১০ বছরে ময়লা, মশায় অতিষ্ট সিদ্ধিরগঞ্জবাসী


কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ চলতে চলতে সেটি রিভাইস করে ব্যয় বেড়ে হয়েছে ২১ কোটি টাকার বেশী, যা দেশে বিরল ঘটনার একটি। শুধু তাই নয়, ফুটপাতমুক্ত রাখার দ্বায়িত্বে থাকা সিটি কর্পোরেশন নিজেরাই ফটুপাত দখল কওে এই বহুতল পাঠাগার বানিয়ে সেখানে গাড়ী পার্কিং এর ব্যবস্থাই রাখেনি।

তবে নগরবাসীর জন্য বিষফোড়ার একটি হলো যানজট। সাবেক মেয়র আইভী যানজটের বিষয়টি ট্রাফিক পুলিশের বিষয় বলে বারবার এড়িয়ে গেলেও নাগরিকরা মনে করেন এই যানজটের অন্যতম অন্যতম কারণ সিটি কর্পোরেশনই। কারণ, নগরীর মূল সড়কের উপর বসে সিটি কর্পোরেশনের আওতাধীন কাচা বাজার। তছাড়া শত শত কোটি টাকা বাজেট হলেও আজ অবধি সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে কমিউনিটি পুলিশ বা স্বেচ্ছাসেবী নিয়োগ করে যানজটের ব্যপারে কোন ভুমিকা রাখেনি। এছাড়াও সম্প্রতি বন্দর এলাকার বেশ কয়েকটি শত বছরের প্রাচীন রাস্তার নাম বদলে ফেলায় জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধন করতে হিমশিম খাচ্ছেন কয়েক হাজার মানুষ। নাগরিক সনদ, জন্ম সনদ, মৃত্যূ সনদ আনতে গিয়েও ত্যক্ত বিরক্ত হয়ে যাচ্ছেন নাগরিকরা।

গত কয়েক দিনে বন্দর, সিদ্ধিরগঞ্জ ও শহরের প্রায় প্রতিটি ওয়ার্ড ঘুরে সাধারন ভোটারদের কাছে পাওয়া অভিমত অনুযায়ী উঠে এসেছে করোনাকালে টাক্স বৃদ্ধি করা, পানি না পেলেও ওয়াসার ট্যাক্স দেয়া এবং গভীর নলকূপে ১লাখ ২০হাজার টাকা ফি দেয়া, ময়লা ব্যবস্থাপনা, জলাবদ্ধতা, করোনাকালে সিটি কর্পোরেশনের নিজস্ব তহবিল থেকে কোন সাহায্য না করা, বিভিন্ন সনদে ট্যাক্স বৃদ্ধিও ভোগান্তি, যানজটসহ বেশ কিছু অভিযোগ। ভোটের সমীকরণে এসব হিসেব কষছেন এখন লক্ষ্যাপাড়ের মানুষরা।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ