কমিটি পেতে লবিংয়ে ব্যস্ত বিএনপির বিতর্কীত নেতারা

- Advertisement -

নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের ৪ শতাধিক নেতাকর্মীদের নিয়ে বিশাল পূর্ণাঙ্গ কমিটি আসছে, এমন তথ্য নিশ্চিত করেছিলেন দলটির শীর্ষ পর্যায়ের নেতারা। ছাত্রদলের বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীরাও বেশ ভালোভাবেই জেলার পূর্নাঙ্গ কমিটির জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন, যা বর্তমানে থমকে আছে। জেলা ছাত্রদলের শীর্ষ দুই নেতাই এখন যুবদলের কমিটির লবিং নিয়ে ব্যাস্ত আছেন।

এর আগে জেলা ছাত্রদলের বর্তমান সভাপতি মশিউর রহমান রনি ও সাধারণ সম্পাদক খাইরুল ইসলাম সজীবের উপর আস্থা রেখেছিলেন সংগঠনটির নেতাকর্মীরা। যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দলসহ বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনে যাবার সুযোগ থাকলেও দীর্ঘদিন ছাত্রদলের রাজনীতি করে অবশেষে এ সংগঠনের একটি পরিচয়ের আশায় আর অন্য কোথাও যাননি এসব নেতারা। তবে তাদের সে আশা এখন ফিকে হতে চলেছে।

এর আগে নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের চারশ সদস্য বিশিষ্ট পূর্নাঙ্গ কমিটি ঘোষণার কথা বলেছিলেন দলটির একাধিক নেতা। দলীয় সূত্র জানায় দীর্ঘদিন যাবৎ কমিটি না থাকাতে অনেকেই দলীয় পরিচয় পাননি। এ কমিটিকে ঘিরে অন্তত সেই আক্ষেপ ঘুচবে, পরিচয় পাবেন এসকল নেতাকর্মীরা।এদিকে দলের শীর্ষ পর্যায়ের এমন ঘোষণার পরেই সক্রিয় ভাবে পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে জায়গা করে নিতে কাজ করতে শুরু করেন দলটির তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীরা।

জানা গেছে, পূর্ণাঙ্গ কমিটির আশায় দলটির অনেক নেতাই দলের অন্য অঙ্গ অন্য সংগঠনে যাচ্ছেন না। তবে তাদের সেই আশায় যেন গুড়েবালি। নারায়ণগঞ্জ যুবদলের আসন্ন কমিটিতে জায়গা করে নিতেই বর্তমানে দৌড়ঝাঁপ করছেন জেলা ছাত্রদলের সভাপতি মশিউর রহমান রনি ও সাধারণ সম্পাদক খায়রুল ইসলাম সজীব। বিএনপির স্থানীয় প্রভাবশালী নেতাদের থেকে শুরু করে যুবদলের কেন্দ্রীয় পর্যায়ের নেতাদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রেখে চলেছেন রনি সজীব। বর্তমানে জেলার পূর্নাঙ্গ কমিটি নয়, বরং যুবদলের শীর্ষ নেতৃত্বে আসতেই মরিয়া জেলা ছাত্রদলের বর্তমান সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক। এ জন্য বর্তমান ছাত্রদলের কমিটির দিকে তাদের তেমন কোন নজর নেই। তবে এ পূর্ণাঙ্গ কমিটি করতে পারলে জেলা ছাত্রদল যেকোন সময়ের চাইতে অধীক শক্তিশালী হতো বলে মনে করছেন সকলেই।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page