতু নারায়ণগঞ্জ সিটি ছোট একটি জায়গা। আমি বিশ্বাস করি এ জাতীয় কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটলে আপনারা নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন।

নারায়ণগঞ্জ সিটি একটি ঐতিহ্যবাহী সিটি। এখানে সব ধরনের যোগাযোগ ব্যবস্থা আছে শুধু বিমানবন্দর নেই। এই শহরে মানুষের মধ্যে সহনশীলতা আছে। যারা ভোটার এবং যারা প্রার্থী তাদের ওপরই ৯০ শতাংশ সুষ্ঠু পরিবেশ নির্ভর করে।” সিইসি বলেন, নির্বাচনের পরে এখান থেকে আমাদের ডিসি ও এসপি সাহেব চলে যাবেন। তারা কিন্তু এখানে শেষ নির্বাচন দেখে চলে যাবেন। এর পরে কিন্তু তারা আর কোন নির্বাচন দেখার সুযোগ পাবেন না। তারা সুষ্ঠু পরিবেশে নির্বাচন পরিচালনা করবেন বলে বিশ্বাস করি। তিনি বলেন, এতদিন নারায়ণগঞ্জে যে পরিস্থিতি ছিল আমাদের বিভিন্নভাবে দোষারোপ করা হয়। আমি মনে করি নারায়ণগঞ্জের এই নির্বাচন একটা উদাহরণ সৃষ্টি হবে। পরবর্তী যে নির্বাচনগুলো হবে সেখানে এই নির্বাচন প্রভাব ফেলবে। এখানে পৌরসভা নির্বাচন হয়েছে উপজেলা নির্বাচন হয়েছে সবগুলো নির্বাচনে আমরা সন্তুষ্ট। আমি আপনাদের সাফল্য কামনা করছি এবং সহযোগীতার জন্য ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

এদিকে ইউপি নির্বাচনে ভোট গ্রহণে ব্যর্থতার জন্য নির্বাচন কমিশন দায়ী আওয়ামীলীগের অভিযোগের বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন,‘যারা রাজনীতি করেন তারা অনেক কথাই বলেন তাদের মতো করে। আমরা আমাদের মতো কাজ করি।’

করোনা সংক্রামণ বাড়তে থাকলে নির্বাচন বন্ধের সিদ্ধান্তে যাবেন কি না প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন,‘ এটা এখনও বলা যাবে না। সেটা পড়ে দেখা যাবে। পরিবেশ পরিস্থিতি দেখে যদি সেটা সিরিয়াস অবস্থা ধারণ করে তাহলে সেটা তখন ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এই মুহূর্তে বলা যাবে না।’ এই নির্বাচন কমিশনের শেষ নির্বাচন। কোন প্রেসার অনুভব করছেন কিনা প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন,‘আগেও করিনি, এখনও করি না।’

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ