মুক্তিযুদ্ধে ইন্দিরা গান্ধির ভুমিকা অনেক

- Advertisement -

‘খারাপ লাগে তখন, যদিও আমরা মুক্তিযুদ্ধ করার সুযোগ পাইনি। কিন্তু আমি দেখেছি লাখ লাখ লাশ নদী দিয়ে ভেসে গেছে। মুক্তিযুদ্ধের সময় মেডাম খালেদা জিয়া ও জিয়াউর রহমান পরাজিত শত্রুদের হাতে বাংলাদেশের লাল সবুজের পতাকা তুলে দিয়েছেন।’

‘বঙ্গবন্ধুর আহবানে মহান মুক্তিযুদ্ধ ও ভারতের অবদান’ শীর্ষক আলোচনায় বৃহস্পতিবার বিকালে নারায়ণগঞ্জ সরকারি গণগ্রন্থাগারে এ কথা বলেন বাংলাদেশ-ভারত সম্প্রীতি পরিষদের সাধারণ সম্পাদক এড. খোকন সাহা।

বাংলাদেশ-ভারত সম্প্রীতি পরিষদের আলোচনা সভায় আয়োজন করেন।

তিনি বলেন, আমি শ্রদ্ধার সাথে সরণ করছি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান ও তার পরিবারকে। তাদের সাথে স্বরণ করছি ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধি ও রাষ্টপতিসহ আরও নেতৃবৃন্দ জারা আমাদের দেশে স্বাধীনতার যুদ্ধে সহযোগীতা করেছেন। আমি তাদের আত্মার শান্তি কামনা করি। মুক্তিযুদ্ধে ভারতের ভূমিকা কি ছিলো আপনাদের জানতে হবে। মুক্তিযোদ্ধাদের আশ্রয় দেয়ার জন্য মিসেস ইন্দিরা গান্ধি অনেক ভুমিকা রেখেছেন। যা বাংলার মানুষ কখনোই ভুলবে না। আমাদের নতুন প্রজন্মকে এই মহত্মের কথা জানাতে হবে। বাংলাদেশের জন্য যে কাজ করেছে সেটা কখনো ভুলার মতো না। মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের জন্য বৃত্তি দিয়েছেন ভারত সরকার। ২০১৭ সালে নেত্রী ভারত সফরে যাওয়ার পর এটা ঘোষণা করেছেন ভারত সরকার। ১৬৪৮জন মুক্তিযোদ্ধার সন্তানকে বৃত্তি দিচ্ছেন ভারত।

তিনি আরও বলেন, যাই হোক আমাদের মনে রাখতে হবে, ভারত আমাদের বন্ধু তারা মুক্তিযুদ্ধে আমাদের অনেক সহযোগীতা করেছে, পাশাপামি আমাদের মনে রাখতে হবে সোভিয়েত ইউনিয়ন কথা। কারণ ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালে সোভিয়েত ইউনিয়ন বাংলাদেশের সামরিক বাহিনী কর্তৃক সংঘটিত গণহত্যার নিন্দা জানায় এবং গণহত্যা বন্ধ করার জন্য পাকিস্তান সরকারকে আহ্বান জানায়। যুদ্ধ চলাকালে সোভিয়েত ইউনিয়ন বাঙালি মুক্তিযোদ্ধাদের বিস্তৃত সামরিক ও আর্থিক সহায়তা প্রদান করেছে। সবশেষে একটি কথাই বলবো। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি আমাদের মাননীয় প্রধান মন্ত্রী যদি ক্ষমতায় থাকে তাহলে আমাদের মুক্তিযুদ্ধ টিকে থাকবে। তাই আপনারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ভোট দিয়ে আবারও এই দেশের জন্য মুক্তিযুদ্ধর ইতিহাস টিকিয়ে রাখার সুযোগ দিবেন।

বাংলাদেশ-ভারত সম্প্রীতি পরিষদের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মালেক মিয়ার সভাপতিত্বে প্রধান অতিধি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ-ভারত সম্প্রীতি পরিষদের প্রধান উপদেষ্টা বীর মুক্তিযোদ্ধা এম.এ বারী এডভোকেট।

এছাড়া আরও উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ-ভারত সম্প্রীতি পরিষদের নির্বহী সভাপতি অধ্যাপক ডা. মো. শহিদুল্লাহ সিকদার, সহ সভাপতি ডা. এ.এফ.এম আমিনুল হক রতন পিএইচডি, সাংগঠনিক সম্পাদক ও বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য জোহরা পারভীন জয়া, নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি রবিউল হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক এড. মাহমুদা মালা, নারায়ণগঞ্জ জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি দীপক কুমার সাহা, সাধারণ সম্পাদক শিখন সরকার শিপন, পূজা উদযাপন পরিষদের মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি অরুন দাস, সাধারণ সম্পাদক উত্তম সাহা, নারায়ণগঞ্জ জেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের আহবায়ক প্রদীপ দাস, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের ফতুল্লা থানা কমিটির সভাপতি রঞ্জিত মন্ডল, বন্দর থানা সভাপতি শংকর দাস, সাধারণ সম্পাদক শ্যামল বিশ্বাস, সিদ্ধিরগঞ্জ থানার সভাপতি শিশির ঘোষ অমর প্রমুখ।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page