শেষ মিছিলে চমকে দিলেন তৈমূর

- Advertisement -

প্রচার-প্রচারণার শেষ দিনে স্বতন্ত্র প্রার্থী তৈমুর আলম খন্দকারের মিছিল-পথসভায় বিএনপির পাশাপাশি জাতীয় পার্টির নেতা-কর্মীরাও অংশগ্রহণ নিয়েছে। অবশ্য সংবাদ সম্মেলনে তৈমুর অভিযোগ করেন, নির্বাচন কমিশন ঠুটো জগন্নাথ। আওয়ামী লীগ প্রার্থী আচরণবিধি লঙ্ঘন করলেও ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না। উল্টো বিএনপি নেতা-কর্মীদের ভয়-ভীতি ও পুরনো মামলায় গ্রেফতার করা হচ্ছে। এমনকি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোরও গুজব ছড়ানো হচ্ছে। ১৮ বছরের না পাওয়ার চাপা ক্ষোভ থেকে ভোটাররা হাতি মার্কায় ভোট দেবেন বলে আশা ব্যক্ত করেন তিনি।

শুক্রবার সকালে সাড়ে ১০টায় মিশনপাড়া এলাকায় প্রধান নির্বাচনী ক্যাম্পে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে নির্বাচনী কার্যক্রম শুরু করেন তৈমুর আলম। এরপর সকাল ১১টায় মাসদাইরে নিজ বাসভবনে পোলিং এজেন্টের সঙ্গে রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেন। দুপুরে মাসদাইরের বায়তুল আমান জামে মসজিদে জুমার নামাজ শেষে বিকেলে বন্দর এলাকার সিরাজউদদৌলা মাঠে পথসভা করেন।

সংবাদ সম্মেলনে তৈমুর আলম অভিযোগ করেন, ঢাকা ও দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে সম্মানিত মেহমান (আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সদস্য), সংসদ সদস্য ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন। তারা পুলিশ ও প্রশাসনের ওপর চাপ সৃষ্টি করছেন। বহিরাগত এসব ব্যক্তিদের বক্তব্য পরিস্থিতি ঘোলাটে করে দিচ্ছে। এমনকি বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির জন্য বিভিন্ন জেলা থেকে বহিরাগত মানুষজন আনা হচ্ছে। এতে নারায়ণগঞ্জের মানুষ শংকিত।

নেতা-কর্মীদের ধরপাকড়ের অভিযোগ করে তিনি আরও বলেন, কয়েকদিন আগে আওয়ামী লীগের এক নেতা আমাকে উদ্দেশ্য করে বলেছেন, ঘুঘু ফাঁদ দেখিনি। এখন ঘুঘুর ফাঁদ ভালো ভাবেই টের পাচ্ছি। নির্বাচনের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতাদের পুরনো মামলায় গ্রেফতার করা হচ্ছে। গত মার্চ মাসের মামলায় সিদ্ধিরগঞ্জ থেকে রবিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পোস্টার লাগানোর সময় মেয়ের জামাতাতুল্য আশরাফকে গত ১ এপ্রিলের মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছে। লিফলেট বিতরণের সময় খানপুর থেকে আব্দুর রহিম নামে একজন কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ রকম আরও অসংখ্য নেতা-কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অনেকের বাড়িতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নামে রাতে ৮-১০ গাড়ি গিয়ে তল্লাশি করছে। ফোনে হুমকি-ধমকি দেয়া হচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে তৈমুর বলেন, নির্বাচনকে ঘিরে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে মানুষজন আনা হচ্ছে। এরা নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন হোটেল, সার্কিট হাউজ, নারায়ণগঞ্জ ক্লাবে অবস্থান করছেন। এদের কারণে ভোটাররা শংকিত। নির্বাচনকে ঠুটো জগন্নাথ আখ্যা দিয়ে তৈমুর বলেন, একাধিকবার আচরণবিধি ভঙ্গে অভিযোগের প্রেক্ষিতে ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিলেও নির্বাচন কমিশন কোন উদ্যোগই নেয়নি। বরং ব্যাপক আকারে আচরণবিধি লঙ্ঘন করা হচ্ছে। নির্বাচন কমিশন সব দেখেও না দেখার ভান করছে।

নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর অভিযোগ প্রসঙ্গে তৈমুর বলেন, নির্বাচন থেকে বসে পড়ার গুজব ছড়ানো হচ্ছে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে থাকার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন তিনি। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল, সহ-সভাপতি ফখরুল ইসলাম মজনু, শ্রমিক দলের সভাপতি এসএম আসলাম প্রমুখ।

এরপর দুপুর ১১টায় নিজ বাসভবনে পোলিং এজেন্টদের সঙ্গে রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেন তৈমুর আলম খন্দকার। সেখানে উপস্থিত নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, যতো ভয়-ভীতি দেখানো বা চাপ দেয়া হোক না কেন, পোলিং এজেন্টদের ভোট কেন্দ্রে থাকার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। এরপর দুপুরে জুমার নামাজ সেজে মুসল্লিদের কাছে ভোট চান তৈমুর। এর আগে তৈমুরের পক্ষে ভোট চান গলাচিপা পঞ্চায়েত কমিটির সভাপতি।
এরপর বিকেলে বন্দরের সিরাজ উদ্দৌলা মাঠে পথসভায় অংশ নেন তৈমুর আলম। সেখানে মিছিল নিয়ে আসেন জাতীয় পার্টির নেতা ও মুছাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাকসুদ হোসেন, বন্দর উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা আতাউর রহমান মুকুল। মিছিলে হাজারখানেক বিএনপি-জাতীয় পার্টির নেতা-কর্মী অংশ নেয়। এরপর বন্দর এলাকার বিভিন্ন স্থানে গণসংযোগ করেন তিনি। এদিকে বন্দরে তৈমুর আলমের মিছিলকে লক্ষ্য করে একাধিক ছোট ছোট পাল্টা মিছিল করে আইভীর কর্মী-সমর্থকরা। তখন সেখানে মানুষের মাঝে চাপা ভয়-শংকা দেখা গেছে।

সন্ধ্যায় সাংবাদিকদের তৈমুর বলেন, ১৮ বছরের চাপা ক্ষোভ-বঞ্চনা থেকে মুক্তি পেতে ভোটাররা হাতি মার্কায় ভোট দেবে। ভোটারদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ভাগ্যের পরিবর্তন চাইলে সব ভয়-ডর দূরে সরিয়ে হাতি মার্কায় ভোট দিতে স্মার্টকার্ড নিয়ে ভোট কেন্দ্রে যাবেন।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page