আজ নাসিকের ভোট গ্রহন দলীয় সমর্থন ছাড়াই

ভোটের লড়াই একাই লড়েছেন তৈমূর!

নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচনের ভোটের বাকি মাত্র এক দিন। নির্বাচনকে ঘিরে প্রার্থীরা ব্যপক প্রচার প্রচারণা ও গণসংযোগ চালিয়েছে নির্বাচন কমিশনের বেধে দেওয়া সময় অনুযায়ি। স্থানীয় ভোটার দের বাগে আনতে ভোট প্রত্যাশা করে দিয়েছেন নানান প্রতিশ্রুতি। ছুঁটেছেন ভোটারদের দুয়ারে দুয়ারে। নাসিকে মেয়র প্রার্থী সাত জন হলেও নির্বাচনে ভোটর লড়াইয়ে উত্তআপ ছড়িয়েছেন হেভিওয়েট দুই প্রার্থী যথা, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াত আইভী ও বিএনপি হতে অব্যাহতি পাওয়া হাতি প্রতীকে স্বতন্ত্র প্রার্থী এ্যাড. তৈমূর আলম খন্দকার। অন্য সব প্রার্থীদের ছাপিয়ে ভোটারদের আলোচনার বিষয়ে পরিণত হয়েছেন এই দুই প্রার্থী। নাসিক নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী তৈমূর মনে করছেন, এ লড়াই তিনি একা লড়ছেন না, তার সাথে যুক্ত হয়েছে নগরবাসীর পুঞ্জিভ’ত ১৮ বছরের ক্ষোভ। দল নির্বাচনে নেই তাই দরীয় নেতাকর্মী বা দলের শীর্ষ স্থানীয় নেতারা তার পাশে এসে দাড়ায়নি।

এদিকে সিটি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এর আগে কখোনই দলের শীর্ষ পর্যায়ের নেতাকর্মীদের মাটি আঁকড়ে নারায়ণগঞ্জে পরে থাকতে দেখা যায়নি। নৌকা ইস্যুতে নারায়ণগঞ্জে আওয়ামী লীগের যে বিভাজন ছিল তা একাট্টা করতে সমর্থ্য হয়েছে আওয়ামী লীগের নীতি নির্ধারকরা। তাই সরকার দল সমর্থীত প্রার্থীর পাশে দল, দলের স্থানীয় ও কেন্দ্রীয় নেতাকর্মীদের জোড়ালো অবস্থান থাকলেও বিএনপির রাজনীতি থেকে উঠে আশা রাজনীতির ময়দানে বহুবার পরীক্ষিত এই প্রার্থীর পাশে দলের কেন্দ্রীয় নেতাদেরতো দেখা যায়নি, উল্টো স্থানীয় অনেক নেতাকর্মীকে তার বিরোধীতা করতে দেখা গেছে। এদিকে বিএনপি ক্ষমতাসীন সরকার ও সরকারের আজ্ঞাবহ নির্বাচন কশিমনের অধীনে কোন নির্বাচনে অংশগ্রহন করবেনা বলে শক্ত অবস্থানে রয়েছে। তবে বিএনপির একটি সভায় দলের মহাসচিব মির্যা ফখরুলের দেওয়া বক্তব্যে তিনি বলেছিলেন, দল নির্বাচনে যাবে না। তবে কেউ যদি স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করে তবে দল থেকে কোন আপত্তি নেই। এরই ধারাবাহিকতায় ও নারায়ণগঞ্জের গণমানুষের চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে শেষ সময়ে সিটি নির্বাচনে অংশগ্রহনের সিদ্ধান্তে আসে বিএনপির চেয়াপার্সনের উপদেষ্টা পদ থেকে অব্যাহতি পাওয়া তৈমূর আলম খন্দকার। গত ৩০ নভেম্বর নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ি ২৮ ডিসেম্বর মঙ্গলবার প্রচারাভিযান শুরু হয়ে গত ১৪ জানুয়রি শুক্রবার মধ্যরাতে প্রচার প্রচারণার সময় আনুষ্ঠানিকভাবে শেষ হয়।

প্রচার প্রচারণায় ও গণসংযোগে নৌকার প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াত আইভীর পাশে একঝাঁক কেন্দ্রীয় নেতাকর্মীরা নামলেও হাতি প্রতীকের প্রার্থী তৈমূর আলমের পাশে দল থেকে কোন কেন্দ্রীয় নেতাদের সমর্থন আসেনি। নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তাপ শুধুমাত্র নারায়নগঞ্জবাসীর গায়েই লাগেনি, লেগেছে সাড়া বাংলায়। বাংলাদেশের সবচেয়ে আলোচিত এই সিটি নির্বাচনের দিকে চেয়ে আছে বিশে^র বহু দেশের মানুষেরা। সবার দৃষ্টিতে একটাই চাওয়া সুষ্ঠু নিরেপক্ষ নির্বাচনের। তবে নির্বাচন সুষ্ঠুতা ও নিরেপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

নির্বাচনের সুষ্ঠু ও নিরেপক্ষ পরিবেশ নিয়ে খোদ ক্ষমতাসীন দল সমর্থীত প্রার্থী ও অন্যাান্য প্রার্থীরা ও শঙ্কা প্রকাশ করেছে। শঙ্কায় রয়েছে নির্বাচন পূর্ববর্তী ও পরবর্তী সহিসতারও। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ক্ষমতাসীন সরকার দলের প্রার্থীর প্রচার প্রচারণায় বহিরাগতদের এনে নির্বাচনী শোডাউন করানো ও শহরে অবস্থান নেয়ার বিষয়ে শংঙ্কা প্রকাশ করে গত শুক্রবার জরুরী সংবাদ সম্মেলন করে নির্বাচনের নানা বিষয়ে কথা বলেন। এসময় তার সংবাদ সম্মেলনে উঠে আসে মামলায় নেতাকর্মীদের পুলিশি হয়রানি ও ধরপাকরের বিষয়। নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী তৈমূর আলম খন্দকার বলেছেন, সরকারি দলের প্রার্থীর ডিজিটাল আইনের মামলা থেকে সাংবাদিকেরাও রেহাই পায়নি। এখনও সেই মামলায় তারা জেল খাটছে। ছাত্রলীগের ছেলে সুজন তার মামলা মাথায় নিয়ে মারা গেছে।

তিনি এও বলেন, নেতাকর্মীদের পুলিশি হয়রানি করে নির্বচনে তাকে পিছিয়ে রাখা যাবেনা। বরং সরকার দলের এরকম প্রহসন মূলক আচরণের জবাব স্থানীয় ভোটাররা ব্যলটের মাধ্যমে জবাব দিবেন। এত করে তার ভোট বাড়ছে বৈকি কমছে না। তবে সরকার দলের প্রার্থীর ও তার সমর্থকদের তার বিষয়ে নানা ধরনের যে গুজব ছড়িয়েছে ও সরাসরি আঘাত করে বক্তব্য বা বিবৃতি দিচ্ছেন তা হতে সড়ে আসার আহŸান জানা তিনি। নির্বাচন কমিশনের সুষ্ঠু নির্বাচন পরচিালনার স্বার্থে প্রধানমন্ত্রীর হস্তখেপ কামনা করেন তিনি।

উল্লেখ্য আগামী ১৬ জানুয়ারি নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ভোটের দিন। তবে শেষতক জয়ের হাসি কে হাসবেন তা জানাে জন্য আরোও একদিন অপেক্ষা করতে হবে। সব ছাপিয়ে নারায়ণগঞ্জের মানুষের ভোটধিকার প্রয়োগ হোক, যিনি নিবেন এই নগরের দায়িত্ব তিনি যেন, গণ মানুষের ভাগ্যের উন্নয়নের স্বার্থে কাজ করেন-এমনটাই কামনা স্থানীয় ভোটারদের।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ