সাংগঠনিক নিয়ম নামেনে তিন চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে স্মারকলিপি

বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে বেফাঁস বক্তব্য দেয়ার অভিযোগ এনে তিন ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছে নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের একাংশ। তাদের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করার জন্যও ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন অভিযোগকারী নেতারা।

তবে এ বিষয়ে কিছুই জানেন না বলে জানিয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এড. আবু হাসনাত মো. শহীদ বাদল (ভিপি বাদল)। তিনি বলেন, আমি এ বিষয়ে কিছুই জানি না। এমনকি এ বিষয় নিয়ে কোন সাংগঠনিক আলোচনাও করা হয়নি।

জানা গেছে, বুধবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের কাছে স্মরকলিপি দিয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের একাংশ। এসময় উপস্থিত ছিলেন সভাপতি আব্দুল হাই, আওয়ামী লীগের জাতীয় কমিটির সদস্য এড. আনিসুর রহমান দিপু, সহ-সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মিজানুর রহমান বাচ্চু, মুক্তিযোদ্ধা খবির উদ্দিন, আব্দুল কাদির, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, সদস্য মোহাম্মদ শহিদুল্লাহ।

স্মারকলিপি প্রদানের পর গনমাধ্যমের কাছে মামলার বিষয়টি জানায় তারা। তবে পরে এ বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাইয়ের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, মামলা করা হয়নি, আমরা চিন্তা ভাবনা করছি।

এ বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘মামলার বিষয়টা বলছেন আমাদের সভাপতি, আপনি ওনার কাছে জিজ্ঞেস করেন’।

এদিকে এ বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ভিপি বাদল বলেন, কেউ আমাদের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে বেফাঁস মন্তব্য করবে, আমাদের মাতৃতুল্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশ রত্ন শেখ হাসিনাকে নিয়ে বেফাঁস মন্তব্য করবে আমরা তো চুপ করে থাকবো না। তবে আমাদের দল কি এতই দুর্বল যে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আমাদের আইনের সাহায্য নিতে হবে। আমি স্মারকলিপির বিষয়টা মাত্র জানতে পারলাম। এ বিষয়ে আমাকে জানানোও হয়নি বা এ নিয়ে জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দদের কোন আলোচনাও হয়নি।

ভিপি বাদল আরও বলেন, আমাদের দলীয় চেয়ারম্যানরা ভুল করেছে, আমরা আমাদের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দদের জানিয়েছি এবং মির্জা আজম সাহেবের অনুমতি নিয়েই বারদী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান লায়ন বাবুলকে অব্যহতি দেয়া হয়েছে। তারা যে এই স্মারকলিপিটা দিলো এজন্য তো তারা কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দদের পর্যন্ত জানায়নি। তাদের অনুমতি ছাড়া এ কাজ কিভাবে করে, তাদের এই কাজের জন্য জবাবদিহি করতে হবে। এটি সম্পুর্ন সাংগঠনিক নিয়মের বাইরে। তারা পারতো প্রথমে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দদের এ বিষয়ে জানাতে তারপরে যদি তারা আইনি ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দিতো তার পরে এই স্মারকলিপিটা দিতো। তারা তো এমন কিছু করেনি। জবাবদিহি তো তাদের করতেই হবে।

এদিকে জেলা আওয়ামী লীগের প্যাডে সভাপতি আবদুল হাই স্বাক্ষরিত স্মারকলিপির প্রারম্ভেই বাংলাদেশ ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর নাম ভুল (বিকৃত) করা হয়েছে। স্মরকলিপির প্রারম্ভে বঙ্গবন্ধুর নাম ও বাংলাদেশ এর নামসহ বেশ কয়েকটি ভুলপরিলক্ষিত হয়েছে। এনিয়ে ব্যাপক সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ