বক্তব্যের অপপ্রচার চালানো হচ্ছে

অবশেষে মুখ খুললেন জাকির চেয়ারম্যান

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার আলীরটেক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব জাকির হোসেন বলেছেন, ‘বক্তব্যের ভুলব্যাখ্যা দিয়ে আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে। অপরদিকে আত্মপক্ষ সমর্থণের সুযোগ না দিয়ে আমার বিরুদ্ধে ঢালাওভাবে বলে যাচ্ছেন আমারই দলের কতিপয় নেতারা। আমি যেহেতু নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করে বিপুল ভোটের ব্যাবধানে জয়ী হয়েছি। আর তারা যেহেতু আমাদের-ই দলের নেতা, আমার সাথে কথা না বলে বা আমার কাছে প্রকৃত ঘটনা জানতে না চেয়ে, আমাকে নিয়ে বিভিন্ন ধরণের কথা বলা অবান্তর ও দুঃখজনক। অন্তত দলীয় চেয়ারম্যান হিসেবে আমাকে জিজ্ঞেস করতে পারতো’।

সম্প্রতি নিজের দেয়া এক বক্তব্য নিয়ে আলোচনা-সমালোচনার প্রেক্ষাপটে বুধবার (২৩ ফেব্রুয়ারী) গণমাধ্যমে দেয়া এক বিবৃতিতে আলহাজ্ব জাকির হোসেন চেয়ারম্যান আরও বলেন, ‘এই দেশ অনেক ষড়যন্ত্রের মধ্যে লড়াই-সংগ্রাম কওে রক্তের বিনিময়ে সৃষ্টি হয়েছে। শুরু থেকে বর্তমান পর্যন্ত যারা স্বাধীনতা চায় নাই, যারা স্বাধীনতার মূল্যবোধকে অপমান করে, যারা স্বাধীনতার পবিত্রতা নষ্ট করে, তারা এখন পর্যন্ত ষড়যন্ত্র করছে স্বাধীনতার পক্ষের শক্তির বিরুদ্ধে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছেন, বিশ্বের মানচিত্রে বাংলাদেশকে উচ্চ স্থানে দাঁড় করিয়েছেন। অর্থনৈতিক মুক্তির জায়গা সৃষ্টি করেছেন, দারিদ্র্য সীমা কমিয়ে এনেছেন, উন্নত দেশ হিসেবে বিশ্বের মানচিত্রে আজ আমাদের বাংলাদেশ। অবকাঠামোর দিক থেকে আজ পদ্মা সেতু, মেট্রোরেল, বঙ্গবন্ধু টার্নেল, বঙ্গবন্ধু সেটেলাইটসহ ব্যাপক উন্নয়ণ করার পরও এতো উন্নয়ণ দেখে ইর্ষান্বিত হয়ে স্বাধীনতা বিরোধী শক্তিরা এর সাথে কিছু স্বার্থান্বেষী মহল সর্ব জায়গায় আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়। যার ফলে বিগত নির্বাচনের চেয়ে বর্তমান নির্বাচন একটু কঠিন, নৌকার বিপক্ষে ওই সমস্ত শক্তি কাজ করে। এ কারনে নৌকার ভোটের সংখ্যা কমছে। তার পরও বাংলার মানুষ নৌকাকে বিজয়ী করাচ্ছে। মানুষ নৌকাকে ভোট দেয় বলেই নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলায় ৭টার মধ্যে ৬টায় আমরা বিজয় হয়েছি। এটাই প্রমাণ করে নৌকার পক্ষে সমর্থন বেশী, যারা স্বাধীনতার পক্ষের লোক তারা সবাই নৌকা মার্কায় ভোট দেয় বলেই আমরা নৌকা প্রতিক নিয়ে বিজয়ী হয়েছি। আর নৌকার বিরুদ্ধে বিরোধী সব শক্তি একাট্রা হয়ে যায় বলে, নৌকা তার প্রাপ্য ভোট পায় না।

তিনি আরও বলেন, আপনার নারায়ণগঞ্জের নির্বাচনের চিত্রটা দেখেন- কাশিপুর ইউনিয়নে চরমোনাইয়ের প্রার্থী সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে বসে গেছে। এনায়েত নগরেও বসে গেছে, বসে যাওয়ার পরেও সেখানে কত ভোট পেয়েছে? ওগুলো কাদের ভোট? যারা মানুষের কাছে ভোট চায়নি, কোন নির্বাচনি ক্যাম্প রাখেনি, পোলিং এজেন্ট দিলো না, তারা কোথা থেকে ভোট পেলো? আসলে ওই ভোটটা হলো সেই সমস্ত লোকের, যারা আওয়ামী লীগের বিপক্ষে, যারা স্বাধীনতার বিপক্ষে, যারা জয় বাংলার বিরুদ্ধে। আর আমি, আমার সেই দিনের বক্তব্যে সেটাই প্রতিয়মানের চেষ্টা করেছি। সেই বক্তব্যকে ভুলব্যাখ্যা দিয়ে আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালানো দুঃখজনক।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ