৩নং মাছ ঘাটে অবাধে জাটকা বিক্রি

- Advertisement -

২০২১ সালের ১লা নভেম্বর থেকে বাংলাদেশে প্রথমবারের মত শুরু হয়েছে জাটকা অর্থাৎ বাচ্চা ইলিশ ধরার নিষেধাজ্ঞা। এই নিষেধাজ্ঞা চলবে ২০২২ সালের ৩০শে জুন পর্যন্ত। সরকার বলছে, বাচ্চা ইলিশকে বড় হবার সুযোগ দেয়ার জন্য এ পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। এ সময়ের মধ্যে জাটকা বা বাচ্চা ইলিশের মাপ যদি ১০ ইঞ্চির নিচে হয়, তাহলে সে জাটকা ধরার জন্য দন্ডিত হবেন জেলে। বিক্রয়-বিপণন ও সংরক্ষণের জন্য সাজা পাবেন আড়তদার এবং ব্যবসায়ী।

এর আগে ৪ থেকে ২৫ অক্টোবর পর্যন্ত ২২ দিন মা ইলিশ সংরক্ষণে ইলিশ ধরায় নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল সরকার। তার আগে পয়লা মার্চ থেকে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত দুইমাস ইলিশ ধরার নিষেধাজ্ঞা ছিল। বাংলাদেশের মৎস্য আইন অনুযায়ী জাটকা নিধন দন্ডিনীয় অপরাধ, কিন্তু সময় বেধে দিয়ে জাটকার আকৃতিতে পরিবর্তন এনে নিষেধাজ্ঞা এবারই প্রথম দেয়া হয়। বাচ্চা ইলিশ সংরক্ষনে সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহন করলেও অসাধু জেলে এবং আড়তদারদের কারনে তা সম্ভব হচ্ছেনা। যার ফলে পদ্মা-মেঘনা থেকে বাচ্চা ইলিশ ধরে তা দেশের বিভিন্ন বাজার ও আড়তে প্রেরণ করা হয়। এরই ধারাবাহিকতায় নারায়ণগঞ্জেও চলে আসে সেগুলো এবং অবাধে বিক্রি হয়। নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদী সংলগ্ন ৩নং মাছ ঘাট এলাকায় সরেজমিনে ঘুরে এমনি চিত্র দেখা যায়।

এসময় নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন ব্যক্তি জানান, প্রতিদিন নারায়ণগঞ্জে হাজার হাজার কেজি জাটকা মাছ ঢুকছে। নৌ পুলিশ এব্যাপারে জানলেও তারা কোন পদক্ষেপ নেয় না। কারন নৌ পুলিশকে ম্যানেজ করেই এখানে জাটকা মাছ বিক্রি করা হয়। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক মাছ ব্যবসায়ী জানান, প্রতিদিনই এখানে জাটকা মাছ বিক্রি হয়। নৌ পুলিশ এবং সাংবাদিকদের ম্যানেজ করেই আমরা ব্যবসা করি। এদিকে মৎস অধিদপÍরের নেই কোন মনিটরিং তারা ঘরে বসেই তাদের আইনের কথা বলে থাকে। সাধারন মানুষের কথা হলো আইন করে লাভ কি যদি তার কোন প্রয়োগ না হয়। তাই মৎস অধিদপ্তরকে প্রতি নিয়ত ৩নং মাছ ঘাট এলাকায় মনিটরিং করতে হবে।তাহলেই জাটকা বিক্রি বন্ধ হতে পারে।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page