বেধম মারধর : আহত ৬

কুতুবপুরে সমাজ উন্নয়ন কাজে ইউপি মেম্বারের বাধা

সদর উপজেলার ফতুল্লার কুতুবপুরে পঞ্চায়েত কমিটির সমাজ উন্নয়ন কাজে নবনির্বাচিত ইউপি মেম্বারের বাধা প্রদানকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের মারামারিতে আহত ৬ জন। শুক্রবার রাতে পাগলা এনায়েত নগর, মুসলিম পাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

সরজমিনে গিয়ে জানাযায়, কুতুবপুর ইউনিয়ন পরিষদ ৫ নং ওয়ার্ডের নবনির্বাচিত মেম্বার বাবুলের ছোট ভাই আবুল কালাম দীর্ঘদিন যাবত মাদক বিক্রি ও সেবন করে আসছিল। বেশ কিছুদিন আগে মেম্বারের ভাইয়ের এমন অপরাধমূলক কর্মকান্ডে বিরুদ্ধে এনায়েতনগর মুসলিম পাড়া পঞ্চায়েত কমিটি ও কুতুবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মনিরুল আলম সেন্টু, আবুল কালামকে মাদক বিক্রি ও সেবন করা থেকে বিরত থাকতে প্রাথমিকভাবে শাসিয়ে ছিলেন।

এর পর থেকেই সমাজ উন্নয়ন সকল কাজে মেম্বার বাবুল ও তার ভাই পঞ্চায়েত কমিটির বিরুদ্ধে কথা বলে। এমতাবস্থায় অত্র এলাকার বাসাবাড়ির পয়নিষ্কাশনের একমাত্র ড্রেন ময়লায় তলিয়ে যায়। সারা বছরের নিয়ম অনুযায়ী বাসাবাড়ি থেকে খরচ বাবদ  চাঁদা আদায় করে সমাজ উন্নয়ন পঞ্চায়েত কমিটি উদ্যোগে প্রতিনিয়ত ড্রেন পরিষ্কার করে থাকে। এরই ধারাবাহিকতায় পঞ্চায়েত কমিটি এবারও ড্রেন পরিষ্কারের উদ্যোগ নিলে সরাসরি বাবুল মেম্বার পঞ্চায়েত কমিটিকে ড্রেন পরিষ্কার করতে বাধা প্রদান করে। একপর্যায়ে পঞ্চায়েত কমিটির নেতাকর্মী ও মেম্বার  বাবুলের মধ্যে কথা কাটাকাটি শুরু হয়। এই নিয়ে মেম্বার বাবুলের ছোট ভাই আবুল কালাম পঞ্চায়েত কমিটি সিনিয়র সহসভাপতি আবুল বাশারকে মারধর করে। এ সময় পঞ্চায়েত কমিটি ও মেম্বার বাবুলের ভাইসহ ৬ জন রক্তাক্ত জখম হয়।

এ বিষয়ে ফতুল্লা মডেল থানায় পৃথক দুটি লিখিত অভিযোগ দায়ের হয়েছে। এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, নবনির্বাচিত ইউপি মেম্বার বাবুল মিয়া বিএনপির সক্রিয় সদস্য। সে কারণেই নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমানের নির্দেশে অপরাধ নির্মূলের লক্ষ্যে পঞ্চায়েত কমিটি গঠিত হয়েছিল। আর সেই পঞ্চায়েত কমিটিকে বিতর্কিত করতে এবং নিজের মনগড়া কমিটি গঠন করতে তিনি সমাজ উন্নয়ন কাজে বাধা প্রদান করে আসছে।

এ বিষয়ে কুতুবপুর ইউনিয়ন ৫ নং ওয়ার্ডের মেম্বার বাবুল মিয়া জানান, পঞ্চায়েত কমিটির লোকজন প্রতি বাড়ী থেকে চাঁদা আদায় করে ড্রেন পরিষ্কার করার কথা বললে আমি তাদের বাধা দেই। তারা আমার উপর উত্তেজিত হয়ে আমাকে গালিগালাজ ও হুমকি প্রদান করে।  এ বিষয়ে থানায় জিডি করে আসার পথিমধ্যে আমার ভাই কালামকে মারধর এবং রক্তাক্ত জখম করে। আমি একজন মেম্বার হিসেবে তাদেরকে ড্রেনের কাজ করতে নিষেধ করতেই পারি। এই বলে কি আমার ভাইকে মারধর করবে।

এ বিষয়ে ফতুল্লা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি রাকিবুজ্জামান জানান, অভিযোগ দায়ের হয়েছে, এর সঠিক তদন্ত করে অপরাধীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ