১০মাসে ২০সেট, ২৫সিম কার্ড

প্রেমিকার লাস ১০ টুকরো করে ফ্রিজে সংরক্ষন

- Advertisement -

কথিত স্ত্রীকে হত্যাকারী সেই নরঘাতক স্বামী গ্রেফতার। #বিচ্ছিন্ন মাথাটি ছিল তানজিলার

মেধাবী হলেও দরিদ্রতা আর জীবিকার টানা পোড়নে পড়ালেখা বেশী দূর এগুতে পারেনি। তবে প্রেম তাদের এগিয়ে নিয়েছিল বহুদূর। তবে সেই প্রেমই শেষ পর্যন্ত কাল হয়ে দাঁড়ালো দুজনের ভাগ্যেই। প্রেমিকের হাতে টুকরো টুকরো হয়ে নৃশংসভাবে জীবনাবসান হয় কথিত স্ত্রী বা প্রেমিকা তানজিনার। আর হত্যাকান্ডের পর ১০মাসে ২০টি মোবাইল সেট ও ২৫টি সিম ব্যবহার করেও ধরা পরেছেন প্রেমিক রাসেল মিয়া। পুলিশের জালে গ্রেফতাপরের পর আদালতে দেয়া ১৬৪ধারার স্বিকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে রাসেল হত্যাকান্ডের কারণ আর যে নৃশংস বর্ণনা দিয়েছে তা শুনে হতভম্ব হয়েছেন আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কর্তা থেকে শুরু করে আদালত সংশ্লিষ্টরাও। ২০২১ সালের ৫ এপ্রিল ফতুল্লার মাসদাইর বাড়ৈভোগ এলাকার একটি ডোবা থেকে অজ্ঞাত পরিচয়ে দেহবিহীন মাথা উদ্ধার করেছিল পুলিশ। এ ঘটনার প্রায় ১০মাস পর পুরো হত্যাকান্ডের রহস্য উন্মোচন করলো পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন(পিবিআই) নারায়ণগঞ্জ।

প্রেমিকার লাস ১০ টুকরো করে ফ্রিজে সংরক্ষন
মেধাবী হলেও দরিদ্রতা আর জীবিকার টানা পোড়নে পড়ালেখা বেশী দূর এগুতে পারেনি। তবে প্রেম তাদের এগিয়ে নিয়েছিল বহুদূর। তবে সেই প্রেমই শেষ পর্যন্ত কাল হয়ে দাঁড়ালো দুজনের ভাগ্যেই। প্রেমিকের হাতে টুকরো টুকরো হয়ে নৃশংসভাবে জীবনাবসান হয় কথিত স্ত্রী বা প্রেমিকা তানজিনার। আর হত্যাকান্ডের পর ১০মাসে ২০টি মোবাইল সেট ও ২৫টি সিম ব্যবহার করেও ধরা পরেছেন প্রেমিক রাসেল মিয়া। পুলিশের জালে গ্রেফতাপরের পর আদালতে দেয়া ১৬৪ধারার স্বিকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে রাসেল হত্যাকান্ডের কারণ আর যে নৃশংস বর্ণনা দিয়েছে তা শুনে হতভম্ব হয়েছেন আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কর্তা থেকে শুরু করে আদালত সংশ্লিষ্টরাও। ২০২১ সালের ৫ এপ্রিল ফতুল্লার মাসদাইর বাড়ৈভোগ এলাকার একটি ডোবা থেকে অজ্ঞাত পরিচয়ে দেহবিহীন মাথা উদ্ধার করেছিল পুলিশ। এ ঘটনার প্রায় ১০মাস পর পুরো হত্যাকান্ডের রহস্য উন্মোচন করলো পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন(পিবিআই) নারায়ণগঞ্জ।

তথ্যানুসন্ধানে ও পিবিআই সূত্রে জানা গেছে, ২০০৮ সালে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে জিপিএ ৫ পেয়ে এসএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছিলেন রংপুরের মিঠাপুকুর থানার এনায়েতপুর গ্রামের হাবিবুর রহমানের ছেলে রাসেল মিয়া। ২০১০ সালে এইচএসসি পরীক্ষায় একই বিভাগ থেকে ৩.৭০ পেয়ে উত্তীর্ণ হন ঐ এলাকারই আব্দুল জলিলের মেয়ে তানজিনা আক্তার। একই এলাকার হওয়ায় তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল। কিন্তু জীবিকার তাগিদে পরবর্তীতে ঢাকার সাভারে চলে আসে তানজীলা আর নারায়ণগঞ্জে চলে আসে রাসেল মিয়া। তানজীলার পরিবার তাদের এই প্রেমের সম্পর্ক জানতে পারলেও মেনে নেয়নি। কারণ রাসেল ছিল  খর্বাকৃতির ও কালো বর্ণের। পরিবার না মানলেও রাসেল ও তানজীলার যোগাযোগ ছিল । কিন্তু ২০১৯ সালে মোনালিসা নামের একটি মেয়ের সাথে পারিবারিকভাবে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয় (আসামী) রাসেল। বিবাহের সংবাদ শুনে তানজিনা বাড়ি থেকে বের হয়ে নারায়ণগঞ্জে চলে আসে এবং গার্মেন্টেস এ চাকুরী নেয়। এসময় আসামী রাসেলে সাথে নিহত তানজিনার পূনরায় প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে এবং তারা স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার পশ্চিম দেওভোগ আদর্শ নগরে একটি ভবনের তৃতীয় তলার ফ্ল্যাট বাসায় বসবাস করা শুরু করেন। কিন্তু এক পর্যায়ে তানজীনার প্রতি সন্দেহ শুরু করে প্রেমিক রাসেল। এনিয়ে তাদের মধ্যে শুরু হয় কলোহ যা হাতাহাতিতে রুপ নেয়াটা ছিল নিত্য দিনের ঘটনা।

এদিকে আদালত সূত্র জানিয়েছে, পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদ ও নিজের দেয়া ১৬৪ধারার জবানবন্দিতে আসামী রাসেল জানিয়েছেন,  রাসেলের সাথে বসবাস করলেও নিহত তানজিনা তার মৃত বোনের স্বামী মোস্তফাসহ বিভিন্ন ছেলের সাথে ফোনে কথা বলতেন। এনিয়ে রাসেলের সাথে তার মূল বিরোধ বাঁেধ। ঘটনার দিন তথা ২০২১ সালের ২৯ মার্চ শবে বরাতের রাত ৩টায় কলহের জের ধরে রাসেল ক্ষিপ্ত হয়ে তাদের ঘরে থাকা বটি দিয়ে তানজিনাকে হত্যা করে। পরে হাত পা সহ শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ প্রতঙ্গ টুকরো টুকরো করে ফ্রিজে রেখে দেয়। আসামী পরে বিভিন্ন সময়ে খন্ডিত দেহের বিভিন্ন অঙ্গ তার বাসার ছাদ থেকে পার্শ্ববর্তী ময়লার স্তপের মধ্যে ফেলে দেয়। তখন রাসেল তার বাড়িওয়ালা সিরাজ খানকে জানান তার স্ত্রী তানজিনা করোনায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে মারা গেছে।

প্রেমিকার লাস ১০ টুকরো করে ফ্রিজে সংরক্ষন

এই ঘটনার পরে আসামি তার ভাড়া বাসা ছেড়ে হাড়ি পাতিল ও হত্যার কাজে ব্যবহৃত বটি নিয়ে গোপনে পালিয়ে যায়। পিবিআই পুলিশ সুপার মনিরুল ইসলাম জানান, রাসেল গ্রেফতারের পর নিহত তানজীনাকে স্ত্রী হিসেবে দাবী করলেও সে কোন কাবিননামা বা দলিলাদি দেখাতে পারেনি। আসামী রাসেল এই ১০মাসে বিভিন্ন সময়ে নামে বেনামে ২০টি মোবাইল এবং ২৫টি সিম ব্যবহার করে এবং তার অবস্থান পরিবর্তন করতে থাকে। তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় চলতি বছরের ২২ ফেব্রুয়ারি রংপুর জেলার মিঠাপুকুর থানার এনায়েতপুর থেকে রাসেলকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয় পিবিআই।

মামলাটির তদন্তকারী কর্মকর্তা ও নারায়ণগঞ্জ পিবিআইয়ের উপ-পরিদর্শক (এসআই) শাকিল হোসেন বলেন, আসামী রাসেলের দেয়া তথ্য মতে আমরা ফতুল্লার আদর্শনগর এলাকা থেকে বৃহস্পতিবার ডোবা থেকে নারীর হাঁড়গোড়ের ১৯টি অংশবিশেষ উদ্ধার করেছি। একই সাথে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত বটি ও লাশের টুকরো রাখা সেই ফ্রিজ জব্দ করেছি। এসআই শাকিল  জানান, আসামী রাসেল বৃহস্পতিবার বিকালেই নারায়ণগঞ্জ আদালতের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ নূর মহসিনের আদালতে ১৬৪ধারায় স্বিকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেছে। আদালত আসামীকে এরপর জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দিয়েছেন।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page