চাই আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষন

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আন্তর্জাতিক মহলকে পর্যবেক্ষণের আহ্বান জানিয়ে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী তৈমূর আলম খন্দকার বলেছেন, পুলিশের কার্যক্রমের কারণে একটি ভীতিকর পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। আন্তর্জাতিক দূতাবাসের যারা আছেন পাশাপাশি মানবাধিকার কর্মী যারা আছেন সবাইকে বলবো, আপনারা নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করুন। কেন আমাদের নেতাকর্মীদের বাড়ি বাড়ি পুলিশ যাচ্ছে।কেন নেতাকর্মীদের কোন মামলা ছাড়াই গ্রেফতার করা হচ্ছে, মাঠ ছাড়তে  হুমকি দেয়া হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার নগরীর ১১ নং ওয়ার্ডে নির্বাচনী প্রচারনায় নেমে তিনি এমন মন্তব্য করেন।  তিনি বলেন, আমি বারবার বলে আসছি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সুষ্ঠু নির্বাচন চান একথাটা আমি মনে প্রাণে বিশ্বাস করি। নারায়ণগঞ্জে যা  হচ্ছে, প্রশাসন যা করছে সে ব্যপারে তার কোন নির্দেশনা নেই বলেই আমি বিশ্বাস করি। অতি উৎসাহীরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে এবং আগামী জাতীয় নির্বাচনে সকল দলের অংশ গ্রহনের পথকে রুদ্ধ করতে চাচ্ছে।

তৈমূও আলম খন্দকার বলেন,  প্রশাসন যদি মনে করেন আমার নেতাকর্মীরা ভীত, জনগণ ভীত  তবে ভুল করছেন। আমার নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধ আছে। তিনি বলেন, আমার পক্ষে গনজোয়ার সৃষ্টি হওয়ায় তারা ভীত হয়েই এসব করছে। তারা বুজতে পারছেন আমার দলের নেতাকর্মীরা তো নৌকায় ভোট দিবে না, পাশাপাশি সরকারি দলের নেতাকর্মীদের বাড়ী বাড়ী পুলিশ পাঠিয়ে তাদেরকেও রাগিয়ে দেয়া হয়েছে। হঠাৎ করেই তাদের ছাত্র সংগঠনের কমিটি ভেঙে দিচ্ছে। কারণ তারা নৌকার পক্ষে কাজ করছে না।

তৈমূর বলেন, কাউকে ধমক দিয়ে গালি দিয়ে তো কাজ করানো যায় না। নারায়ণগঞ্জের জনগণের কাছে মেসেজটা ক্লিয়ার যে তাদের মাঝে বিরাট ফাটল। ঢাকা থেকে মেহমানরা এসেও এই ফাটল মেটাতে পারেনি। এবার পরিবর্তন আসবে , হাতি এখন জনগণের মার্কা। তৈমূর আলম খন্দকার বলেন, পুলিং এজেন্ট আমরা ৩ সেট তৈরি করে রেখেছি। আমাদের কোন পুলিং এজেন্ট যদি গ্রেপ্তার হয়ে যায়, তাহলে আরেক জন যাতে সেই দায়িত্ব পালন করতে পারে। কেন্দ্রকে রক্ষা করার জন্য প্রতিটি কেন্দ্র কমিটি করা হয়েছে

সরকার দলীয় প্রার্থীর নানা ধরণের কথা আমার জন্য একটি ভালো অবস্থান তৈরি করেছে।  জনগণ এখন মনে করে, আমার দল বিএনপি ও ২০ দল এখন আমার সাথে আসছে। বরং সরকারি দলের মধ্যে বিভাজন তৈরি হয়েছে। এমপিদেরও ভোট আছে। তারা এমপিদের বিরুদ্ধে কথা বলে, কঠিন ভাবে সমালোচনা করে, জনগণের মাঝে এই ম্যাসেজটা দিয়েছে। এসময় তৈমূর আলম খন্দকারের সাথে ছিলেন মহানগর বিএনপির সাধারন সম্পাদক এটিএম কামাল, জেলা বিএনপির সদস্য আনোয়ারুল ইসলাম টিটু, মহানগর বিএনপির উপদেষ্টা আনোয়ার হোসেন খান, মহানগর বিএনপির সহ সভাপতি ফখরুল ইসলাম মজনু, সহ সভাপতি ফারুক হোসেন, মহানগর  বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক আব্দুর সবুর খান সেন্টু, মহানগর শ্রমকিদলের সভাপতি আলী আজগর প্রমুখ।

এদিকে ১১নং ওয়ার্ডে প্রচারনা শেষে তৈমূর আলম খন্দকার নগরীর ১৪ ও ১৫ নং ওয়ার্ডের কয়েকটি এলাকায় প্রচারনা চালান। শহরের দ্বিগুবাবুর বাজার এলাকায় তৈমূরের প্রচারনার সময় বাজারের ব্যবসায়ী ও আশপাশের হকাররা তাকে জড়িয়ে ধরেন। সেখানকার রিকশা চালক, ভ্যানগাড়ী চালকরাও তৈমূরকে দেখে ছুটে আসেন।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

পূর্ববর্তী সংবাদকাউকে ধরতে বলিনি
পরবর্তী সংবাদআজ ভোট শেখাবে ইসি

সর্বশেষ