না’গঞ্জ হাই স্কুলে শিক্ষক লাহ্নিত

গ্রেপ্তারকৃত সেই বাবু ১৮ ঘন্টার মধ্যেই জামিন

- Advertisement -

নারায়ণগঞ্জ হাই স্কুল এন্ড কলেজের সিনিয়র শিক্ষক মাহাবুবুর রহমানের উপর অতর্কিত আক্রমণ এবং শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করার ঘটনায় ওয়াহেদ সাদত বাবু গ্রেপ্তারের পর ১৮ ঘন্টার মধ্যেই আদালাত থেকে জামিনে মুক্ত হয়েছেন। বুধবার (১৩ এপ্রিল দিবাগত) রাত ১১টার দিকে চাষাড়া বালুর মাঠ এলাকায় নিজ বাসার সামনে থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানা পুলিশ। গ্রেপ্তারের পর নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার অফিনার ইনচার্জ (ওসি) শাহাজামান জানান, নারায়ণগঞ্জ হাই স্কুলের শিক্ষক মাহবুবুর রহমান বাদী হয়ে তাকে শিক্ষক নির্যাতনের ঘটনায় একটি জিডি করলে সেটি মামলা হিসেবে অভিযোগ নিয়ে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

এদিকে, বৃহস্পতিবার (১৪ এপ্রিল) বিকেলে সদর থানা থেকে বাবুকে বিজ্ঞ ম্যাজিস্ট্রেট ইমরান মুন্সি’র আদালতে হাজির করা হলে এডভোকেট ওয়াজেদ আলী খোকন এবং এডভোকেট হুমায়ূন সহ ২২জন আইনজীবী আসামির জামিনের জন্য আবেদন জানান। এসময় আদালত আসামিপক্ষের শুনানি শেষে তার জামিন মঞ্জুর করেন।

উল্লেখ্য, গত ১০ এপ্রিল (রোববার) দুপুরে স্কুল ছুটির সময় স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির দুই অভিভাবক সদস্য মহানগর বিএনপি’র ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক সরকার আলম ও মহানগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি ওয়াজেদ আলী খোকনের ছোট ভাই ওয়াহেদ সাদত বাবু স্কুলের সিনিয়র শিক্ষক মাহাবুবুর রহমানকে স্কুলে মাঠে প্রকাশ্যে লাঞ্ছিত করে। শুধু তাই নয় পরে স্কুলের শিক্ষকদের কক্ষে গিয়ে ওই শিক্ষককে দাঁড়ি ও পাঞ্চাবী ছিঁড়ে ফেলার এবং হাত কেটে নেওয়ার হুমকি দেয় প্রকাশ্যে। এ দুই অভিভাবক সদস্যসহ ম্যানেজিং কমিটির ৩ সদস্যের স্কুলের ষষ্ঠ শ্রেণিতে ভর্তি বাণিজ্যে বাধা দেওয়ার কারণেই শিক্ষক মাহাবুবুর রহমানের উপর হামলার ঘটনা ঘটেছে বলে ভুক্তভোগী শিক্ষক, ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি, অভিভাবক ও অন্যান্য শিক্ষকরা জানিয়েছেন।

ওই ঘটনায় সোমবার (১১ এপ্রিল) বিকেলে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় ঘটনার শিকার শিক্ষক মাহাবুবুর রহমান জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে সাধারণ ডায়েরী করেছেন।এদিকে এ ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে সোমবার সকাল থেকেই শিক্ষার্থীরা ক্লাশ বর্জন করে স্কুল মাঠে জড়ো হয়। কর্মবিরতী দিয়ে শিক্ষকরাও ঘটনার প্রতিবাদ জানাতে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেন। স্কুলের দ্বিতীয় শ্রেণি থেকে শুরু করে দশম শ্রেণি পর্যন্ত সব শ্রেণির শিক্ষার্থীরা শিক্ষক লাঞ্ছনার প্রতিবাদ করতে প্ল্যাকার্ড হাতে ক্লাশ বর্জন করে স্বতঃস্ফুর্ত ভাবে স্কুল মাঠে সমবেত হয়। বাদ ছিল না স্কুলের ছাত্রীরাও। তাদের শ্লোগানে মুখরিত হয়ে উঠে পুরো স্কুল প্রাঙ্গণ। শিক্ষার্থীদের দাবি ছিল একটাই- যে কোন মূল্যে শিক্ষক লাঞ্ছনাকারী ২ অভিভাবক সদস্যকে কমিটি থেকে বহিস্কার করতে হবে। সেই সঙ্গে পেছন থেকে ইন্ধনদাতা ম্যানেজিং কমিটির অপর এক সদস্যকেও কমিটি থেকে অপসারণ করতে হবে।

প্লেকার্ডগুলোতে ‘আলম-বাবু বহিস্কার, হাইস্কুল পরিস্কার’ ‘বাবু-আলমের গ্রেপ্তার চাই’সহ নানা শ্লোগান লেখা ছিল। এদিকে স্কুলের শিক্ষকরাও ক্লাশ বর্জন করে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ কর্মসূচিতে একাত্মতা প্রকাশ করেন। নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সামনে ঘটনার প্রতিবাদ ও দোষীদের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছেন স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদ ও হাই স্কুলের শিক্ষকবৃন্দ।

ওদিকে ঘটনার বিষয়ে জানতে নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসকের পক্ষে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) রহিমা আক্তারের নেতৃত্বে একটি টীম হাই স্কুলে গিয়ে ঘটনার শিকার শিক্ষক, স্কুলের অন্যান্য শিক্ষক, ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি এবং আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন। তারা ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের কোন ভাবেই ছাড় না দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন। দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিতেরও আশ্বাস দেন তারা।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page