থাকছে না মেলা

স্নানোৎসবকে ঘিরে চলছে নানা প্রস্তুতি

- Advertisement -

কেউ তুলে ধরছিলেন নিরাপত্তার কথা, কেউ পানির সংকট, ঘাট মেরামত কিংবা স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা; বিচ্ছিন্ন ভাবে একে একে সমস্যা গুলো তুলে ধরছিলেন সনাতন ধর্মালম্বীরা। স্থানীয় সংসদ সদস্য একেএম সেলিম ওসমান জানালেন, ‘সমস্যা চিহিৃত কর”ন, তালিকা কর”ন, এরপর আমাদের জানান। পুণ্যার্থীরা আমাদের উপজেলার মেহমান, সম্মান করা আমাদের দায়িত্ব’।

আগামী ৮ এপ্রিল এশীয়া মহাদেশের প্রাচীনতম হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের তীর্থস্থান লাঙ্গলবন্দের ‘স্নানোৎসব’কে ঘিরে বুধবার (৩০ মার্চ) প্রথম প্রস্তুতি মূলক সভায় এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। গত দু’বছর বিশ্ব মহামারী করোনা ভাইরাসের কারণে স্নানোৎসব বন্ধ থাকলেও এ বছর উৎযাপনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, এবার ৫ লাখ পুণ্যার্থীর আগম ঘটবে এই উৎসবটিতে।

সেখানে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো. মঞ্জুরূল হাফিজ বলেন, ‘এবার স্নানোৎসব পরিচালিত হবে এক ছাতার নিচ থেকে। আমরা কমিটি করে দিবো, তালিকা মতো কোথায় কি লাগবে, সব কিছুই এক স্থান থেকে পরিচালনা করা হবে। সনাতন ধর্মালম্বীদের মতে, দেবতা পরশুরাম তাঁর পিতার আদেশে নিজ মাতাকে কুঠার দিয়ে আঘাতে হত্যার দায়ে পাপী হয়ে যান এবং তাঁর কুঠারটি হাতে লেগে যায়। পরে পরশুরাম পাপ মোচনের জন্য হিমালয় থেকে নিজ হাতের কুঠারটি লাঙল বানিয়ে চষে পাহাড়-পর্বত দিয়ে বর্তমান লাঙ্গলবন্দ এলাকায় এসে পৌঁছালে তাঁর হাত থেকে সেটি খুলে পড়ে যায়। তখন তিনি ব্রহ্মপুত্র নদের জলে স্নান করেন। এর পর থেকে ব্রহ্মপুত্র নদের লাঙ্গলবন্দ তীর্থস্থান হিসেবে পরিচিতি পায়।প্রতিবছর চৈত্র মাসের অষ্টমী তিথিতে এই স্থানে ব্রহ্মপুত্র নদে পুণ্যস্নানার্থে দেশ-বিদেশের লাখ লাখ হিন্দু ধর্মাবলম্বী ভক্তপ্রাণের আগমন ঘটে। ভক্তগণের বিশ্বাস এ সময় ব্রহ্মপুত্র নদে স্নান খুবই পুণ্যের, এ স্নানে ব্রহ্মার সন্তুষ্টি লাভ করে পাপমোচন হয়। এই স্নানই অষ্টমী স্নান নামে পরিচিত।

সেলিম ওসমান বলেন, ‘স্নানোৎসব সুন্দর ভাবে পরিচালনার জন্য স্বেচ্ছাসেবী প্রয়োজন। পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা যাবে, তাদের থাকা খাওয়ার ব্যবস্থা প্রয়োজন। শৃঙ্খলাবদ্ধ রাখতে মাইকের প্রয়োজন। এ সব কিছু পরিচালনার জন্য অর্থের প্রয়োজন। তাই অর্থায়ন জর”রী, আপনারা ফান্ড তৈরি কর”ন।’ এসময় স্নানোৎসবে শৃঙ্খলা ফেরাতে স্বেচ্ছাসেবীর তালিকা তৈরি, প্রধান প্রধান স্থানে সিসি টিভি ক্যামারা স্থাপনের পরামর্শদেন।

জেলা প্রশাসক মো. মঞ্জুর”ল হাফিজ বলেন, আমাদের চাওয়া হচ্ছে, যারা অতিথি আসবেন, তারা যেন নারায়ণগঞ্জ সর্ম্পকে একটি ভালো ধারণা নিয়ে যায়। তাই স্নানোৎসবে আমাদের পরিকল্পিত একটি আয়োজন থাকবে। যাতে কোন মানুষ যেন কষ্ট না পায়। উৎসব স্থলে কোন রকম মাদক যেন প্রবেশ না করে, সে বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে। পাশাপাশি পুরো এলাকা সিটি টিভির আওতায় আনতে হবে। পাশাপাশি নির্দিষ্ট দূরত্ব থাকতেই পরিবহন বন্ধ করে দেওয়া হবে। আশাকরি, এবারের আয়োজন অন্য বারের চেয়ে ভালো হবে। তবে, এ ক্ষেত্রে আপনাদের সহযোগীতা লাগবে সবচেয়ে বেশি। আপনারা আমাদের সমস্যা চিহিৃত করে তালিকা দিলে আমার সংশ্লিষ্ট দপ্তরের সাথে বসে সমস্যা সমাধান করবো।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page