‘তাঁদের কবর থেকে বটগাছ জন্ম নেয়’

একের পর এক কমিটি বিলুপ্ত হচ্ছে। অনুগামীরা বেশ অস্বস্তিতে। কিন্তু বেশীর ভাগ নেতাকর্মী অধৈর্য হয়নি। তাদের কেউ আপাতত বলয় পরিবর্তন করছেন না। এখনো আস্থা রাখতে চাচ্ছেন এমপি শামীম ওসমানের উপর। নেতাদের মতে, শামীম ওসমানদের এর আগেও অনেকবার কবর রচনার চেষ্টা হয়েছিল। কিন্তু তাঁদের কবর থেকে যেন বটগাছ জন্ম নেয়।’

ইতোমধ্যে এমপি শামীম ওসমানের নিয়ন্ত্রনে থাকা ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও শ্রমিক লীগের কমিটি বিলুপ্ত হয়েছে। একই পথে হাঁটছে জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের কমিটি। আগামীতে যেসব কমিটি হবে সেখানে শামীম ওসমানের সুপারিশ নাও রাখা হতে পারে।

এ ব্যাপারে মহানগর আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা জানান, শামীম ওসমান হয়তো আপাতত চাপে থাকবে কিন্তু এটা সাময়িক হতে পারে। কিছুদিনের মধ্যে আবার ঠিক হয়ে যাবে।

যুবলীগের একজন নেতা জানান, ২০১৪ সালে নাসিম ওসমানের মৃত্যুর আগে ত্বকী হত্যা নিয়ে বেশ চাপ ছিল। ওই সময়ে নাসিম ওসমানের ছেলে আজমেরী ওসমানের অফিসে র‌্যাবের অভিযানের ঘটনার পরে সাত খুন নিয়ে কিছুটা চাপে ছিলেন শামীম ওসমান। তখন নূর হোসেনের সঙ্গে শামীম ওসমানের অডিও ফাঁস হওয়ার পর রাজনীতিতে খাদের কিনারায় মনে করেছিলেন অনেকে। কিন্তু তারা আবারো ঘুরে দাঁড়িয়েছে। এবার হয়তো সব কমিটি নিজের অধীনে থাকবে না। তবে বিশাল কর্মী বাহিনী অন্তত শামীম ওসমানকে ছেড়ে যাবে না। ফলে রাজনৈতিকভাবে শামীম ওসমানের কর্তৃত্ব খর্ব হওয়ার কোন সুযোগ নাই।

তবে কেউ কেউ বলছেন, প্রধানমন্ত্রী এবার বেশ হার্ডলাইনে। দলের অনেককেই তিনি ছাড় দেননি। শামীম ওসমানকে তিনি ছাড় দিবেন না। কারণ শেখ হাসিনা নৌকা প্রতীক দেওয়ার পরেও শামীম ওসমানের লোকজন সেরকম ভাবে আইভীর পক্ষে নামেনি বলে মনে করছেন বেশীরভাগ কেন্দ্রীয় নেতা। আর সে কারণেই তারা শামীম ওসমানকে আকার ইঙ্গিত করে একাধিকবার বক্তব্য রেখেছেন। ফলে আপাতত শামীম ওসমান যে রাজনীতির ময়দানে স্থানীয়ভাবে পদচ্যুত হচ্ছেন তাতেও কোন অবকাশ নাই। কিন্তু এটা আসলে কতদিন থাকবে সেটাও ভাবার বিষয়। কারণ বিগত বিএনপির সময়ে শামীম ওসমান যখন দেশের বাইরে আর আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর কবরী এমপি থাকা সময়েও কর্তৃত্ব খর্ব ছিল। কিন্তু পরে আবার ঘুরে দাঁড়িয়েছে। এবার সেটাও দেখার বিষয়।

আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা জানান, গত এক দশকে নারায়ণগঞ্জে আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগি সংগঠনের সব কমিটিতেই শামীম ওসমানের প্রভাব ছিল। জেলা আওয়ামী লীগের সেক্রেটারী আবু হাসনাত শহিদ বাদল হলেন শামীম ওসমানের বন্ধু। একই অবস্থা মহানগর কমিটিতে। এর সেক্রেটারী খোকন সাহাও বন্ধু। তাছাড়া দুটি কমিটিতে শামীম ওসমানের লোকজনের প্রভাব বেশী। অচিরেই এ কমিটি ভেঙে দেওয়া হবে।

এছাড়া মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের পুরো কমিটি ছিল শামীম ওসমানের মুঠোবন্দী। একই পরিস্থিতি ছিল মহানগর ছাত্রলীগের।

সংগঠন ঢেলে সাজানোর এ উদ্যোগের ফলে কোণঠাসা হতে পারেন মেয়র সেলিনা হায়াত আইভীর বিরোধী নেতারা। এমনটা জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের একাধিক নেতা। তাঁরা জানান, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার পরই নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে দলের সিদ্ধান্ত অমান্যকারী ও ব্যক্তিবিশেষের প্রতি অনুগত নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয় আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনগুলোর কেন্দ্রীয় কমিটি।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ