কেন ত্বকী হত্যার বিচার হয় না, আমরা সকলেই জানি : আইভী

- Advertisement -

‘আপনি জিউস পুকুর নিয়ে করলেন, আপনি মৌলভী সাহেবদের বললেন, মসজিদ ভেঙ্গে দিচ্ছি। এই ধরণের মিথ্যাচার বন্ধ করেন। আপনার দিন শেষ, আপনার মিথ্যা বলা, আপনার শ্মশান-কবরস্থানের নাটক, আমরা সকলেই জানি। ত্বকী হত্যার বিচার চেয়েছেন, হত্যাকারী আপনার ঘরে, আপনি নাটক বাদ দিয়ে হত্যাকারীকে ধরিয়ে দেন। তখন আমি বুঝবো আপনি কতবড় নেতা এই বাংলাদেশে।’

সোমবার (৭ মার্চ) বিকালে কথা গুলো বলছিলেন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী। সন্ত্রাস নির্মূল ত্বকী মঞ্চের আয়োজনে নগরীর শেখ রাসেল পার্কে চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে তিনি বক্তব্য রাখেন।মেয়র আইভী বলেন, আমাদের সন্তান আমাদের কাছ থেকে কেড়ে নিয়েছে। বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামের মাধ্যমে ৯ বছর ধরে আমরা ত্বকী হত্যার বিচার চেয়ে যাচ্ছি। কোন এক অজানা কারণে ত্বকী হত্যার বিচার হচ্ছে না। আলোচিত একটি হত্যাকাণ্ড, নির্মম, নিষ্ঠুর ভাবে আমাদের বাঁচ্চাদের কেড়ে নেওয়া হয়েছে। কেন বিচার হচ্ছে না, তা সমগ্র বাংলাদেশ তথা বিশ্বের বাংলা ভাষা-ভাষী আমরা সকলেই জানি। যেখানে র‌্যাব তদন্ত করেছে, সেই তদন্তের খসড়া প্রতিবেদনেও অনেকের নাম বেড়িয়ে এসেছে। সেটাই আমাদের বিচার পাওয়া নিয়ে কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে।

আইভী বলেন, প্রভাবশালী ব্যক্তির সন্তান ও আত্মীয়-স্বজনরা মিলে ত্বকীকে নিষ্ঠুর ভাবে হত্যা করেছে। কেন হত্যা করেছে? কারণ ওর বাবা প্রতিবাদ করেছিল, মানুষের পক্ষে কথা বলেছিল। সেই প্রতিবাদ ও মানুষের পক্ষে কথা বলা বন্ধের জন্য, মানুষদের ভয় দেখানোর জন্য হত্যা করা হলো। কিন্তু তারা কোনদিন স্বপ্নেও ভাবেনি এভাবে মানুষ প্রতিবাদ ও প্রতিরোধ গড়ে তুলবে। আশিক হত্যাকাণ্ডে প্রতিবাদ করে ছিলাম, সেই হত্যাকাণ্ডে একটা মামলা করেছিল, সেখানে থানা থেকে বলে দিলো আজমেরীর নাম বাদ দিতে হবে। বাদ দিয়েই করা হলো, তারপরেও এক নম্বর আসামী নারায়ণগঞ্জ শহরে ঘুরে বেড়ায়, মোটা পাইপ ফেলে ড্রেজার ব্যবসা করে। প্রশাসন তাদের চোখেও দেখে না। একই ভাবে ত্বকী হত্যাকারিদেরও চোখে দেখে না। নাকের ডগার উপর দিয়ে শত শত হোন্ডাবাহিনী নিয়ে পত্রিকা অফিসে হামলা করে, তারপরেও প্রশাসন তাদের দেখে না, তাদের বিচার হয় না। কেন হয় না? কারণ তারা শহরের বিখ্যাত পরিবারের সদস্য।

যারা কথায় কথায় বলে, তাদের মতো ধনী নাকি নারায়ণগঞ্জে নাই। ধনী হলো কোথা থেকে? যাদের তোলারাম কলেজে পরীক্ষার ফর্ম পূরণের টাকা ছিল না বলে বেড়ায়, সেই তারাই আজকে কোটি কোটি টাকার মালিক। আর অন্যের দিকে চোখ তুলে বলে, তোমার বাড়ি বানালো কি ভাবে। আইভী বলেন, বাবার জায়গা বিক্রি করে বাড়ি বানিয়েছি, আপনার মতো চুরি করে নয়-দূর্নীতি করে নয়। আপনারা অনেকেই জানেন না, উনার কার্গো আছে প্রায় ১৬ থেকে ১৭টা, এই কার্গোর মালিক উনি রাতারাতি কিভাবে হলেন? সেটা নারায়ণগঞ্জবাসীও জানতে চায়। দুদকের ভয় দেখান, যারা আমার নির্বাচন করেছেন, তাদের অনেকের ইনকাম ট্যাক্স টানেন। আপনার দিন অনেক ছোট হয়ে আসছে, আপনি নিজেও বুঝতে পারেন। আপনার পায়ের তলায় মাটি নাই, সেটা আপনি নিজেও বুঝতে পারেন। এখন আপনি কিভাবে মানুষকে বিপদে ফেলবেন, সেই চিন্তায় থাকেন। আপনি তোলারাম কলেজের ছাত্রসমাজকে যেয়ে বলেন, আপনি জিয়াউর রহমানের গাড়ি আটকে দিয়েছেন। আরে ভাই আপনি তো অত্যন্ত ভিতু মানুষ, আপনি তো যখন তখন দেশ ছেড়ে চলে যান, শত শত কোটি টাকা পাচার করে দিয়েছেন, দুবাই আর মালোশিয়াতে। সেখানে বাড়ি ঘরও করেছেন, আবারও চলে যাবেন। আপনি কেন ছাত্র সমাজকে মিথ্যা কথা বলে ক্ষেপাতে চাইছেন। মার্চ মাস আসলেই দেখি আপনাদের পরিবারের একটি নিয়ম হয়ে দাঁড়িয়েছে, নারায়ণগঞ্জের মানুষকে কোন না কোন ভাবে ভয় দেখানো, অথবা মিথ্যা বলা। আপনি কি জানেন, আমিতো পাম্প করে দিয়েছি আরও ৩ মাস আগে। না জেনে মিথ্যা বলে সব সময় আপনি কিছু না কিছু করার চেষ্টা করেন। আমিতো শুনেছি তোলারাম কলেজের সেই জায়গাতে বিল্ডিং হলে আপনারই শ্যালক নাকি কাজ পাবে।

সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেন, আপনাকে একজন পথচারীও ভয় পায় না। এক লাখ, দু’লাখ লোকের কাহিনী আর আমাদের বলবেন না, এক আইভীকে ঠেক দিতে পারেন না। লক্ষ লোককে কৈ থেকে ঠেক দিবেন। একজন নারী আমি, আমাকে নিয়েই আপনি ভয়ের মধ্যে থাকেন। সর্বক্ষন আপনার মাথার মধ্যে কিলবিল করতে থাকে আইভী কি করলো। এই গুলো না ভেবে যদি আপনি মানুষের উন্নয়নে সময় দিতেন, তাহলে বহু মানুষ উপকৃত হতো।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page