সিটি কর্পোরেশন-হাসপাতালের রেষারেষিতে

টিকা নিতে হয়রানীর স্বীকার গ্রহিতারা : ভোগান্তি চরমে

- Advertisement -

নারায়ণগঞ্জ জেনারেল ভিক্টোরিয়া হাসপাতালে করোনা ভাইরাসের (কোভিড-১৯) টিকা নিতে এসে চরম ভোগান্তির মধ্যে পড়েছে শতশত টিকা প্রত্যাশী মানুষ এবং সাধারণ রোগীরা। এতে বেশি ভোগান্তিতে পড়েছে শিক্ষার্থী-নারী-বয়স্করা। অনেককে দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে রোদের প্রখরতা সইতে না পেরে টিকা না নিয়ে চলে যেতে দেখা গেছে। টিকা প্রদানের এই চরম ভোগান্তি বিষয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও সিটি কর্পোরেশন দোষ চাপাচ্ছেন একে-অপরের উপর।

রোববার (২৭ মার্চ) সকাল দশটা থেকে দুপুর সাড়ে বারোটা পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জ জেনারেল ভিক্টোরিয়া হাসপাতালে সরেজমিনে থেকে দেখা যায়, পুরো হাসপাতাল যেনো এক বিশৃঙ্খলার জগতে পরিনত হয়েছে। হাসপাতালের প্রধান গেইট থেকে একদম শেষ প্রান্তের দেয়াল পর্যন্ত মানুষের উপচে পড়া উপস্থিতি। কে এসেছেন টিকার প্রথম ডোজ দিতে, কে এসেছেন দ্বিতীয় ডোজ দিতে, কে এসেছেন বুস্টার দিতে, কে এসেছেন ফাইজার, কে মর্ডানা বা কে যে হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা রোগী তা মিলে একাকার হয়ে গেছে। টিকা নিতে আসা মানুষ ছুটছে দিকবিদিক।

কখনো টিকা কার্ড নিয়ে দুপুর শুরু প্রখর রোদে হাসপাতালের প্রাঙ্গণের লাইনে ঘন্টাখানেক দাঁড়িয়ে থেকে জানতে পারলেন তাকে টিকা দিতে হবে হাসপাতালের ভিতরের ১১৬ নাম্বার রুমে। আবার কেউ কর্মস্থলে না গিয়ে টিকা নিতে এসেও টিকা না দিয়ে ফিরে গেছেন। লাইনের মধ্যে আগে-পরে যাওয়ার বিষয় নিয়ে দ্বন্দ্ব তো রয়েছেই। অনেকে টিকার আবেদন করেছেন চার-পাঁচ মাস হয়ে গেছে আবার কেউ প্রথম ডোজ নিয়েছেন পাঁচ মাসের বেশি কিন্তু দ্বিতীয় ডোজের তারিখ পাচ্ছেন না। এমন সমস্যাসহ অনেক কারিগরী জটিলতা নিয়ে টিকা প্রত্যাশী মানুষ হাসপাতাল-সিটি কর্পোরেশন কর্মকর্তাতের কক্ষের সামনে সামনে ঘুরছেন।

এদিকে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেডিকেল অফিসার ডা. শেখ মোস্তফা আলী। তিনি তার কক্ষের সামনেতো রিতীমত একটি নোটিশ লাগিয়েছেন। যেখানে স্পষ্ট করে লিখা রয়েছে যে, কোভিড-১৯ এর টিকাদান সম্পর্কিত সমস্যার জন্য ভিক্টোরিয়া হাসপাতালে যোগাযোগ করবেন। এবং পাশাপাশি তিনি বিশেষ দ্রষ্টব্য দিয়ে লিখেছেন যে, এর সাথে সিটি কর্পোরেশনের কোনো সম্পৃক্ততা নেই। অপরদিকে ভিক্টোরিয়া হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গেছে, তারা সিটি কর্পোরেশনকে তাদের হাসপাতালের কয়েকটি কক্ষ দিয়েছেন কোভিড-১৯ এর টিকাদানের জন্য। এছাড়া টিকা প্রদানের সঙ্গে তাদের কোনো সম্পৃক্ততা নেই। কিন্তু হাসপাতালে টিকা দেওয়ার কারনে যারা টিকা নিতে আসছেন তারা তাদের নানান সমস্যা নিয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে আসছে। তবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে কোনো সমাধান নেই যা করার সিটি কর্পোরেশনের মেডিকেল অফিসার শেখ মোস্তফা আলী করতে পারবেন।

তবে টিকা প্রত্যাশীরা যখন সিটি কর্পোরেশনে যাচ্ছেন তারা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলছেন তা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বোধগম্য নয়।এদিকে ২৭ টি ওয়ার্ডের সমন্বয়ে গঠিত ৭২.৪৩ বর্গ কিলোমিটারের নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের সকল বাসিন্দাদের একটি মাত্র নির্ধারিত টিকা কেন্দ্র ভিক্টোরিয়া হাসপাতালের এমন বিশৃঙ্খলায় চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে টিকা প্রত্যাশীদের। নবম শ্রেণিতে পড়া মেয়ে আকলিমাকে নিয়ে হাসপাতাল থেকে বেড়িয়ে যাওয়ার সময় কথা হয় গার্মেন্টস কর্মী রেশমার সঙ্গে।

তিনি বলেন, আমার বাড়ি মিজমিজি এলাকায়। সিটি কর্পোরেশনের এক নাম্বার ওয়ার্ডের বাসিন্দা আমি। আমার মেয়ে স্কুলে টিকা দিতে পারে নাই। তাই ওর টিকার আবেদন করার পর আজকের ডেটে মেসেজ আসছে তাই আইসিলাম টিকা দিতে। আর আমার বুস্টার ডোজের তারিখ গেছে গত ৩ তারিখে কাজ করি বলে দিতে পারি নাই। আজকে গার্মেন্টসে যাই নাই। এবসেন্ট দিছি যার জন্য একহাজার টাকা বেতন থেকে কাটা যাইবো। এত কষ্ট করে এত দূর থেকে এসেও টিকা না নিয়া বাসায় যাচ্ছি। এই হাসপাতালের যেনো কোনো বাবা-মা নাই। হাসপাতাল একটা জাহান্নামে পরিনত হইছে। যারা টিকা নিতে আসছি তারা যেনো জাহান্নামে নিক্ষেপ হইছি এমন মনে হচ্ছে।

আশরাফ নামের এক দিনমজুর জানান, তিনি প্রথম ডোজ জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে দিলেও দ্বিতীয় ডোজের মেসেজ এখনো পাচ্ছেন না। এই সমস্যা নিয়ে তিনি সিটি কর্পোরেশনের মেডিকেল অফিসারের কক্ষে কয়েকবার যোগাযোগ করে ধমক খেয়েছেন। সেখানে থাকা লাল টি-শার্ট পড়া এক যুবকসহ কয়েকজন তার সমস্যার কথা বলায় চড়াও হয়েছেন। এরপর হাসপাতালে আসলে আবার হাসপাতালের লোকজন বলছেন যে সিটি কর্পোরেশনে যান। এমন অবস্থায় কোথায় যে সমাধান পাবেন তা তিনি জানেন না।

নারায়ণগঞ্জ জেনারেল ভিক্টোরিয়া হাসপাতালের মেডিকেল আবাসিক অফিসার (আরএমও) ডা. এসকে ফরহাদ বলেন, ভ্যাক্সিন ব্যবস্থাপনা করে সম্পূর্ণ সিটি কর্পোরেশন আমরা শুধু আমাদের ভেন্যু দিয়েছি। আর আমাদের জনবল দিয়ে সহযোগিতা করছি। টিকা সংক্রান্ত সকল তথ্য সিটি কর্পোরেশনের ভলেন্টিয়াররা আপডেট করে। এখন কোনো কারনে যদি কারো তথ্য আপডেট না হলে সেতো সিটি কর্পোরেশনের কাছেই যাবে। এখানে ভিক্টোরিয়া হাসপাতালের অফিসিয়াল দায়িত্ব নেই।

কয়েকবার সিটি কর্পোরেশনের মেডিকেল অফিসার ডা. শেখ মোস্তফা আলীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে তার কক্ষে গিয়েও না পেয়ে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, এই টা তো ফোনে বলা যাবে না। অফিসে আইসেন কথা বলবো। এখন লোকজন আছে ঘন্টাখানেক পর কল দেন।এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা সিভিল সার্জন আবুল ফজল মো. মশিউর রহমান বলেন, ভিক্টোরিয়া হাসপাতাল সেন্টারটি হচ্ছে সিটি কর্পোরেশনের। ভ্যাকসিন নেওয়ার এসএমএস পাঠায় সিটি কর্পোরেশন। সিটি কর্পোরেশনকে আমরা সহযোগিতা করে থাকি তবে তাদের দায়িত্ব তাদেরই।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page