শামীম ওসমানের প্রস্তাবে স্থানীয় পর্যায়ে যাকাত সংগ্রহে নতুন আইন

প্রতিবছরই মানুষ যাকাত দেয়। সেই যাকাতের অর্থ যদি সরকারি উদ্যোগে সংগ্রহ করে সুনির্দিষ্ট স্থানে ব্যবহার হতো, তাহলে কয়েক বছরের মধ্যে যাকাত নেওয়ার মানুষও খুঁজে পাওয়া যাবে না; এ ভাবেই ২০২০ সালের ৬ জুলাই বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানালের একটি অনুষ্ঠানে জাতির উদ্দেশ্যে প্রস্তাবটি রাখেন নারায়ণগঞ্জের জনপ্রিয় সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমান। মাত্র দু’ বছরের ব্যবধানে তাঁর সেই প্রস্তাবের আলোকে প্রতিটি বিভাগ, জেলা-উপজেলা ও স্থানীয় পর্যায় থেকে যাকাত সংগ্রহের উদ্যোগ নিচ্ছে সরকার। এজন্য যাকাত ব্যবস্থাপনা আইন নামে নতুন একটি আইন প্রণয়ন করা হচ্ছে।

‘যাকাত ব্যবস্থাপনা আইন-২০২২’ শীর্ষক ওই আইনের খসড়া চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য মন্ত্রিসভার বৈঠকে উঠছে। সেখানে বলা হয়েছে, ‘দেশের অভ্যন্তরে সরকারিভাবে সংগৃহীত যাকাত, প্রবাসী বাংলাদেশিদের নিকট থেকে প্রাপ্ত যাকাত, বিদেশি কোনো ব্যক্তি বা সংস্থার নিকট থেকে প্রাপ্ত যাকাত এবং অন্য কোনো উৎস থেকে প্রাপ্ত যাকাত অর্থ দিয়ে এই তহবিল গঠন করা হবে’। এর আগে যাকাত ফান্ড অর্ডিন্যান্স-১৯৮২ এর মাধ্যমে যাকাত ব্যবস্থাপনার কাজ করতো সরকার। বিশ্ব মহামারী করোনা ভাইরাস চলাকালে ২০২০ সালের ৬ জুলাই বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানাল নিউজ ২৪ এর একটি অনুষ্ঠানে ‘স্থানীয় পর্যায়ে যাকাত সংগ্রহের প্রস্তাব’ রাখেন শামীম ওসমান।

সেখানে শামীম ওসমান বলেন, ‘বাংলাদেশের ৯০ শতাংশ লোক আমরা মুসলমান। কমপক্ষে দেশের এক কোটি মানুষ ৫ লাখ টাকার অধিক যাকাত দেয়। প্রতিবছর মোট যাকাতের পরিমান হতে পারে ৫০ হাজার কোটি টাকা। এর কমও হতে পারে, বেশিও হতে পারে। তারপরেও ধরে নিলাম। এই অর্থদিয়ে মানুষকে আত্মনির্ভশিল করে গড়ে তোলা, ভূমিহীনদের গৃহ ও কর্মহীনদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা যাবে, বেকার যুবকদের সুদ মুক্ত ঋণ দিয়ে সচ্ছল করা যাবে। এ ভাবে চললে কয়েক বছরের মধ্যে যাকাত দেওয়ার লোকও খুঁজে যাওয়া যাবে না। মানুষকে সচেতন করতে দেশের আলেম, অর্থনীতিবিদ, সাংবাদিকদের যুক্ত করতে পাড়ি।’

এদিকে, শামীম ওসমানের প্রস্তাবনার আলোকে যাকাত ব্যবস্থাপনা আইনের খসড়া করা হয়েছে। খসড়া আইনে বলা হয়েছে, প্রতিটি বিভাগ, জেলা, উপজেলা ও প্রয়োজনবোধে অন্যান্য স্থানীয়ভাবে অধিক্ষেত্রে সরকারিভাবে যাকাত সংগ্রহ করতে এবং এ উদ্দেশ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। সরকারিভাবে যাকাত সংগ্রহ বৃদ্ধির লক্ষ্যে যাকাত দানে উদ্বুব্ধকরণ, প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়াতে প্রচারণা, যাকাত সংগ্রহ কেন্দ্র উপস্থাপন, সরকারিভাবে যাকাত দানে আগ্রহী ব্যক্তিদের যাকাতযোগ্য সম্পদ ও যাকাতের পরিমাণ নিরুপণ, প্রত্যয়ন প্রদানসহ আধুনিক তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারবে। অন্য কোনো আইনে যা কিছুই থাকুক না কেন যাকাত তহবিলে প্রদানকৃত যাকাতের অর্থ যাকাত প্রদানকারীর ওই অর্থ বছরের আয়কর রেয়াতযোগ্য হিসেবে গণ্য হবে।

পবিত্র কোরআনে বর্ণিত সুনির্দিষ্ট খাতসমূহ ব্যতীত অন্য কোনো খাতে যাকাতের অর্থ ব্যয় করা যাবে না। সরকারিভাবে সংগৃহীত যাকাতের অর্থ ইসলামী শরিয়াহ এর বিধান মোতাবেক এবং যথাসময়ে বিতরণ নিশ্চিত করা হবে। যাকাত প্রদানকারী কোনো ব্যক্তি যাকাত পাওয়ার যোগ্য অন্য কোনো ব্যক্তির তথ্য প্রদান করতে পারবেন এবং অনুরূপ ব্যক্তি যাকাত গ্রহণের যোগ্য হলে তাকে অগ্রাধিকার প্রদান করা হবে। সরকার স্থানীয়ভাবে যাকাত সংগ্রহ, বিতরণ ব্যবস্থাপনার সুবিধার্থে সিটি করেপারেশন বিভাগ, জেলা এবং উপজেলা পর্যায়ে প্রয়োজনীয় কমিটি গঠন করতে পারবে। কোনো ব্যাংক, বীমা, আর্থিক প্রতিষ্ঠান অথবা এনজিও কর্তৃক প্রাতিষ্ঠানিকভাবে যাকাত সংগ্রহ বা বিতরণের ক্ষেত্রে যাকাত বোর্ডের পূর্ব অনুমোদন গ্রহণ করতে হবে।

অতীতের অধ্যাদেশে যাকাত বোর্ডের হিসাব সংরক্ষণ ও নিরীক্ষার কোনো ধারা ছিল না। নতুন আইনে এ সংক্রান্ত একটি ধারা সংযোজন করা হয়েছে। বোর্ডের পক্ষে ফাউন্ডেশন যথাযথভাবে তহবিলের হিসাব সংরক্ষণ করবে এবং হিসাবের বার্ষিক বিবরণী প্রস্তুত করবে। মহা হিসাব-নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক প্রত্যেক বছর তহবিলের হিসাব-নিরীক্ষা করবেন এবং নিরীক্ষা প্রতিবেদনের ওপর একটি করে অনুলিপি সরকার ও বোর্ডের কাছে পেশ করবেন। হিসাব নিরীক্ষা প্রতিবেদনের ওপর কোনো আপত্তি উত্থাপিত হলে তা নিস্পত্তির জন্য বোর্ড যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। তহবিলের অর্থ ব্যবস্থাপনা ইসলামী শরিয়াহ মোতাবেক হয়েছে কিনা তা নিরীক্ষা ও যাচাই করার জন্য বোর্ড প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। যাকাত বোর্ডের প্রশাসনিক ও পরিচালন সংক্রান্ত সকল ব্যয় সরকার বহন করবে।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ