প্রচারণার শেষ দিনে আচরণবিধি ভঙ্গের হিড়িক!

- Advertisement -

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের প্রচার প্রচারণার শেষ দিনে শহরের প্রধান সড়ক থেকে শুরু করে অলিগলিগুলো প্রার্থীদের প্রচার প্রচারণায় সরব হয়ে উঠেছে। মিছিল আর শ্লোগানে সড়গরম পুরো সিটি এলাকা। শুক্রবার (১৪ জানুয়ারি) মধ্যরাতে শেষ হচ্ছে প্রচার। শহর জুড়ে মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা প্রচারণার শেষ দিনে তাদের মিছিলের মাধ্যমে সোডাউন করেছে।

তবে প্রচারণার শেষ দিনে একাধিক কাউন্সিলর ও মেয়র প্রার্থীর বিরুদ্ধে আচরণ বিধি ভঙ্গের অভিযোগ উঠলেও নির্বাচন কমিশন থেকে কোন ব্যবস্থা নেয়ার খবর পাওয়া যায়নি।তথ্য অনুসন্ধানে জানাযায়, গত ৩০ নভেম্বর নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ি ২৮ ডিসেম্বর প্রচারাভিযান শুরু হয়। প্রচার শেষ হয়েছে গতকাল।

শেষ দিনে শহরের দুই নম্বর রেলগেইট সংলগ্ন আওয়ামী লীগের কার্যালয়ের সামনে সমাবেশ করেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। অপরদিকে বন্দরের সিরাজদ্দৌলা মাঠে সমাবেশ করেন স্বতন্ত্র প্রার্থী এ্যাড. তৈমূর আলম খন্দকার। দুই সমাবেশেই মিছিলে মিছিলে যোগ দেন হাজার হাজার নেতাকর্মী ও স্থানীয় ভোটররা। তবে প্রচারের শেষ দিনে নাসিক নির্বাচনে সহিংসতার আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন প্রধান দুই প্রার্থী।

গতকাল সকালে নগরীর দেওভোগ এলাকায় নিজ বাড়িতে সংবাদ সম্মেলনে ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী অভিযোগ করে বলেন, আমাকে পরাজিত করার জন্য অনেকগুলো পক্ষ এক হয়ে গেছে। সেই পক্ষটা ঘরের হতে পারে, বাইরেরও হতে পারে, সব মিলে গেছে। কীভাবে আমাকে পরাজিত করা যায়, কীভাবে একটা বিশৃঙ্খলা তৈরি করে ভোটকে ঝামেলা করানো যায়।

তিনি বলেন, সহিংসতা হলে আমার ক্ষতি হবে। আমার ভোটাররা আসতে পারবে না। আমি যদি বলি একটি পক্ষ তাই চাচ্ছে। আমার নির্বাচন সবচেয়ে বেশি জমজমাট। সেই জায়গাগুলোর মধ্যে হয়তো কেউ সহিংসতা করে ভোট কেন্দ্রে আসা বাঁধা দিতে পারে।অপরদিকে নগরীর ১২ নম্বর ওয়ার্ডে মিশন পাড়া এলাকায় সংবাদ সম্মেলনে এ্যাড. তৈমূর আলম খন্দকার সহিংসতার আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির জন্য বিভিন্ন জেলা থেকে লোকজন নারায়ণগঞ্জে আনা হচ্ছে। এতে নারায়ণগঞ্জবাসী শংকিত। আমি রিটার্নিং কর্মকর্তাকে অনুরোধ করবো, তারা (বহিরাগতরা) যেন নারায়ণগঞ্জ থেকে চলে যায়, সেই নির্দেশনা জারি করুন। নারায়ণগঞ্জবাসীকে ভোটে তাদের মতামত প্রকাশ করার সুযোগ দিন।

এদিকে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের মেয়র প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর নির্বাচনী সভায় যোগ দিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম বাবু। শুক্রবার (১৪ জানুয়ারি) বিকেলে নগরীর দুই নাম্বার রেলগেইটে সভা চলাকালে তিনি সেখানে উপস্থিত হন।সিটি করপোরেশন নির্বাচনে প্রার্থীর প্রচারণায় কোনো সাংসদের অংশ নেওয়া স্পষ্টত আচরণবিধি লঙ্ঘন হলেও বাবু আইভীর প্রচারণায় যোগ দেন। শুধু তাই নয়, বেশ কয়েকবার তিনি প্রকাশ্যে আইভীর প্রচারণায় অংশ নিয়ে ভোট প্রার্থনা করেছেন।

শুক্রবার বিকেল তিনটার দিকে নারায়ণগঞ্জের ২নং রেলগেটে সড়ক বন্ধ করে ৪টি ট্রাকের উপর নির্মিত অস্থায়ী মঞ্চে পথসভা শুরু হয় আইভীর। সাড়ে তিনটার পর মঞ্চে আসেন সাংসদ বাবু। এ সময় স্থানীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে কুশল বিনিময়ও করেন তিনি। পাশাপাশি মঞ্চে তাদের সঙ্গে সেলফিও তোলেন এই সাংসদ। পরে বিকেল তিনটা ৫০ মিনিটে সভাস্থল ত্যাগ করেন নজরুল ইসলাম বাবু।

সিটি করপোরেশন নির্বাচন আচরণ বিধিমালার ২২ ধারায় বলা হয়েছে, সরকারি সুবিধাভোগী অতিগুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের নির্বাচনী প্রচারণায় বা নির্বাচনী কার্যক্রমে অংশগ্রহণের বিষয়ে বিধিনিষেধ রয়েছে। উল্লেখ্য এর আগেও তিনি দু’বার মেয়র আইভীর প্রচারণায় অংশ নেয়। এদিকে মেয়র আইভীর হয়ে, শহরের বিভিন্ন ওয়ার্ড থেকে শহরের ২নঙ রেলগেইটে জেলা আওয়ামী লীগ আয়োযিত পথসভায় যোগ দিতে মিছিলে মিছিলে যোগদান করেন শত শত নেতাকর্মীরা।

এসময় তাদের পরিহীত গেঞ্জিতে আইভীর ছবি সম্বলিত রঙিন ছাপায় লেখা ছিল, ‘আইভীকে নৌকায় ভোট দিন’। গত ২৬ ডিসেম্বর থেকে ১১ জানুয়ারি পর্যন্ত এ নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তার দপ্তরে এসব অভিযোগ জমা পড়েছে। এর মধ্যে প্রতিপক্ষ প্রার্থীকে নির্বাচন থেকে সরে না দাঁড়ালে হত্যার হুমকি, অবৈধ অস্ত্রের ব্যবহার এবং ভয়-ভীতি দেখানোর মতো অভিযোগও রয়েছে। এ ২০টি অভিযোগের তিনটিই আওয়ামী লীগের প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর বিরুদ্ধে করেছেন বিএনপি থেকে অব্যহতি পাওয়া স্বতন্ত্র প্রার্থী অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার। অপরদিকে তার বিরুদ্ধে আচরণ বিধিমালা লংঘনের অভিযোগ করেছেন ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী।

তবে গত তিন দিনে আরও কয়েকটি অভিযোগ জমা পড়েছে রিটার্নিং ও সহকারি রিটার্নিং কর্মকর্তাদের দপ্তরে। নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ১৪ নম্বর ওয়ার্ডে বিপুল অংকের টাকার বিনিময়ে সাধারণ ভোটারদের ভোট নির্দিষ্ট প্রতীকে দিতে কাজ করছেন কয়েকজন যুবক। ওই ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী মনিরুজ্জামান মনির তারই প্রতিপক্ষ বর্তমান কাউন্সিলর শফিউদ্দীন প্রধানের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ করেন। অভিযোগে তিনি উল্লেখ করেন, শফিউদ্দীনের লাটিম প্রতীকে ভোট দিতে ভোটারদের চাপ ও বল প্রয়োগ করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মনিরুজ্জামান মনির নারায়ণগঞ্জের আলোকে বলেন, অভিযোগ করেও কোনো প্রতিকার পাইনি। এখনও টাকা দিয়ে ভোট কেনাবেচা চলছে। উপরুন্ত গত বুধবার আমার পক্ষে মাইকিং করার সময়ে আমার এক কর্মী সাজিদকে মারধর করা হয়েছে। তবে এ অভিযোগ অসত্য দাবি করে কাউন্সিলর প্রার্থী শফিউদ্দীন প্রধান নারায়ণগঞ্জের আলোকে বলেন, পুরোই মিথ্যা কথা। জীবনে কখনই টাকা দিয়ে ভোট কিনিনি। আমি মানুষের সেবা করেছি। করোনাভাইরাস সংক্রমনের সময়ে নিজে লাশ বহন করেছি। পরিস্থিতি ঘোলাটে করতে মিথ্যা অভিযোগ করেছে।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page