৩৩ দিন অতিবাহিত হলেও

কার্তিক জুয়েলার্সে চুরির মামলায় নেই অগ্রগতি


নগরীর আমলাপাড়ার স্বর্ণপট্টি এলাকায় গত বছরের ২৯ ডিসেম্বর বুধবার সঙ্গবদ্ধ চুরির ঘটনায় অজ্ঞাত ৬ চোরের বিরুদ্ধে পরের দিন ৩০ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার মামলা দায়ের করা হয়। তবে মামলার ৩৩ দিন গত হলেও অজ্ঞাত আসামীদের গ্রেফতার ও চুরিতে খোয়া যাওয়া মালামাল উদ্ধারে কোন অগ্রগতি নেই। এমনকি অজ্ঞাত চোরচত্রকে শনাক্ত করা যায়নি। শহরের প্রাণকেন্দ্রে এমন দুধর্ষ চুরির ঘটনায় আতঙ্কিত স্থানীয় জুয়েলার্স ব্যাবসায়ীরা। এদিকে ঘটনার এক মাস পরিয়ে যাওয়ার পরেও মামলার কোন অগ্রগতি না থাকায় হতাশ ক্ষতিগ্রস্ত ব্যাবসায়ী প্রতিষ্ঠান কার্তিক জুয়েলার্সের কর্ণধার টিটন চন্দ্র বর্মণ। এদিকে নিারপত্তা জোরদারের দাবি জানিয়েছে মালিক সমিতি।

সিসি টিভির ফুটেজ পর্যালোচনা ও অনুসন্ধানে জানা যায়, ডিসেম্বরের ২৮ তারিখ মঙ্গলবার সারাদিনের বেচা-কেনা শেষে রাত ১০টার দিকে রোজকার মত বাড়ি ফিরেন টিটন ও তার দোকানের অন্নান্য কর্মচারীরা। যেহেতু স্বর্ণের দোকান তাই নিরাপত্তার প্রশ্নে প্রতিরাতে দোকানের নিরাপত্তা নিশ্চিত করেই বাড়ি ফিরতে ভুল করেননা টিটন। তবে পরদিন সকালে দোকানে এসে দেখতে পান, তার দোকানের ৯টি তালাই কাটা রয়েছে। তখন আর তার বুঝতে বাকি থাকেনি যে তার দোকানে চুরি হয়েছে।সিসিটিভির ফুটেজ পর্যালোচনায় দেখাযায় একটি সঙ্গবদ্ধ চোরচক্রের ৬ সদস্যরা ২জন করে ৩টি গ্রুপে বিভক্ত হয়ে পুরো চুরি কার্যক্রম সম্পন্ন করে। এসময় একটি দল পাহারায় থাকে আসপাশের চলাচলকারী লোকজনের নজরদারি ও সঙ্গীদের সতর্ক করার কাজে, অপর দল লোকজনের আভাস পেলে চাদর টেনে ধরতে ও অন্য দল কাটার যন্ত্র দিয়ে দোকানের তালা কাটতে শুরু করে। একে একে সব তালা কেটে দোকানে প্রবেশ করে কাধ বেগে স্বর্ণলঙ্কার লুট করতে দেখাযায়। টানা ১০ মিনিট ধরে দোকানের সকল স্বর্ণালঙ্কার লুট শেষে কেটে পরেন সঙ্গবদ্ধ চোরচক্র।
শহরের এমন ব্যাস্ততম জায়গায় এমন দুধর্ষ চরির ঘটনায় আতঙ্কিত হয়ে পরেছে এখানকার স্বর্ণশিল্পের সাথে সম্পৃক্ত কমপক্ষে আরও ১শত ব্যাবসায়ী প্রতিষ্ঠান। উল্লেখ্য যে স্বর্ণপট্টির বিশেষ নিরাপত্তা বিবেচনায় এনে এখানে সার্বক্ষণিক পুলিশের সদস্য মোতায়েন করেছে জেলা পুলিশ প্রশাসন। তবে সবকিছুর পরেও হত বছর শহরের স্বর্ণপট্টি এলাকায় ভিন্ন তিনটি প্রতিষ্ঠানে ৩বার এমন চুরির ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে সর্বশেষ কার্তিক জুয়েলার্সের চুরির ঘটনায় প্রতিষ্ঠানটি ৫০ লাখেরও কিছু বেশি টাকার ক্ষতির সম্মুক্ষিণ হয়। নগরীর কারিরবাজারের এসিধর রোডে পৃথক তিনটি চুরিতে যে পরিমাণ ক্ষতি সাধিত হয়েছে তা তৎকালীন বাজার দর অনুযায়ী টাকার অঙ্কে প্রায় ৫ কোটি টাকারও কিছু বেশি।
চুরির ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত কার্তিক জুয়েলার্সের প্রোপাইটর টিটন চন্দ্র বর্মণ বলেন, বাংলাদেশে স্বর্ণের দোকানে চুরিও লুটপাটের একাধিক ঘটনা ঘটেছে। তবে প্রসাশনের তৎপরতায় তাদের আটক ও চুরিতে খোয়া যাওয়া মালামাল উদ্ধার করতে সক্ষমও হয়েছে। কিন্তু আমার দোকানে চুরির মাসখানেকেরও কিছু বেশি সময় পার হলেও অজ্ঞাত চোরদের সনাক্ত বা মালামল উদ্ধারে কোন অগ্রগতি দেখতে পেলাম না। এই চুরির ঘটনায় আমি একেবারে নিস্ব হয়ে গেছি। আমি প্রসাশনের প্রতি অনুরোধ রেখে বলতে চাই, এই সঙ্গবদ্ধ চোরদের আটক ও খোয়া যাওয়া মালামাল উদ্ধারে বিশেষ গুরুত্ব দেন।
স্বর্ণশিল্প ব্যবসায়ী মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক কৃষ্ণ কমল দেব (৪৯) বিস্ময় প্রকাশ করে বলেন, শহরের প্রাণ কেন্দ্রে এমন দূধর্ষ চুরির ঘটনায় আমরা স্বর্ণ ব্যবসায়ীরা চরম ভাবে ঝুঁকির মধ্যে রয়েছি। সকালে ৭টার সময় এধরনের ঘটনা ঘটে যায়, এইটা আসলে অস্বাভাবিক বিষয়। আমার কল্পনাও করতে পারি না যে এই সময় চুরি হবে। সাধারণত আমাদের এখানে সিকিউরিটি গার্ড ও ২৪ ঘন্টা সিসি ক্যামেরা সচল থাকে। প্রতিদিন রাত ৯টা থেকে ৬ট পর্যন্ত আমাদের দারোয়ান থাকে। কিন্ত যে সময়টারত চুরি হয়েছে, সে সময় দারোয়ান থাকেনা। ঠিক এই সময় পুলিশের সিফট চেঞ্জ হয়। মানুষজন হাটতে বের হয়। এই সময় চুরি হয়েছে। যারা এই চুরি সংগঠিত করেছে তারা দুর্ধন্ত সাহস ও প্রস্তুতি নিয়েই এই চুরি করেছে। আমরা এ ব্যাপারে গোয়েন্দা শাখার জাভেদ পারভেজ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বরাবর সাংগঠনিকভাবে স্মারকলিপি প্রদান করেছি। চুরি যওয়া মালামাল ফেরত, অজ্ঞাত চোরদের উপযুক্ত সাজা ও নিরাপত্তা জোরদারের দাবি জানাই।

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ