উন্নয়নের স্বার্থে আপোষ নয় : সেলিম ওসমান

- Advertisement -

নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য ও ব্যবসায়ী নেতা সেলিম ওসমান বলেছেন, আমার দাদা ও বাবা এই এলাকায় কাজ করেছেন। আজকে ৩৫ বছর তিনি আমাদের ছেড়ে চলে গেছেন। আমার বড় ভাই, আমার মা তারাও চলে গেছেন। আমার বড় ভাই নিজের নতুন বউকে ঘরে রেখে বঙ্গবন্ধুর হত্যার প্রতিশোধ নিতে গিয়েছিলেন। আমি রাজনীতিতে ছিলাম না। আপার (শেখ হাসিনা) কথায় আমি নির্বাচন করেছি। দ্বিতীয়বার আমি নির্বাচন করতাম না, কিন্তু আপার কাছ থেকে নির্দেশনা আসলো- ‘আমাকে সত্যি আপা বলে থাকলে তোমাকে নির্বাচন করতেই হবে’। আমার মা বলেছিলেন- ‘তুমি এবার মানুষের জন্য কাজ করবে। তুমি নাসিমের শূন্যস্থানটা পূরণ করবে’। আমি কোনো মার্কা চাইনি। এই আসনটা লাঙ্গলের জন্য ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল তাই আমি সত্যিই কৃতজ্ঞ। এর পরে থাকব কিনা জানি না। তবে এই এলাকার (বন্দর) উন্নয়নে আমাদের মানুষ তৈরি করে দিয়ে যেতে হবে।

প্রয়াত ভাষা সৈনিক ও মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক একেএম সামসুজ্জোহা‘র ৩৫তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে শনিবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে সেলিম ওসমান উপরোক্ত কথা বলেন। বন্দরের মুছাপুর ইউনিয়নে সামসুজ্জোহা এমবি ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এ দিন এক দোয়া ও মিলাদ মাহফিল পূর্বে তিনি বক্তব্য রাখছিলেন। এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন মরহুম একেএম সামসুজ্জোহার ছোট ছেলে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান।

সেলিম ওসমান আরও বলেন, আমি শামীম ওসমানকে ধন্যবাদ জানাই। কাল রাতে তার শরীরের অবস্থা দেখে বলেছি- ‘তোমার শরীর ভাল না থাকলে যাওয়ার দরকার নেই’। ‘ও’ বলল না, আমি দোয়াতে অংশ শরিক হবো।

তিনি আরও বলেন, নাসিম ওসমান সৌভাগ্যবান। রমজানের শেষে তার মৃত্যুবার্ষিকী। আমরা তখন দেখব কী করা যায়। দোয়া করবেন আমাদের বাচ্চারা যেন আবারও লেখাপড়া করতে পারে। তারা যেন অটোপাশ করে বের না হয়। রাজনীতির জায়গায় রাজনীতি থাকুক। আসুন আমরা সবার জন্য ঐক্যবদ্ধভাবে যেন কাজ করতে পারি। আপনারা আমাদের সবার জন্য দোয়া করবেন।

সেলিম ওসমান বলেন, আল্লাহর রহমতে নাসিম ওসমান সেতুর কাজ ৯৫ ভাগ শেষ, এখন সড়কের কাজ বাকি। বন্দরে আমার ও বঙ্গবন্ধুর পরিবারের নামে স্কুল নির্মাণ করতে পেরেছি। আমরা দুটো স্কুল সরকারি করতে পেরেছি। আমার বাবার মৃত্যুবার্ষিকীতে আমরা আল্লাহর কাছে লাখো কোটি শুকরিয়া জানাচ্ছি। নির্বাচনের সময় কিছু ভুল বোঝাবুঝি হলেও আমরা এখন আবারও ঐক্যবদ্ধ। কলেজগুলো দুয়েক দিনের মধ্যে আবারও খুলে দেওয়া হচ্ছে, স্কুলও খুলে দেয়া হবে। তাই আমি স্কুলগুলো ঠিক করার চেষ্টা করছি। আমাদের দায়িত্ব ভবিষ্যত প্রজন্ম যেন বুক উচু করে দাঁড়াতে পারে।

এ সময় বন্দর উপজেলার চেয়ারম্যান ও বন্দর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এমএ রশিদ, নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি খালেদ হায়দার খান কাজল, বন্দর উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মুকুল, বন্দর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা কুদরত-এ- খোদ, বন্দর উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান সানা উল্লাহ সানু, বন্দর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) দীপক চন্দ্র সাহা, বন্দর উপজেলার নারী ভাইস চেয়ারম্যান ছালিমা ইসলাম শান্তা, বন্দর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজিমউদ্দিন প্রধান, ২৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আফজাল হোসেন, ২৩ নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর দুলাল প্রধান, বন্দর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এহসান উদ্দিন, মুছাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাকসুদ হোসেন, মদনপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এম এ গাজী সালাম ও মহানগর ছাত্রলীগ নেতা আরাফাত কবির ফাহিমসহ বন্দর উপজেলার আরও অনেক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page