২১ বছর ‘জয় বাংলা’ বলতে পারি নাই: সেলিম ওসমান

- Advertisement -

নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা একেএম সেলিম ওসমান বলেছেন, ১৯৭১ সালের আজকের এই দিনে যুদ্ধে অংশ নেয়ার জন্য আমার বাবা, আমার মা বা আমার দাদা কেও আমাকে নির্দেশনা দেন নাই। নির্দেশনা পেয়েছিলাম ৭ই মার্চ, সেদিন আমাদের চাহিদা ছিলো একটাই; যে বঙ্গবন্দুর নির্দেশে বাংলাদেশকে স্বাধীন করতে হবে। সেদিন আমি বলি নাই যে আমাকে যুদ্ধে যেতে হবে, তাহলে আমার পরিবারের খাবারের কি হবে। তবে আজ আমরা অনেক কিছুই বলি। এক সময় মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে অনেক ভালোই লাগতো, তবে মাত্র ৩ বছর। একটা সময় তো জয় বাংলা বলতে প্রায় ভুলেই গেছিলাম। তবে ২১ বছর পর আবার বুক ফুলিয়ে জয় বাংলা বলার সাহস পেয়েছি জননেত্রী শেখ হাসিনার কারণে।

তিনি বলেন, আমাদের চলার পথে ভুল হতে পার, আমাদের বয়স হয়েছে। আমি দীর্ঘদিন দারচিনি, এলাচি এবং আদা-রসুন খেয়ে নিজের চিকিৎসা চালিয়েছি। এখন আমার চিকিৎসা দেশের বাইরে হয় আপনারা জানেন। আল্লাহর কাছে লাখো শুকরিয়া যে আমার হার্ট এ বা কিডনিতে বা আমার লিভারে কোন সমস্যা নাই। শুধু ব্যাক বোন এ একটু ব্যাথা রয়েছে। এই ব্যাথার কারনে ১০-১৫ কদম হাটার পর আমি আর ঠিক মতো হাটতে পারি না। তবে চিকিৎসা নিয়ে এ সমস্যা দুর হয়ে যাবে।

মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে শনিবার (২৬ মার্চ) দুপুরে জেলা প্রশাসনের উদ্দ্যেগে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংবার্ধনা প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি‘র বক্তব্যে সেলিম ওসমান এ কথা বলেন।অনুষ্ঠানে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো. মঞ্জুরুল হাফিজের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে আরও উপস্থিত ছিলেন- নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হাই, জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক সভাপতি মোহাম্মদ আলী প্রমুখ।

সেলিম ওসমান বলেন, আজ একজন মুক্তিযোদ্ধাকে চিকিৎসা খরচের জন্য কারো কাছে হাত পাততে হয় না। এরোকম হয়তো অন্য কোন দেশে হয়নি। আমি মুক্তিযোদ্ধাদের পরিবারকে অনুরোধ করেছিলাম যে, আপনাদের ঘর থেকে একজন সন্তান আমাদের কাছে দেন। আমরা তাদেরকে ৩-৪ মাসের ট্রেনিং দিয়ে ত্রিশ থেকে পয়ত্রিশ হাজার টাকার বেতনের চাকরি দিতে পারবো। তবে একটা এপ্লিকেশনও কেও দেন নাই। আজ জুলহাস সাহেবের একটা দাবি শুনলাম, যেটা ৭১ এ ছিলো না। আমি পরচর্চা করি না, আমি চোখের সামনে দাড়িয়ে আত্মসমালোচনা করি। ১০০ জন মুক্তি মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স করা হয়েছে। তাদের এক জনেরও এপ্লিকেশন আমার কাছে নাই কেন, জুলহাস সাহেবের কাছে আমার প্রশ্ন।

মুক্তিযোদ্দাদের জন্য ঘর তৈরির কথা উল্লেখ্য করে সেলিশ ওসমান বলেন, আমি অতিত নিয়ে কথা বলিনা, আমি বর্তমান নিয়ে কথা বলি; আমি ভবিষ্যত নিয়ে কথা বলি না। বলার জন্য বলবেন না করার জন্য বলবেন। কথা দিয়ে গেলাম আপনাদেরকে, ১০০ জন মুক্তিযোদ্ধার যদি বাড়ি ঘর না থাকেতাহলে জেলা প্রশাসক সাহেবকে নিয়ে আগামী ১৬ই ডিসেম্বরের আগে সবার জন্য ঘরের ব্যবস্থা করবো ইনশাআল্লাহ। তবে এই সরকারকে প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য এ রকম ভাষন দিবেন না।

নগরীর রাস্তার উপর বসা দোকান এবং যানযট এর বিষয়ে সেলিম ওসমান বলেন, সামনে রোজার মাস আসছে, আমাদের প্রতিটা মুসুল্লি যাতে সুন্দর ভাবে চলাফেরা করতে পারে। চাষাড়ার মোরে যাতে তারা সহজেই বাসে উঠতে পারে আর নামতে পারে সেই দিকে খেয়াল রাখবেন। আমাদের যে গার্মেনটস শ্রমিকরা রয়েছে তাদের সকাল ৭টা তেকে কাজে যেতে হয় কারন আছরের আগে গার্মেন্টস বন্ধ করে দেয়া হয়। আমি এখানে সাংবাদিক, প্রশাসন এবং জনপ্রতিনিধিদের সাহায্য চাইবো, রাস্তা ঘাটে কোন দোকান বসবে না। ২/৩ শ মানুষের জন্য যাতে দেড় লাখ লাখ মানুষের অবস্থা যাতে খারাপ না হয় সে দিকে লক্ষ্য রাখবেন।

সেলিম ওসমান আরও বলেন, ডিসি সাহেবের সাথে যখন আমার প্রথম দেখা হয় তখন আমাদের আলোচনা হয়েছিলো যে নারায়ণগঞ্জে গনটিকার মাধ্যমে সকলকে টিকার আওতায় আনতে হবে। আল্লাহর রহমতে আমাদের যে পরিমাটে টিকা দেয়ার টার্গেট ছিলো সেটা পুরণ হয়েছে এবং তাই আমি আপনাদের মাঝে মাস্ক না পরে বক্তব্য দেয়ার সাহস করেছি। আপনারা সকলে মুক্তিযোদ্ধা, আপনারা নির্ধারিত কোন দলকে সমর্থন করবেন না, আপনারা সহযোগিতা করবেন সরকারকে। নারায়ণগঞ্জের সরকার আমাদের ডিসি মহোদয়। আমরা সকল কাজে তার সহযোগিতা করবো।

তিনি বলেন, আমাদের নারায়ণগঞ্জে শিক্ষা ব্যবস্থা অনেক পিছিয়ে গেছে, এটিকে আমাদের এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। গত দুই বছরে আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্মের যে ক্ষতি হয়েছে সেটাকে ফিরিয়ে আনাটা কিন্তু অনেক কষ্টকর। তাই এখন ওয়াক্তে ওয়াক্তে আল্লাহর কাছে হায়াৎ চাই, যাতে ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য কিছু করে যেতে পারি। আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের একটাই কাজ, আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্ম যাতে নষ্ট হতে না পারে। আমরা সকলেই অন্তর থেকে আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য দোয়া করবো। যাতে আল্লাহ ওনাকে সুস্থ রাখেন।এসময় জেলার শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের পরিবারের সদস্যরা এবং সদর উপজেলার বীর মুক্তিযোদ্ধারা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page