নাসিক ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর

রুহুলের বিরুদ্ধে ব্যবসায়ীকে হুমকির অভিযোগ

- Advertisement -

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের (নাসিক) সিদ্ধিরগঞ্জের ৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রুহুল আমিন মোল্লার বিরুদ্ধে বাপ্পী নামে এক ব্যবসায়ীকে মেরে ৬ মাসের জন্য হাসপাতালে ভর্তি করার হুমকির অভিযোগ উঠেছে। সম্প্রতি কাউন্সিলর রুহুল আমিন মোল্লার নেতৃত্বে দলবল নিয়ে ওই ব্যবসায়ীর অটো গ্যারেজে একাধিকবার মহড়া দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। যা ওই প্রতিষ্ঠানের সিসি ক্যামেরার ফুটেজে সত্যতা মিলেছে। বর্তমানে কাউন্সিলর রুহুল আমিন মোল্লা ও তার অনুগত লোকজনের অব্যাহত হুমকিতে চরম আতংকে দিন যাপন করছে ওই ব্যবসায়ীর পরিবারটি। রুহুল আমিন মোল্লার কবল থেকে জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমানের হস্তক্ষেপ কামনা করছে ভুক্তভোগী পরিবারটি। ভুক্তভোগী বাপ্পী নাসিক ৮নং ওয়ার্ডের গোদনাইল চৌধুরীবাড়ী বৌ বাজার এলাকার শাহজাহান মাদবরের ছেলে।

ভুক্তভোগী ব্যবসায়ী বাপ্পী জানায়, আমি নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ৮নং ওয়ার্ডের গোদনাইল চৌধুরীবাড়ী বৌবাজার এলাকায় থাকি। আমার দু’টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। একটি হচ্ছে ইটা, বালু, সিমেন্টের দোকান, আরেকটি অটো গ্যারেজ। বিগত অনেক দিন যাবৎ আমি এখানে ব্যবসা করছি। এই ব্যবসার মাঝে আমাদের কাউন্সিলর রুহুল আমিন মোল্লা তার লোকজন নিয়ে আইসা আমাকে অনেক হস্তক্ষেপ করতাছে, আমাকে অনেক জুলুম-অত্যাচার করতাছে। তার অত্যাচারে আমি অতিষ্ঠ। আমি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে আমার জীবনের নিরাপত্তা চাই, আমি একেএম শামীম ওসমান মহোদয়ের কাছে আমার জীবনের নিরাপত্তা চাই।

বাপ্পী আরো জানায়, তিনি একের পর এক আইসা আমাকে হুমকি দিতাছে। নির্বাচনের পর অলরেডি আমার একটা ব্যবসা বন্ধ করে ফালাইছে রুহুল আমিন মোল্লা। আমি কখনো তার সাথে খারাপ বিহেব বলি নাই, খারাপ বিহেব করি নাই। আমি দীর্ঘদিন ধরে মহসিন ভুঁইয়ার সাথে শামীম ভাইয়ের রাজনীতি করি। এটাই কি আমার সবচেয়ে বড় অপরাধ ছিল? আর দ্বিতীয়তো, আমি তার নির্বাচন করি নাই, আমি মহসিন ভুঁইয়ার সাথে লাঠিমের নির্বাচন করেছি। এটাই আমার এবং আমার পরিবারের সবচেয়ে বড় অন্যায় ছিল।

গত ২২ ফেব্রুয়ারী সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টার দিকে রুহুল আমিন মোল্লা গাড়ী নিয়া আইসা, গাড়ী থেকে ৬/৭ লোক নাইমা আমাকে খোঁজাখুঁজি করেছে। তখন আমার মা এবং আমার পরিবার ছিল, তিনি তাদের সামনেই আমাকে অকথ্য ভাষায় গালি-গালাজ করে এবং আমাকে মেরে ছয় মাসের জন্য হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠাবে বলে হুমকি দেয়। আমি আমার জীবনের নিরাপত্তা চাই। বাপ্পীর দাবী, আমার ব্যবসা আছে, আমার প্রতিষ্ঠান আছে। আমি এখানে লাইসেন্স নিয়ে ব্যবসা করতে বসছি। তারা একের পর এক আমার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দিতাছে। রুহুল আমিন মোল্লা ভাইয়ের লোকজন আইসা খুবই হস্তক্ষেপ করতাছে। আমি দোকানে বসলেই তারা আইসা আমাকে উঠাইয়া দিতেছে, গ্যারেজে আইসা বসলেই ভয় দেখাইয়া সড়াইয়া দিতেছে। আমি কি অপরাধ করছি রুহুল আমিন মোল্লার কাছে। আমার মনে প্রশ্ন জাগতাছে রুহুল আমিন মোল্লার কাছে, আমরা কি এমন অপরাধ করছি তার সাথে। আমি অনেক দিন ধরে আওয়ামীলীগের রাজনীতি করি মহসিন ভাইয়ের সাথে এটাই কি আমার অপরাধ? সে আমাদের এলাকার জনপ্রতিনিধি। আমার যদি কোন ভুল থাকে তাহলে তো সে আমাকে ডেকে জিজ্ঞেস করতে পারতো। কিন্তু তিনি সেটা না করে লোকজন নিয়ে আইসা আমাকে হুমকি-ধমকি দিতাছে। আমরা তো সাধারণ মানুষ, আমরা ব্যবসা করে খাই। আমাদের নামে তো কোন বদনাম নাই। আমার দেয়ালে পিঠ ঠেইকা গেছে, আমি আমার জীবনের নিরাপত্তা চাই, আমি শামীম ওসমান মহোদয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

ভুক্তভোগী বাপ্পীর সহধর্মিনী জানায়, আমার স্বামীর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নিয়ে সমস্যা হচ্ছে। রুহুল মোল্লা লোকজন নিয়ে আমাদের গ্যারেজে আইসা হুমকি-ধমকি দিচ্ছে। তিনি ৬০/৭০ জন লোক নিয়ে গ্যারেজে ঢুকে অকথ্য ভাষায় গালি-গালাজ করেছে। আমার স্বামীকে খুঁজে না পেয়ে আমার শাশুড়ির সামনেই মা-বোন তুলে গালা-গালি করে এবং মাইরা ৬ মাসের জন্য হাসপাতালে পাঠাবে বলেও হুমকি-ধমকি দিয়েছে। আমরা বর্তমানে আতংকে রয়েছি। আমরা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সাহায্য চাই, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সহযোগিতা চাই। এ ব্যাপারে জানতে কাউন্সিলর রুহুল আমিন মোল্লার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করলেও তিনি তা রিসিভ করেননি।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page