গ্রেফতারকৃত নেতাকর্মীদের

জামিনের জন্য হাইকোর্টে যাবেন তৈমূর

নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক আহ্বায়ক তৈমূর আলম খন্দকার বলেছেন, আগামীকাল আমি সভা ডেকেছি যারা নির্বাচনে অংশ নিয়েছে তাদের নিয়ে। আজকেই একটা সভা করার কথা ছিল। করিনি কারন যাদের গ্রেফতার করা হয়েছে আমার বাড়ির পার্সোনাল স্টাফ সহ আমার ড্রাইভার মাইক অপারেটার সহ। যাদের বন্দর সিদ্ধিরগঞ্জ বাড়ি তাদেরও এই শেরে বাংলা সড়ক থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এগুলো বলার পরেও কোথাও কোন বিচার পাইনি। পুলিশ সুপারের কাছে যখন অনুরোধ করেছিলাম তখন তিনি বলেছিলেন তাদের ছেড়ে দিব। কিন্তু কোন ব্যাবস্থা নেয়নি। চীফ জুডিশিয়াল ম্যাস্ট্রেটের কাছে গিয়েও আবেদন করেছিলাম। তারাও আশ্বাস দিয়েছিল। এখন আমরা উচ্চ আদালতে যাচ্ছি দেখি কী ফলাফল হয়। যদি তাদের জামিন দেয়া হয় তাহলে সকলকে নিয়ে আমরা বসব এবং মন খুলে আলোচনা করবো।

শুক্রবার (২১ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় মাসদাইরের মজলুম মিলনায়তনে এক মতবিনিময় সভায় একথা বলেন তিনি।

তৈমূর বলেন, আমি খেটে খাওয়া মানুষের ভোটটা আশা করি আমি বলেছিলাম তাদের গার্মেন্টসটা বন্ধ রাখার জন্য। কিন্তু তারা গার্মেন্টস বন্ধ রাখেনি। ইভিএমের মাধ্যমে তারা যে জালিয়াতি করেছে সেজন্য আমি দেশের রাজনৈতিক দলগুলোকে বলবো ভবিষ্যতে যেন ইভিএমের মাধ্যমে তারা ভোট না করে। ইভিএমে নির্বাচন করলেই জালিয়াতি হবে, এটা একটা জালিয়াতির বাক্স।

বদিউল আলম মজুমদার নিজেও বলেছিলেন ইভিএমের মাধ্যমে চুরি জালিয়াতি করা যায়। যখন আমি বিভিন্ন সেন্টারে ইভিএমে ত্রুটি দেখলাম তখন এ কথাগুলো বলেছি যে ইভিএম স্লো হয়ে যাচ্ছে, ওপেন হচ্ছে না। ইভিএম ভোট টানতে পারেনি। অনেক ভোটার স্লীপ নিয়ে দাড়িতে থেকে চলে গেছে। এমন অবস্থায় নির্বাচনটা করতে হয়েছে। নির্বাচন কমিশন একতরফা ভাবে কাজ করেছে। তারা মুখে মুখে সুন্দর কথা বললেও আমাদের একটা অভিযোগও আমলে নেয়নি। বরং যারা সরকারি দলের প্রার্থী তাদের সুযোগ সুবিধা দিয়েছে।

দল আমাকে বহিষ্কার করার পরেও যারা আমা পাশে আছেন তাদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই। বহিষ্কারের ব্যাপারে আমি কিছু বলব না। আপনারা যারা আমার সাথে আছেন এই মজলুম মিলনায়তনের দরজা আপনাদের জন্য সবসময় খোলা থাকবে। আমি আমার ক্ষুদ্র জ্ঞান ও শক্তি নিয়ে আপনাদের পাশে থাকব।

এখনও আমার ১৫-২০ জন লোক জেলখানায় আছে। তাহের সাহেব নামের একজন ভদ্রলোক আছে ৩ নং ওয়ার্ডের। তার বাসায় সভা ছিল। সেই সভাটার কারনে তাকে গ্রেফতার করা নিয়ে সারাদিন আটক রেখে নির্বাচন শেষ হওয়ার পর ছেড়ে দিয়েছে। এর অর্থ কী? নির্বাচন যেন তারা না করতে পারে। এভাবে পুলিশ নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করেছে। মুখে মুখে এসপি সাহেব খুবই মধুর কথা বলেছে। কিন্তু তিনি আমাদের ওপর অত্যান্ত জুলুম করেছেন। এটা তিনি প্রধানমন্ত্রীর প্রার্থীকে বিজয়ী করার জনয় করেছেন যেটা একজন সরকারি কর্মচারীর জন্য গুরুতর অপরাধ। কিন্তু আমাদের দেশে এ গুরুতর অপরাধটা হয়ে আসছে। ব্রিটিশ আমল থেকেই পুলিশ সাধারণ মানুষের ওপর নির্যাতন করে। সবসময় তারা সরকারের লাঠিয়াল বাহিনী হিসেবে কাজ করে।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ