আইভীকে বুকে টেনে নিলেন তৈমূর

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে তৃতীয়বারের মতো ভোটে জিতে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী তৈমূরের বাসায় ছুটে যান মেয়র ডা. সেলিনা হায়াত আইভী। সোমবার (১৭ জুন) সোমবার বিকেল পৌঁনে ৫টার দিকে মাসদাইরে মজলুম মিলনায়তনে যান আইভী। সঙ্গে ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি আদিনাথ বসু, যুগ্ম সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ।

ওই সময়ে বাসার নিচ তলাতেই অবস্থান করছিলেন তৈমূর ও তার পরিবারের লোকজন। দুইজন একত্রে হলে এক আবেগঘন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। রুমে ঢুকতেই আইভীকে পেয়ে বুকে টেনে নেন তৈমূর। তখন আইভী বলেন, ভোটে যাই হোক আমরা তো চাচা ভাতিজি। এ সম্পর্কটা আর কখনো নষ্ট হবে না।

এর আগে ১৬ জানুয়ার মেয়র আইভী বলেছেন, এ জয় শেখ হাসিনার, আইভীর ও নারায়ণগঞ্জবাসীর। আমার এ জয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী তৈমুর আলম খন্দকারও খুশি হবেন। কাকা (তৈমূর আলম খন্দকার) অনেক ভোট পেয়েছেন তাকে অভিনন্দন জানাতে চাচ্ছি। আপনার মেয়ে জিতেছে। মেয়ে তো জিতবেই, বাবারা সব সময় মেয়েদের জিতিয়ে দেয়। তিনি যেহেতু আমার চাচা তিনিও খুশি হয়েছে যে চুনকার মেয়ে জিতেছে, উনারই মেয়ে জিতেছে। তার যে পরিকল্পনা আছে আশা করি সেগুলো বাস্তবায়নে তিনি আমাকে সহায়তা করবেন। আমি বলব এখানে মানুষের অবদান সবচেয়ে বেশি। এখানে নৌকা আর আইভী এক।

উল্লেখ্য, ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর বাবা প্রয়াত পৌর পিতা আলী আহাম্মদ চুনকার শিষ্য ছিলেন তৈমূর আলম খন্দকার। তখন থেকেই তাদের সম্পর্কটা অনেক। চুনকা জীবিত থাকাকালে তাঁর পাশেই থাকতেন তৈমূর। এবার ২২ জানুয়ারী সিটি করপোরেশন নির্বাচনে দুইজন মেয়র প্রার্থী হন। দুইজনই রাজনৈতিক বক্তব্য দিলেও কেউ কাউকে ব্যক্তি আক্রমণ করে বক্তব্য দেননি। ভোটে জিতে যাওয়ার পরদিনই তৈমূরের বাসায় ছুটে যান আইভী।

২০১১ সালে ৫ মে নারায়ণগঞ্জের তিনটি পৌরসভা যথাক্রমে নারায়ণগঞ্জ, সিদ্ধিরগঞ্জ ও কদমরসুল কে একীভুত করে স্থানীয় সরকার (সিটি কর্পোরেশন) প্রতিষ্ঠা বিধিমালা ২০১০ এর বিধি ৬-এ প্রদত্ত ক্ষমতাবলে সরকার প্রায় ৭২.৪৩ বর্গ কিলোমিটার এলাকা নিয়ে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন প্রতিষ্ঠা করে সরকার।

এরপর ২০১১ সালের নির্বাচনে প্রথমবার এবং ২০১৬ সালে দ্বিতীয়বার জয়ী হয়েছিলেন ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। তৃতীয়বারের এ নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে আইভী পেয়েছেন এক লাখ ৬১ হাজার ২৭৩ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী তৈমুর আলম খন্দকার হাতি প্রতীকে ৯২ হাজার ১৭১ ভোট পেয়েছেন। আইভী ও তৈমুরের ভোটের ব্যবধান ৬৯ হাজার ১০২।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

পূর্ববর্তী সংবাদসব সময় পাশে পাবেন
পরবর্তী সংবাদনতুন ডিসি’র দায়িত্ব গ্রহন

সর্বশেষ