ঐতিহ্য হারিয়েও টিকে আছে বায়োস্কোপ

- Advertisement -

তোমার বাড়ির রঙের মেলায় দেখেছিলাম বায়োস্কোপ, বায়োস্কোপের নেশায় আমায় ছাড়ে না’। এই গানটি শোনেননি এমন মানুষ এদেশে কমই আছে। একটা সময় শিশু-কিশোররা মায়েদের কাছে কাকুতি মিনতি করতো বায়োস্কোপ দেখার জন্য। তখন দল বেঁধে এক জায়গায় জড়ো হতো গ্রামের সব শিশু-কিশোররা। বায়োস্কোপকে নিয়ে গ্রামগঞ্জে হই-হুল্লোড় শুরু হয়ে যেত। অথচ গ্রাম বাংলার চিরচেনা এই ঐতিহ্য হারাতে বসেছে।দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের বিলুপ্তপ্রায় লোকজ ঐতিহ্যকে পুনরুদ্ধার, সংগ্রহ, সংরক্ষণ, গবেষণা, প্রদর্শন এবং পুনরুজ্জীবনের লক্ষ্যে বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে প্রতিবছরের মতো এবারও নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ জাদুঘরে মাসব্যাপী লোক কারুশিল্প মেলা ও লোকজ উৎসবের আয়োজন করা হয়েছিল। মেলাটি ২২ ফেব্রুয়ারি শুরু হয়ে চলে ২৩ মার্চ পর্যন্ত।

বায়োস্কোপ দেখাতে রাজশাহী থেকে সোনারগাঁ জাদুঘরে এসেছিলেন আব্দুল জলিল মণ্ডল। তার খঞ্জনি আর গানের তালে বাক্সের ভেতর পাল্টে যায় ছবি। আর তা দেখে যেন ক্ষণিকের জন্য হলেও গল্পের জগতে হারিয়ে যায় মেলায় ঘুরতে আসা শিশু কিশোরসহ তরুণ-তরুণীরা। বায়োস্কোপ দেখিয়ে শিশুসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষদের আনন্দ দেওয়ার মাধ্যমে নিজের সংসার চালাচ্ছেন তিনি। বায়োস্কোপ দেখানো শুরু করলেই ‘কী চমৎকার দেখা গেলো’ বলে ফের শুরু হয় তার ধারা বিবরণী। জলিল মণ্ডলের এ বায়োস্কোপ দেখতে মাত্র ২০ টাকা লাগে। চেষ্টা করেন দর্শকদের খুশি করার। আধুনিক যুগের শিশু-কিশোরদের কাছে এটিকে হাস্যকর বস্তু কিংবা বোকা বাক্সও মনে হতে পারে। কিন্তু বায়োস্কোপ মোটেও হাস্যকর বস্তু কিংবা বোকা বাক্স না। এটি তখনকার দিনের শিশু-কিশোরদের কাছে সিনেমা হলের মতো ছিল।গত ২ মার্চ মেলায় কথা হয়েছিল আব্দুর জলিল মণ্ডলের সঙ্গে।

তিনি বলেন, দীর্ঘ ৪০ বছর ধরে তিনি বায়োস্কোপ দেখান। ১২ বছর বয়স থেকে তিনি এটি দেখানো শুরু করেছেন। বায়োস্কোপের মাধ্যমে আগে তিনি বেদের মেয়ে জোছনা, রহিম রূপবান, ক্ষুদিরামের ফাঁসি এসব দেখাতেন। এখন তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ এসব দেখান। আগে একটা ডুগডুগি বাজালেই ৮-১০ বাড়ির ছেলেমেয়ে ছুটে আসতো। তখন চাল বা পয়সা দিয়ে মানুষ বায়োস্কোপ দেখতো। এখন দিনে ৩০০-৪০০ টাকা আয় হয় তার। মাঝেমধ্যে আরও কম হয়। সামান্য এই রোজগার দিয়েই দুই মেয়ে, এক ছেলে ও স্ত্রীকে নিয়ে কোনো রকমে তার দিন চলে যাচ্ছে।

আব্দুর জলিল মণ্ডল জানালেন, আধুনিক যুগে মানুষের বায়োস্কোপ দেখার আগ্রহ একদমই নেই। সোনারগাঁ জাদুঘরে অনুষ্ঠিত মাসব্যাপী এ মেলায় টানা আট বছর বায়োস্কোপ দেখাচ্ছেন তিনি। ওইদিন বায়োস্কোপ দেখে আমরিন জামান অমি নামে এক তরুণী বলেছিলেন, আমি আগে কখনো বায়োস্কোপ দেখিনি, এবারই প্রথম দেখলাম। ছোটবেলায় আমাদের বাবা-দাদাদের কাছে বায়োস্কোপের গল্প শুনেছি, আজ নিজ চোখে দেখলাম। বায়োস্কোপ দেখে যে নির্মল আনন্দ পেলাম তা অন্য কোনো মাধ্যমে সম্ভব না। আধুনিকতার ছোঁয়ায় গ্রামীণ বাংলার এই ঐতিহ্য আমরা হারাতে বসেছি। বিষয়টি নিয়ে বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক রবিউল ইসলাম বলেছিলেন, বায়োস্কোপ আমাদের গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য। এসব ঐতিহ্য যেন হারিয়ে না যায় সেজন্যই মাসব্যাপী এ মেলার আয়োজন। এবারের মেলায়ও নতুন প্রজন্মের কাছে পরিচয় ঘটানোর জন্য বায়োস্কোপ নিয়ে আসা হয়েছে।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page