ছিনতাইকারীদের আখড়া না’গঞ্জের চাষাঢ়া

- Advertisement -

সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জে আশংকা জনক হারে বাড়ছে ছিনতাই। শুধু চাষাঢ়া এলাকাতেই গড়ে দৈনিক ছিনতাইয়ের স্বিকার হচ্ছেন অন্তত ১০ জন। শহরের চাষাঢ়ার শহিদ মিনার, সোনালী ব্যাংকের কর্পোরেট শাখার সম্মুখভাগে ও চাষাঢ়া রেলওয়ে স্টেষন এলাকা ছিনতাইকারীদের আখড়ায় পরিণত হয়েছে। শিল্প ও বাণিজ্যের শহরে বিভিন্ন কাজের প্রয়োজনে আশা ব্যাক্তিরা ও ব্যাংক ও বিপণি বিতানে আসা নারীরাই এই ছিনতাই কারী চক্রের টার্গেটে পরিণত হচ্ছে। এদিকে নারায়ণগঞ্জের প্রাণকেন্দ্র চাষাঢ়াতে পুলিশের সরব উপস্থিতিও এসব ছিনতাইকারীদের যেমন টলাতে পাড়ছেনা তেমনি ছিনতাইয়ের কবলে পরে সর্বস্ব হারাচ্ছেন ভুক্তভোগীরা। সব মিলিয়ে এযেন নারায়ণগঞ্জের চাষাঢ়া এখন ছিনতাইকারীদের আখড়া।

আজ (২৮ মার্চ) সড়ে জমিনে সকাল হতে দুপুর পর্যন্ত নগরীর চাষাঢ়া, দুই নং রেলগেইট ও নিতাইগঞ্জ এলাকায় ঘুরে মোট ৫টি ছিনতাইয়ের ঘটনার খবর মিলেছে। এছাড়াও শুধু চাষাঢ়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের আশপাশের এলাকাতে পকেট মারের কবলে পরেছে ৩জন বলে অভিযোগ করেছেন। নগরীর সোনালী ব্যাংকের সম্মুখে ভীড় দেখে প্রশ্ন করলে নগরীর দেওভোগ বাশঁমুলী এলাকার সাদ্দাম হোসেন (২৮) বলেন সকালে ১১টার কিছু আগে ঠিক এই জায়গাতে আমার পকেটে থাকা মাণিব্যাগ নিয়ে নিমিষেই যানযটের মধ্যেও হাওয়া হয়ে যায়। আমি অবশ্য টের পেয়ে পকেটমারের হাত চেপে ধরেছিলাম। তবে একপর্যায়ে তার সাথে থাকা ধারালো আধুনিক একটি চাকু দিয়ে আমাকে আঘাত করতে যাওয়ায় ছেড়ে দিতে বাধ্য হই। আর এখনতো (বিকাল ৪টা) আপনার সামনেই ঠিক একই যায়গাতে মোবাইল ছিনতাইকারীকে আটক করেছে জনতা। তবে এরা সঙ্গবদ্ধ হওয়ায় এর চক্রের অন্য সদস্যরা মোবাইল ফোন নিয়ে পলিয়ে গেছে।

এদিকে চাষাঢ়ার সমবায় মার্কেটের সামনে ফতুল্লার সস্তাপুর এলাকার বিথি আক্তার (১৯) নারায়ণগঞ্জের আলোকে বলেন, আমি সদ্য এইচএসসি পরীক্ষা দিয়েছি, কিছুদিন পড়েই আমার বিশ^বিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা। তাই আমি আমার নিজের জরুরী কিছু জিনিস পত্র কিনতে শহরে এসেছিলাম। এরই মধ্যে এই মহিলা আমাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়, আর তার সাথে তথাকা অপর মহিলা আমার হাত থেকে পরে যাওয়া মোবাইল ফোন নিয়ে দ্রুত পালিয়ে যায়। পরে এখানকার লোকেদের সহায়তায় এই নারীকে আটক করি ও আমার বাসায় বড় ভাইকে খবর দিয়ে আনি। তার ( ছিনতাইকারী) শুনেছি আমার মোবাইলটি চাষাঢ়া স্টেষনে আছে। পরে তাকে পুলিশে দিতে চাইলে তিনি তার সাথে থাকা অপর সদস্যের সাথে যোগাযোগ করে আমার মোবাইল ফোন এনে দেয়। পরে তাকে ছেড়ে দেই।

ছিনতাইকারীকে আইনের আশ্রয়ে না দিয়ে ছেড়ে দিলেন কেন? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন দেখেন আমি স্টুডেন্ট মানুষ, একা শহরে ঘুরে বেড়াই। আর তাছাড়া এরা সঙ্গবদ্ধ হয়ে শহরে ছিনতাই করে। তাই পুলিশকে বলিনি। আর শুধু শুধু মামলা বা থানা পুলিশি করে ঝামেলা করে লাভ কি?

এদিকে শহরের মূল কেন্দ্রবিন্দুতে এমন পকেটমার ও ছিনতাইয়ের ঘটনাতে আইনর্শঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি বলে মনে করছেন স্থানীয়রা। তাদের মধ্য থেকে অনেকের অভিযোগের মধ্যেই আইন শৃঙ্খলার দ্বায়িত্বে থাকা পলিশের ভুমিকা নিয়ে অসন্তোস প্রকাশের বিষয়টি বেশ উল্লেখযোগ্য।

তবে সদর থানার অফিসার ইনচার্য ডেইলি নারায়ণগঞ্জকে জানায়, বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ভুক্তভোগীরা থানায় এসে অভিযোগ করতে অনীহা করে। আর তাছারা বেশ কিছু ছিনতাইকারীদের গ্রেফতার করে চালান করা হয়েছে, তবে তারা আইনের ফাঁকফোকরে আদালতের দারস্থ হয়ে যামিনে বেড়িয়ে আসে। এবং আগের পেশায় নেমে পরে। বেশ কিছু ঘটনাতে পুলিশ আসামিকে আইনের আওতায় আনতে সমর্থ হয়েছে এবং কিছু ঘটনাতে জনতার কাছে তারা ধড়া পরেলে তারা তাদের মত করে গণধোলাই করে ছেড়ে দেয়। ফলে তারা আইনের আওতায় না আসায় পুণরায় ছিনতাই করতে নেমে পরে। জন সাধারণেরও উচিত এব্যাপারে পুলিশকে সাহায়তা করা।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page