জনমনে প্রশ্ন

মেয়রে ইলেকশন নাকি সিলেকশন?

আগামী ১৬ জানুয়ারি তফসিল অনুযায়ী নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনের দিন ধার্য করেছে নির্বাচন কমিশন। শেষ সময়ের নির্বাচনী প্রচারনায় ব্যস্ত সময় পার করছেন প্রার্থীরা। সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ভোটে লড়াইয়ে মাঠে নেমেছে নৌকা সহ মোট ৭ মেয়র প্রার্থী। ২৭ ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর আসনে লড়াই করবেন ১৪৮ জন। এবং সংরক্ষিত মহিলা আসনে প্রার্থী রয়েছেন ৩৪ জন। তবে সব প্রার্থীদের ভীড়ে আলোচনায় তুঙ্গে রয়েছে দুই মেয়র প্রার্থী। তারা হলেন সরকারদলীয় নৌকা প্রতীকে মেয়র প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভি, এবং সতন্ত্র মেয়র প্রার্থী হাতি প্রতিকের অ্যাড.তৈমূর আলম খন্দকার। যিনি সদ্য বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা পদ থেকে অব্যাহতি পেয়েছেন।

গত ২০১১ সালে সিটি নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করতে চাইলেও দরীয় সিদ্ধন্ত অনুযায়ী নির্বাচন থেকে সড়ে পরেন বিএনপি নেতা তৈমূর। এবার তৃত্বীয় ধাপে সিটি নির্বাচনে দল থেকে কোন সাপোর্ট না পেয়ে নিজেই স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী হয়ে নির্বাচনী লড়াই লড়ে যাচ্ছেন। আর বিভিন্ন সূত্র থেকে যে খবর তাতে নির্বাচনী লড়াই হবে আওয়ামী লীগ ও স্বতন্ত্র এই দুই প্রার্থীর মধ্যেই৷

এখানে মোট মেয়র পদের লড়াইয়ে রয়েছেন ৭ জন। মোট ওয়ার্ড ২৭টি।  কাউন্সিলর প্রার্থী ১৪৮ জন। সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলরের ৯টি পদে প্রার্থী ৩৪ জন৷ এই সিটিতে মোট ভোটার ৫ লাখ ১৭ হাজার ৩৫৭ জন।

সারাদেশের চোখ এখন নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচনের দিকে। তবে শুরু থেকেই এই নির্বাচনে কয়েকটি বিষয় আলোচনায় এসেছে। সংসদ সদস্যদের নির্বাচন কমিশন সিটি নির্বাচনে কোন সুযোগ করে দিবেন কিনা? এই প্রশ্ন হঠাৎ জনমুখে।

নির্বাচনে কমিশনের সুষ্ঠু পদক্ষেপ দাবি করছে  বিএনপি শুরু থেকেই। কিন্তু এ নিয়ে নানা আলোচনার পর নির্বাচন বিষয়টি পরিষ্কার করেছে নির্বাচন কমিশন।

ভোটারদের মতে, নির্বাচনের যা অবস্থা দাঁড়িয়েছে তাতে নিরপেক্ষ নির্বাচন কশিশন ছাড়া সুষ্ঠু নির্বাচনের আশা করা যায়না। তারপরও নির্বাচন কমিশন যেহেতু সবাই কে প্রচারণার সমান সুজোগ দিয়েছে সেহেতু এখন তাদেরই দায়িত্ব হল সুষ্ঠু নির্বাচন ব্যবস্থা নিশ্চত করা। অন্যদিকে নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙ্ঘন করে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের একা ধিক সংসদ সদস্য ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়েছেন, যা একাধিক স্থানীয় ও জাতীয় গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। বলা হচ্ছে নির্বাচন কমিশন নীতি ও আদর্শের থেকে দুরে সড়ে আওয়ামী লীগের আদেশ দ্বারা পরিচালিত হচ্ছে। তবে সংসদ সদস্যদের নির্বাচনী প্রচারের সুযোগ দেয়া কেনোভাকেই কাম্য নয় বলে মনে করছেন সুধিজন। কারণ তারা প্রশাসনসহ আরো নির্বাচন সংশ্লিষ্ট নানা বিষয়ে প্রভাব বিস্তারের ক্ষমতা রাখেন

এরই মধ্যে স্বতন্ত্র প্রার্থী তৈমূর আলম খন্দকার নির্বাচনে প্রচার চালাতে না দেয়ার অভিযোগ করেছেন প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে। মেয়র প্রার্থী তৈমূর আলম অভিযোগ করেছেন, পুলিশ প্রশাসন তার নির্বাচনী প্রচারণায় থাকা কর্মী-সমর্থকদের বাধা দিচ্ছেন। আটক করছেন বিভিন্ন নেতা কর্মীদের।

এদিকে সচেতন মহলের দাবী, এখন পর্যন্ত সিটি নির্বাচন নিয়ে সংবাদ মাধ্যমে যেসব অভিযোগ বা অনিয়মের কথা এসেছে তা নির্বাচন কমিশন নিস্পত্তি করেছে এমন খবর পাওয়া যায়নি।

এই নির্বাচনকে বিশ্লেষকরা আগামী জানুয়ারি নির্বাচনের আগে বড় দুই দলের জনপ্রিয়তা যাচাইয়ের লড়াই হিসেবে দেখছেন। আর এর প্রভাব জাতীয় নির্বাচনে পড়বে কি পড়বে না তা নিয়ে বিতর্ক থাকলেও নির্বাচন কমিশনের জন্য যে একটি পরীক্ষা তা বলছেন সবাই। এরই মধ্যে ইউপি নির্বাচনে ভোটকেন্দ্র দখলের অভিযোগও আছে। তবে বিশ্লেষকরা মনে করছেন, নির্বাচন কমিশনকে জাতীয় নির্বাচনের আগেই তার দক্ষতা এবং গ্রহণযোগ্যতা প্রমাণ করতে হবে।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ