সুদের জন্য বেচে দেওয়া শিশু ইউসুফ ফিরেছে মায়ের কোলে

মাত্র ৫ হাজার টাকার সুদ পরিশোধের জন্য নবজাতক সন্তানকে বিক্রি ও ৩ বছর গৃহপরিচারিকার কাজ করেও পরিশোধ হয়নি মহাজনের সুদ। সমাজে কৃতদাশ প্রথা বিলীন হলেও লাকি বেগমরা যেন সেই প্রথার পুনারবৃত্তি ঘটাচ্ছেন ঘুরেফিরে। সুদ বাবদ পাওনা টাকা আদায়ের জন্য গৃহপরিচারিকা রিনা বেগমের সদ্য প্রশব করা নবজাতককে বিক্রি করেও ক্ষ্যন্ত হয়নি কলোনীর সুদ মহাজন লাকি বেগম। এলাকার ভুক্তভোগীরা ডিবিসিকে দেখে একে একে জানালেন লাকি বেগমের পাশবিক নির্যাতনের কাহিনী।

সড়েজমিনে নারায়ণগঞ্জের পাগলা এলাকায় পিডাব্লিউডি কলোনীতে গিয়ে তথ্য অনসন্ধানে জানা যায়, লাকি বেগমের থেকে ঋণ নিয়ে অন্তত বিশগুণ সুদ পরিশোধের পরেও ঋণ ও লাকি বেগমের নির্যাতনের থেকে মুক্তি মিলেনা এমন অভিযোগ এলাকাবাসীর। নারায়ণগঞ্জের নির্মাণ শ্রমিক রিনা বেগমের ঋণের পাঁচ হাজার টাকার সুদ দুই লাখ দশ হাজার নগদ পরিশোধের পরেও এক লাখ তিন হাজার টাকা লাকি বেগমের কাছে দেনা রয়েছে এখনো। দিনে ইট ভাঙ্গার মেশিনে হাজার প্রতি মুজড়ি ভিত্তিতে কাজের আয় ও রাতে লাকির ঘরের কাজ করেও প্রশব করা সন্তানকে নিজের বুকে এগারো ঘন্টা আগলে রাখতে পারেনি শিশু ইউসুফের হতভাগিনী মা রিনা বেগম। সন্তানকে দেখতে চাওয়ায় নির্যাতনের স্বিকার হতে হয়েছে বলে অভিযোগ শিশু ইউসুফের মা রিনার। তবে পাচার হওয়া সন্তানকে এক বছর দুই মাস পর কাছে পেয়ে নিজের বুকে জাপটে ধরেছেন। এদিকে রিনা বেগমের অভিযোগের আলকে চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শেখ মহসীনের আদালত অভিযুক্ত আসামীকে এক দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দিয়েছে বলে জানা গেছে।

রোববার (১৭ এপ্রিল) রাতে তাকে মাসদাইর এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। গ্রেপ্তারের পর সোমবার সকালে তাকে সাত দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠালে আদালত একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ফতুল্লা মডেল থানার উপপরিদর্শক হারেছ শিকদার জানান, রোববার রাতে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে নবজাতক শিশুকে বিক্রির ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে। সাত দিনের রিমান্ড চেয়ে তাকে আদালতে পাঠালে আদালত এক দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে।এর আগে পুলিশ শনিবার রাতে মুন্সিগঞ্জের শ্রীনগর থানার দক্ষিন পাশা থেকে এক বছর পূর্বে বিক্রি করা শিশুটি কে উদ্ধার করে। এ সময় আটক করা হয় শিশুটিকে কিনে নেয়া রানু (৪০) নামক এক নারীকে।

বাচ্চা ক্রয় কারী আটককৃত রানু বেগম জানায়,তার একটি ছেলে ও মেয়ে রয়েছে।কিন্ত ছেলেটি প্রতিবন্ধী। তাই সে একটি ছেলে দত্তক বা ক্রয় করার জন্য পরিচিতজনদের বলে রেখেছিলো। এক বছর একমাস পূর্বে শ্যামপুর আফসার করিম রোডের মৃত আয়াত আলীর স্ত্রী সুমা তাকে ফোন করে জানায় একটি বাচ্চা বিক্রি হবে।সে তখন ৬০ হাজার টাকা দিয়ে বাচ্চাটি ক্রয় করে। বাচ্চাটির নাম রেখেছেন ইউসুফ।সুমা জানায়, তার বোন ঝর্নার মাধ্যমে জানতে পারে যে একটি বাচ্চা বিক্রি হবে।পরে সে তার মামী রানু বেগম কে জানালে সে আগ্রহ প্রকাশ করে ৬০ হাজার টাকা দিয়ে বাচ্চাটি কিনে নেয় অপরদিকে ঝর্না জানায়, আলীগঞ্জস্থ বিডব্লিউটি কলোনীর শাহালমের ভাড়াটিয়া ফারুকের স্ত্রী রুবিনা তাকে ফোন করে জানায় বাচ্চা বিক্রির কথা।

রুবিনা জানায়, লাকী বেগম তাকে বাচ্চা বিক্রির কথা জানায়।পরে ৬০ হাজার টাকার বিনিময়ে বাচ্চাটি কিনে নেয় রানু বেগম। লাকী টাকা নেয় এবং বাচ্চাটিকে তার মা নিজেই রানু বেগমের হাতে তুলে দেয়।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ