ইভিএম জঘন্যতম ডাকাতির মেশিন

ওয়ার্ডবাসী টাকার কাছে বিক্রি : পপি রানী সরকার

দ্বিতীয় দফায় বিপুল ভোটে পরাজিত হয়ে রাষ্ট্র, সরকার ও নির্বাচন কমিশনকে নিয়ে বিষেদাগার করেছেন গণ সংহতি আন্দোলনের পপি রাণী সরকার। তবে ভোটে হেরে শুধু নির্বাচন কমিশন ও সরকার বিরোধী প্রপাগান্ডাই করেননি, ভোটরদেরকে চড়ম অসম্মআন জানিয়ে বলেছেন, ওয়ার্ডবাসী টাকার কাছে বিক্রি হয়ে গেছে। নির্বাচন কমিশন ও ভোটররা টাকায় বিক্রি না হলে, যোগ্যতার বলে তিনিই নির্বাচিত হতেন বলেও অভিযোগ পপি রণী সরকারের। তবে তার এমন বক্তব্যে প্রশ্ন উঠেছে নির্বাচনে নাসক নির্বাচনে মেয়র আইভীকে নিয়েও। কারণ নির্বাচনে মেয়র পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী তৈমূর আলম ও একই অভিযোগ করেছেন যে, ইভিএম ভোট চুরির মেশিন না, ভোট ডাকাতির মেশিন।

গত মঙ্গলবার (১৮ জানুয়ারি) বিকাল ৬ টায় একটি ফেইসবুক পেজ (কথিত গণমাধ্যম) থেকে লাইভে সংযুক্ত হয়ে ওয়ার্ডবাসী, রাষ্ট্র, সরকার ও নির্বাচন কমিশনকে নিয়ে উল্লেখিত অভিযোগ করেন তিনি। তথ্য অনুসন্ধানে জানাযায়, ২০১৬ সালেও নির্বাচনে শারমীন হাবিব বিন্নির কাছে ৪ হাজারেরও কিছু বেশি ভোটে পরাজিত হয় পপি রাণী সরকার।পপি রাণী সরকার কথিত গণমাধ্যমের লাইভে সংযুক্ত হয়ে যে অভিযোগ করেছে তা পাঠকদের উদ্দেশ্যে তুলে ধরা হল-ভোটারদের মধ্যে একটা ইয়ে ছিল, ‘ভোট দিয়েছি মোবাইলে; ভোট গেল কোথায়? এই শঙ্কাটা ভোটরদের মধ্যে ১৬ জানুয়ারি (রবিবার নাসিক ভোটের দিন) বারবার উল্লেখিত ছিল। ফলে রেজাল্টের মধ্যে দেখা গেল, জনগণ ভোট দিল মোবাইলে, জিতে গেল বই।

এইটা আসলে, আমার ১৩, ১৪ ও ১৫নং ওয়ার্ডের জনগণ খুবই হতাশার মধ্যে ছিল, জনগণ খুবই হতাশ হয়েছে। একটা বিষয় হচ্ছে যে, আসলে ভোট গেল কোথায়? পরাজিত হলাম, কেন হলাম? তার পিছনে একটা কারণ হচ্ছে আসলে, ভোট শেষ পর্যন্ত অর্থশক্তির কাছে বাংলাদেশের জনগণ জিম্মি। আমাদের যারা প্রার্থী থাকে তাদেরতো টাকার ছড়াছরি থাকে, অবৈধ টাকা।

আমাদের নির্বাচনি প্রচারণায় বারংবার যে আবেদনটা ছিল রিটার্ণিং কর্মকর্তার কাছে ও নির্বাচন কমিশনারের কাছে, কোন প্রর্থী যেন অবৈধভাবে টাকার লেনদেন করতে না পারে, সে বিষয়টি যেন তারা তদারকি করে। কিন্তু আমরা বিষয়টি দেখলাম নির্বাচন কমিশন সুষ্ঠুভাবে তদারকি করতে ব্যর্থ হয়েছে। যার ফলেই আসলে ভোটররা ভোট দিলো তা সঠিক জায়গায় পরেনি।

আর তাছাড় ইভএম যে পদ্ধতি আসলে কিছু কেন্দ্রে দেখলাম যেমন, নারায়ণগঞ্জ সরকারি তোলারাম কলেজ ও সরকারি মহিলা কলেজে কিছু ভোটারের অভিযোগ ছিল যে ভোট দিতে গিয়েছি, ভোট যখন দিতে যাই তখন ইভিএম এ মোবাইলে টাচ করি, টাচ করারপরে সাদা বাটনটিতে কাজকরে না, কিন্তু বইয়ের যে বাটনটি রয়েছেতা একবার টাচেই ঠিকঠাক কাজ করছিলো। এই ধরনের অভিযোগ ভোটারদের মধ্যে রয়েছে। কিন্তু আমরা যখন কেন্দ্রগুলোর মধ্যে যাই, তখন প্রিসাডিং কর্মকর্তাদের বক্তব্য হচ্ছে যে, এই ধরনের কোন সমস্যা নেই। ফলে এইযে বিভ্রান্তকর পরিস্থিতি, এই পরিস্থতিতো অবশ্যই দায়ী। আরেকটি বিষয় হচ্ছে যে, ইভিএম পদ্ধতি এবং ব্যালট পদ্ধতি এর মধ্যে পার্থক্য হচ্ছে, ব্যলটের মাধ্যমে চুরি করলে স্বাক্ষ্য-প্রমাণ থাকে, কিন্তু ইভিএম এ আসলে কোন স্বাক্ষ্য-প্রমাণ থাকে না। এটি অসলে কোন চুরি নয়, ভোট ডাকাতি বলা যায়। যেই রাষ্ট্র এই ইভিএম পদ্ধতিটি চালু করেছিল, ইভিএম পদ্ধতির যে চুরি সেটি ঠেকাতে না পেরে তারা ইভিএম বন্ধ করে দিয়েছিল। কারণ ইভিএম পদ্ধতিতে কারচুপি করতে হলে কেন্দ্র যেতে হয়না কেন্দ্র দখল করতে হয়না, ফলে আপনি ১০০ গজ দুরে থেকেও ভোট কারচুপি করতে পারেন। কারন হচ্ছে এটি আসলে অনলাইন ভিত্তিক না, সেটিংয়ের বিষয়। ফলে পুরোটিই আসলে আগে থাকতে সেটিং করা যায়। ফলে আমি মনে করি, বাংলাদেশে যে ইভিএম পদ্ধতি চালু হয়েছে তা খুবই অগণতান্ত্রিক ও জঘন্নতম পদ্ধতি চালু করেছে রাষ্ট্র ও সরকার। ফলে এটিকে অনতিবিলম্বে বাতিল করতে হবে, বাতিল করার দাবি জানাই আমি। ফলে আমি মনে করি অর্থ শক্তির কাছে মানুষের ভোট হেরেগেছে।

নির্বাচনের আগে নির্বাচন কমিশনকে ৪ বার অভিযোগ করে ছিলাম, কিন্তু নির্বাচন কমিশন কোন ধরনের ব্যবস্থা নেয় নাই বলে আমি মনে করি।উল্লেখ্য যে, সিটি নির্বাচনে মোট ৩৯টি কেন্দ্রে ১৩, ১৪ ও ১৫নং ওয়ার্ডে ৭৭ হাজার ১১৮ জন ভোটারের মধ্যে ৩৯ হাজার ২৬২ জন ভোটার ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। এর মধ্যে ১৮৩টি ভোট বাতিল হয়। সংরক্ষিত এই আসনে ৫১.১ মতাংশ বোট কাষ্ট হয়, এর মধ্যে শারমীন হাবিব বিন্নি পায় ২০ হজার ৪১২ ভোট, এবং তার বিপরীতে পপি রাণী সরকার পায় ১৮ হাজার ৮৫০ ভোট। এর মানে গাণিতিক হিসাবে পপি রাণী ১ হাজার ৫৬২ ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হয়। তবে এবার দ্বিতীয় বারের মত পরাজিত হয়ে তার প্রতিদ্ব›দ্বী প্রার্থীর বিরূদ্ধে নানা প্রপাগান্ডায় লিপ্ত হয়েছেন তিনি।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ