শেষ সময়ে জমজমাট প্রচার প্রচারণা

ভোট প্রত্যাশায় দুয়ারে দুয়ারে ছুঁটছেন প্রার্থীরা

- Advertisement -

নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচনের প্রচারণার শেষ সময়ে ভোট প্রত্যাশায় ভোটারদের দ্বারে ছুঁটছেন মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা, দিচ্ছেন উন্নয়নের নানা প্রতিশ্রুতি। ভোটের পরিবেশকে নিয়ে নৌকার প্রার্থী সন্তুষ্ট হলেও নেতা-কর্মীদের হয়রানির অভিযোগ করেছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী। তবে পুলিশ বলছে, নিরপেক্ষ থেকে সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য কাজ করছেন তারা।

নগরীর প্রধান সড়ক থেকে ওয়ার্ডের গলিপথ, সবখানেই জমজমাট নির্বাচনী আবহ, উৎসবমুখর পরিবেশ। দু’দিন পরেই ভোট গ্রহণ। ভোটারদের প্রত্যাশা, এমন নির্বাচন হোক যেখানে তাদের মতামতের প্রতিফলন ঘটবে। প্রচার-প্রচারণা শেষ হচ্ছে শুক্রবার (১৪ জানুয়ারী) মধ্যরাতে, তাই ব্যস্ত সময় পার করছেন মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা।

সকাল-সকালেই গণসংযোগ শুরু করেন নৌকার প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। আশা তরুণ ভোটাররা তাকে আবারও বেছে নেবেন। তার দাবি, এবার গণজোয়ারের হাওয়া লেগেছে নৌকার পালে। এদিকে নগরীর বিভিন্ন প্রান্তে গণসংযোগ করেন স্বতন্ত্র প্রার্থী তৈমূর আলম খন্দকার। ভোটাররা কেন তাকে ভোট দিবেন, তিনি নির্বাচিত হলে কি করবেন? এমন নানা পরিকল্পনার কথা জানিয়ে ভোটারদের মন জয়ের চেষ্টা করছেন হাতি প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী তৈমূর। তিনি অভিযোগ করেন কর্মীদের বাড়ি বাড়ি যেয়ে তল্লাশীর নামে হয়রানি করছে পুলিশ।

স্বতন্ত্র প্রার্থী তৈমূর আলম খন্দকার বলেন, আমাদের নেতাকর্মীদের বাড়ি বাড়ি যেয়ে তল্লাশীর নামে হয়রানি করা হচ্ছে এটা বন্ধ করার জন্য প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি। পাশাপাশি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে সবিনয় অনুরোধ করছি আমাদের কর্মী সমর্থকদের ওপর পুলিশি হয়রানি হচ্ছে, এটা বন্ধ করেন।

তিনি বলেন, ঢাকা থেকে মেহমানরা এসে নারায়ণগঞ্জে এমন কিছু কথা বলেছে যাতে নারায়নগঞ্জবাসী মনে খুব ব্যাথা পেয়েছে। তারা বলেছে তৈমূরকে মাঠে নামতে দেয়া হবে না। তারা বলেছে, ঘুঘু দেখেছে ঘুঘুর ফাঁদ দেখেননি। ২৪ ঘন্টার মধ্যে ঘুঘুর ফাঁদ দেখিয়ে দিবো। আমি পরবর্তী ২৪ ঘন্টায় ঘুঘুর ফাঁদ দেখা শুরু করেছি আমার লোকজন গ্রোফতার হওয়া শুরু হয়েছে। আমার সমন্বয়ক ও গুরুত্বপূর্ণ নেতা জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক মনিরুল ইসলাম রবিকে গ্রেফতার করা হয়েছে ২০১৩ সালের হেফাজতের মামলায়। এসব অত্যাচার নির্যাতনে নারায়ণগঞ্জের মানুষ দল মত নির্বিশেষে ইউনাইটেড হচ্ছে। মেহমানরা যে বিভাজন সৃষ্টি করছেন এতে নারায়ণগঞ্জের মানুষ ব্যাথিত। আজকে সরকারি দলের বিভাজন একদম পরিষ্কার। আমার দল যে ঐক্যবদ্ধ এটাও পরিষ্কার।

বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারি) সকালে নির্বাচনী প্রচার প্রচারণায় নেমে একথা বলেছেন তিনি।

তৈমূর বলেন, নির্বাচন কমিশনের কাছে আহ্বান করে লাভ নেই। আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আহ্বান করতে চাই। নারায়ণগঞ্জ বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামের সূতিকাগার। বঙ্গবন্ধুর আত্মজীবনী পড়লে এটা বুঝা যায়। তিনি যেন নারায়ণগঞ্জবাসীর আশা আকাক্সক্ষার প্রতিফলন ঘটান। পুলিশ যেন আমাদের ওপর নির্যাতনটা না করে এবং পুলিশ যদি নির্যাতন বন্ধ করে, নির্বাচনটা যদি সুষ্ঠু হয় তাহলে আমি মনেকরি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হবে।

তিনি বলেন, সিটি কর্পোরেশন কোন সিন্ডিকেটের দ্বারা পরিচালিত হবে না। ছোট ছোট যুবকরাও এখানে কাজ পাবে। কাজকে বড় করে দেখানো হয়। মাত্র এক দুইজন ঠিকাদার কাজ করে। নারায়ণগঞ্জের ঠিকাদারদের তালিকে দেখলেই আপনারা বুঝতে পারবেন। এগুলো ভাগ করে দিলে অনেক লোক কাজ করতে পারত। মিল কারখানাকে বাধ্য করা হবে যে অন্তত ২০ শতাংশ লোক স্থানীয় ছেলেদের নিতে হবে। নয়ত তাদের ট্রেড লাইসেন্স বন্ধ করে দেয়া হবে। এভাবে বেকার সমস্যাও যেমন দূর হবে, তেমনি মাদক সমস্যাও থাকবে না কিশোর গ্যাংও থাকবে না।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকার প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেন, আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে অনুরোধ করবো, নারায়ণগঞ্জের পরিবেশ যেন এইরকম সুন্দর থাকে, উৎসবমূখর থাকে, সেই ব্যবস্থা যেন তারা করে। আমি শুধু চাই, ভোট কেন্দ্র যেন পরিষ্কার থাকে। কোন সন্ত্রাসীরা যেন সেখানে ঝামেলা লাগাতে না পারে এবং ভোটাররা যেন নির্বিঘেœ ভোট দিতে পারে। সেই ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে।

নির্বাচনে বিশৃঙ্খলার আশঙ্কা নিয়ে আইভী বলেছেন, প্রত্যেক নির্বাচনের আগে এমন পরিস্থিতি হতেই পারে। এজন্য প্রশাসন সচেতন, তারা এ বিষয় দেখভাল করবে। আমি আমার ভোটারদের বলবো, তারা উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট দিতে যাবে। নারায়ণগঞ্জে এর আগে ৩টা নির্বাচন হয়েছে, পৌরসভা, সিটি কর্পোরেশন। টানটান উত্তেজনা ছিল। সকলেই ভোট দিতে গেছে, পরিবেশ খুবই সুন্দর ছিল।

বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারি) সকালে নাসিক ১৬নং ওয়ার্ড নিজ এলাকায় নির্বাচনের প্রচারণার সময় তিনি এসব কথা বলেন।

স্বতন্ত্র প্রার্থীর নেতা-কর্মীদের গ্রেফতারের অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমি জানি না কাকে কোথায় ধরা হচ্ছে। বিএনপির এক নেতাকে গ্রেফতার করা হয়েছে এটা শুনেছি। ওনার নামে হেফাজতের মামলা ছিল। আর কোথায় কী হচ্ছে তা আমি জানি না, আর আমার জানার ব্যাপারও না। ওইটা প্রশাসন দেখবে, শহরে যদি কোনো বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হয় তাহলে তা দেখবে প্রশাসন। আমি তো সারাদিন ব্যস্ত। আমি কোনো সহিংসতার সঙ্গে জড়িত না। কখনো কাউকে বলিনি ওকে ধরেন, ওইটা করেন।

‘নতুন ভোটাররা আপনাকে কেন ভোট দিবে’ এমন প্রশ্নের উত্তরে আইভী বলেন, নতুন ভোটাররা অনেক সচেতন। ওরা চায় আধুনিক নগরী, খোলা ময়দান, খেলার মাঠ। আমি এ ব্যাপারে অনেক কাজ করেছি। ভবিষ্যতেও করবো। আমি সততা, নিষ্ঠার সঙ্গে যেমন আমার দলের কাজ করেছি তেমনি দলমতের উর্ধ্বে উঠে নারায়ণগঞ্জবাসীর জন্য কাজ করেছি। এগুলা নতুন ভোটাররা পছন্দ করছে। এইজন্য নতুন ভোটাররা আমাকে ভোট দিবে।

এদিকে জেলা পুলিশের পুলিস সুপার নারায়ণগঞ্জের আলোকে বলেন, অকারনে কোন প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের গ্রেপ্তার করা হয়নি। সুষ্ঠু ভোটের পরিবেশ নিশ্চিত করতে কাজ করছে প্রশাসন। এক একটি ভোটকেন্দ্রে যে পরিমাণ প্রশাসনিক লোকবল মোতায়েন করা হয়েছে অনেক ক্ষেত্রে কিছু কেন্দ্রে দেখা যাবে, সারা দিন এত সংখ্যক ভোটারও থাকবেনা। সুতরাং ভোট নিয়ে ভোটারদের এবং ভোটের পরিবেশ নিয়ে দুশ্চিন্তা করার মতো কোন কারণ নেই।

তবে কোন কোন প্রার্থীর অভিযোগ থাকলেও এখন পর্যন্ত শান্তিপূর্ণ রয়েছে ভোটের পরিবেশ। কোন ধরনের সংঘাত সহিংসতারও খবর পাওয়া যায়নি এখন পর্যন্ত। নির্বাচন সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে যে সকল পদক্ষেপ নেয়া প্রয়োজন, সবই নিয়েছেন তারা। যার প্রতিফলন সাধারণ মানুষ দেখতে পাবে ১৬ জানুয়ারি ভোটের মাঠে।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page