বাবা ছেলে মেয়ে বিভেদ করেননি-এসপি রীনা

- Advertisement -

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ের জামপুরের মেয়ে নাবিলা জাফরিন রীনা। একজন নারী হলেও কখনো পেশাগত কাজে নিজেকে পিছিয়ে রাখেননি। বর্তমানে দায়িত্ব পালন করছেন ঢাকা রেঞ্জের পুলিশ সুপার (ট্রেনিং) হিসেবে। ২০১৬ সাল থেকে এখন পর্যন্ত ৭ বছর ধরে একই পদে নিষ্ঠা, সততা ও দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালন করছেন তিনি।তার কর্মজীবন নিয়ে আলাপকালে জীবনের নানা দিক ও পেশাগত বিভিন্ন দিক তুলে ধরেছেন এসপি রীনা। পিতা পিডব্লিউডিএ’র সাবেক কর্মকর্তা মৃত মোঃ বজলুর রশীদ ভুঁইয়া ও সামসুন্নাহারের একমাত্র কন্যা তিনি। মা সামসুন্নাহার এখন রীনার সাথেই থাকেন।

রীনা বলেন, পুলিশে আসা নিয়ে পরিবার থেকে কোন বাধা তো ছিলই না বরং আমার বাবা যিনি আমার আদর্শ তিনি আমাকে কখনো মেয়ে হিসেবে চিন্তা করেননি। আমরা ৩ ভাই ১ বোন। বাবা আমাকে সন্তান হিসেবে মানুষ করেছেন ছেলে মেয়ে বিভেদ করেননি। আমার বাবার ঐকান্তিক ইচ্ছা ছিল পুলিশ হবো, তার স্বপ্নে আমি আজ এখানে এসেছি। পরিবার যদি সাপোর্ট না করে তাহলে তো কোনকিছু সম্ভব নয়, আমার পরিবারের সবাই, আমার সন্তানরাও অনেক হেল্পফুল। আমার দুই ছেলে এক মেয়ে। আমার মা ভাইরা সবাই আমাকে হেল্প করে। স্বামী অসম্ভব হেল্পফুল একজন মানুষ। তিনি যেকোন বিষয়ে আমাকে সাহায্য করেন। চাকুরির ক্ষেত্রে আমি কখনোই বাধার সম্মুখীন হইনি। বাবা যেভাবে সাপোর্ট করেছিলেন, স্বামী যেভাবে করছেন ঠিক সন্তানরাও যেভাবেই করে। মেয়েদের তো ঘরে বাইরে মানিয়ে নিয়েই চলতে হয়।

এসপি আরো বলেন, আমি অনেককেই জিজ্ঞাসা করি, আপনি কি কখনো কোন যায়গায় গিয়ে কারো কাছে টাকা পয়সা ছাড়া সাহায্য পেয়েছেন? ডাক্তারের কাছে যাবেন ভিজিট দিতে হবে, মামলার করেছেন উকিলের কাছে যাবেন তিনি টাকা ছাড়া মামলা লড়বেন না কিন্তু একমাত্র আমাদের চেয়ারটাই যেখানে আসলে কারো কোন টাকা পয়সা লাগেনা উল্টো আমরা সহযোগিতা করি। পুলিশ তো কোন চাকুরি নয় এটি একটি সেবামূলক প্রতিষ্ঠান আর সেবার মন মানসিকতা নিয়েই আমাদের কাজ করতে হয়।

ছোট বেলায় ৬ মাস বয়স থেকেই ঢাকার গোরানে বসবাস করেন তিনি। এখনো পরিবার নিয়ে গোরানেই থাকেন তিনি। রীনা জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে হিসাববিজ্ঞান বিষয়ে উচ্চশিক্ষা সম্পন্ন করে ২১তম বিসিএসে উত্তীর্ণ হয়ে ২০০৩ সালের জুন মাসে এএসপি হিসেবে যোগ দেন বাংলাদেশ পুলিশে। দীর্ঘদিন দায়িত্ব পালন করেছেন সিআইডিতে।

দায়িত্ব পালন সম্পর্কে তিনি বলেন, চাপ নেই, আমার অফিসার যারা ছিলেন তারা সকলেই খুবই ভালো অফিসার ছিলেন। নুরুজ্জামান স্যার, বর্তমান কমিশনার শফিক স্যার, এরপর আব্দুল্লাহ আল মামুন স্যার যিনি হাতে ধরে কাজ শিখিয়েছেন। সকলেই অত্যন্ত ভালো ছিলেন। হাবিবুর রহমান স্যারের কথা তো আর বলার প্রয়োজন নেই। এরকম শান্ত হেল্পফুল একজন মানুষ কিভাবে ঠাণ্ডা মাথায় এতকিছু সামলান তা দেখে আমরাও অবাক হই।

তিনি বলেন, ১৯ বছর চাকুরি পার করেছি। ২০১৩ সালের প্রথমে একবছরের ট্রেনিংয়ের জন্য রাজশাহীর শারদায় ছিলাম। এরপর ৬ মাসের প্রবেশনার ট্রেনিং করি সিরাজগঞ্জে। তারপর সিআইডি ডিটেকটিভ ট্রেনিং স্কুলে ২০০৮ সাল পর্যন্ত ছিলাম। তারপর মিশনে গেলাম। মিশন থেকে ফিরে ২০০৯ সালে এসপি অ্যাডমিন হিসেবে সিআইডি হেড কোয়ার্টারে যোগদান করলাম। এরপর সিআইডির এডিশনাল এসপি ময়মনসিংহ জোনে প্রায় সাড়ে ৫ বছর ছিলাম। এরপর এসপি হয়ে ঢাকা রেঞ্জে কাজ করছি। চাকুরিতে ২০ বছর তো পার হয়েছে বাকি সময়টাও পার হয়ে যাবে।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page