বিজয়ের পরে সেলিনা হায়াৎ আইভী

জন কল্যাণে কাজ করবো

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের (নাসিক) নির্বাচনে বেসরকারীভাবে বিপুল ভোটে নির্বাচিত হয়ে দল মতের উর্দ্ধে উঠে জনগণের কল্যাণে কাজ করার অঙ্গিকার ব্যক্ত করেছেন সেলিনা হায়াৎ আইভী। নির্বাচনে বেসরকারীভাবে বিজয়ের খবর আসার পর রোববার রাত সোয়া নয়টায় নগরীর নিজ বাসা চুনকা কুটিরে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় তিনি বলেন, আবারো প্রমাণ হয়েছে এই নারায়ণগঞ্জের মাটি নৌকার ঘাটি।

বঙ্গবন্ধু ও আওয়ামী লীগের জয় এই নারায়ণগঞ্জেই হয়েছিল, তার ধারাবাহিকতা রক্ষা করতে পেরেছি বলে নিজেকেও গর্বিত মনে করি। শেখ হাসিনার একজন ক্ষুদ্র কর্মী হিসেবে আমি আজীবন এই দল করতে চাই। জয় বাংলা বলবো। কিন্তু সব কিছুই উর্দ্ধে উঠে আমি নারায়নগঞ্জের মানুষের সেবা করবো। দল মতের উর্দ্বে উঠে জনকল্যাণে কাজ করবো। তৃতীয়বারের মতো বিজয়ী করায় জনগণের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে আইভী বলেন, তারা আমাকে আগামী ৫ বছরের জন্য কাজ করার সুযোগ করে দিয়েছেন।

এজন্য আমি তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই। আমি আগামী ৫ বছর নারায়ণগঞ্জ বাসির জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করতে চাই। তাদের জন্য জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত তাদের জন্য উৎসর্গ করতে চাই। সব ধরনের বাধা-বিপক্তি অতিক্রম করে আমি জনগণের জন্য কাজ করতে চাই। তিনি বলেন, এই জয় জনগণের। আমৃত্যু নারায়ণগঞ্জবাসীর জন্য কাজ করবো। তিনি বলেন, এই জয় আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার। এই জয় উৎসর্গীত আমার নেত্রীর জন্য। এই জয় উৎসর্গীত আমার নিবেদিত প্রাণ নারায়ণবাসির জন্য। যারা আমাকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করেছেন। এই জয় উৎসর্গীত মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য।

প্রধান প্রতিপক্ষ তৈমূর আলম খন্দকারের অভিযোগের জবাবে আইভী বলেন, আপনারা সাংবাদিকরা সারাদিন ছিলেন। প্রশাসন ছিলো। ফলে এরকম কিছু হয়ে থাকলে আপনাদের চোখে পড়তো। আমি মনে করি- ইভিএম ভোটিং ভোটিং না হলে ভোট কাস্টিং বেশি হতো এবং লক্ষাধিক বেশি ভোটে জয়ী হতা।

তিনি বলেন, আমার সবগুলো নির্বাচনই ছিল চ্যালেঞ্জিং। এটার তার চেয়ে কম নয়। নির্বাচন মানেই প্রতিযোগীতা প্রতিদ্ব›দ্বীতা। সব কিছু ওভারকাম করে জয় নিয়ে আসার মধ্যেই আমাদের সাফল্য। তবে আমি মনে করি যত কিছুই এখানে হোক না কেন, তবুও নৌকার বিজয় হয়েছে এর মূলেই আমার জনগণ। জনসমর্থণ যদি না থাকতো তাহলে আমি নারায়ণগঞ্জে দাড়িয়ে থাকতে পারতান না।

তিনি আরো বলেন, তবে এটা সত্য এই মানুষের আস্থায় আনার জন্য কখনো তাদের মিথ্যে প্রতিশ্রতি দেইনি। কখনো অযথা আশ্বাস দেইনি। আমি গতানুগতিকের বাইরে গিয়ে এই শহরের মানুষের সঙ্গে সাধারণভাবে মিশেছি। কাজ করেছি। আমি যেটা পেরেছি সেটাই বলেছি। সেটা পারি নাই, সেটা বলি নাই। নিস্বার্থভাবে মানুষকে ভালোবেসেছি। মানুষও তার ফিরিয়ে দিয়েছে। আমার দল ও নেত্রী আমার উপর আস্থা রেখে, আমার হাতে নৌকা তুলে দিয়েছিলেন।

নারায়নগঞ্জবাসিও তাকে নিরাস করেনি। এসময় তিনি বিগত বছরের মতো তার নির্বাচনী প্রতিপক্ষ তৈমূরের বাসায় মিষ্টি নিয়ে যাবেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, যাবো। তৈমূর কাকা চাইলেও যাবো, না চাইলেও যাবো। এবং তার যৌক্তিক নির্বাচনী প্রতিশ্রতিগুলো দুজনে মিলে বসে বাস্তবায়নের চেষ্টা করবো। শামীম ওসমান তাকে অভিনন্দন জানিয়েছে কিনা জানতে চাইলে আইভী বলেন, জানানি। হয়তো জানাবেন।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ