জমে উঠেছে দেওভোগের তৈরী পোশাকের পাইকারি মার্কেট

- Advertisement -

নিত্যনতুন ডিজাইন বা নকশার পোশাক তৈরি ও বিক্রিতে মনোযোগ দিয়েছে নারায়ণগঞ্জের পাইকারি পোশাক প্রস্তুতকারক মার্কেটের ব্যবসায়ীরা। থাকে থাকে সাজিয়েছেন পোশাক। বেচা-বিক্রি ভালো। তবে কাচা মালের মূল্য বৃদ্ধি হওয়ায় দাম একটু বেশি।দেওভোগ পোশাক প্রস্তুতকারক মার্কেট গুলো ঘুরে এ চিত্র পাওয়া গেছে।

ঈদের এই মৌসুমকে ঘিরে গত দু’ বছরের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে এখন চেষ্টা করছেন শ্রমিক-মালিকরা।পরিবেশ-পরিস্থিতি ঠিক থাকলে এই লক্ষ্য অর্জন সম্ভব, দাবি তাঁদের। দেওভোগ এলাকার ভাষাসৈনিক মমতাজ বেগম সড়ক, আলী আহম্মদ চুনকা সড়ক ও আশপাশের এলাকায় অবস্থিত হাকিম মার্কেট, হাকিম সুপার মার্কেট, ভূঁইয়া মার্কেট, ভূঁইয়া সুপার মার্কেট, মোল্লা মার্কেট, সোহরাওয়ার্দী মার্কেট, ভাই ভাই মার্কেট, রহমত উল্লাহ মার্কেট, জামির মার্কেট নিয়ে গড়ে উঠেছে দেশের অন্যতম বৃহৎ এই পোশাক বাজার। প্রায় ১৫০০ কারখানার ঈদের পোশাক তৈরির কাজে প্রায় ৩৫ হাজার শ্রমিক নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছেন। সেখান থেকে মার্কেটের ৬০০ শোরুমে উঠছে পোশাক গুলো।

৪ রমজানে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কারখানাগুলোতে যেমন শিশুসহ সব বয়সের নারী-পুরুষের পরিধেয় বাহারি সব ডিজাইনের পোশাক তৈরি হচ্ছে, তেমনি সেগুলো শোভা পাচ্ছে শোরুমগুলোতে। ইতিমধ্যে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার পাইকারি ক্রেতা এসে কিনে নিয়ে গেছেন সিংহ ভাগ পোশাক।

এ ব্যাপারে সোহরাওয়ার্দী মার্কেটের মিজান গার্মেন্টসের স্বত্বাধিকারী মুন্সী মুহা. ওমর ফারুক জানান, এ বছর পোশাকের চাহিদা রয়েছে, তবে কাপর, সুতা ও শ্রমিকের মজুরী বেশি হওয়ায় নতুন পোশাকের দাম বেশি। তাই উৎপাদন কম করা হয়েছে। চাহিদা অনুযায়ী পোশাক কেউ দিতে পারছি না। তবে, সব দিক দিয়ে বেচা কেনা ভালো।

তানজিন ফ্যাশনের শাকিল জানান, এখন কারখানায় কিছু পোশাক রয়েছে। আর কিছু শো-রোমে মজুদ রয়েছে। তবে এখন ক্রেতা কম।ব্যবসায়ী ও শ্রমিকেরা জানান, গত ২ বছরে ব্যবসা মন্দা যাওয়ার কারণে মালিকদের যেমন লোকসান হয়েছে, তেমনি হাজার হাজার শ্রমিক ঈদ আনন্দ থেকে বঞ্চিত হন। এবার বাজার ভালো হওয়ায় সবাই উৎসাহ নিয়ে কাজ করে চলেছেন।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page