জলাবদ্ধতা নিরসনে এবার শামীম ওসমানের ১৫০ কোটির প্রকল্প

বৃষ্টি হলে পানির সামান্য একটি অংশ মাটির নিচে যায়, সৃষ্টি হয় জলাবদ্ধতা। বড় অংশই ছোট নালা, রাস্তার পাশের ক্যাচপিট (রাস্তার পাশে পানিনিষ্কাশনের ছোট পথ) হয়ে তুলনামূলকভাবে বড় আকৃতির নালায় পড়ে। সেখান থেকে পানি যায় খালে। এরপর পাম্পস্টেশনের মাধ্যমে পানি নদীতে গিয়ে জমা হয়।

শিল্প অধ্যুষিত নারায়ণগঞ্জের সদর উপজেলার বড় একটি অংশের পানি নিস্কাশনের পদ্ধতি এটি।

বর্তমানে খাল ও পাম্পস্টেশন ঢেলে সাজাচ্ছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। তারপরেও ছোট নালা, রাস্তার পাশের ক্যাচপিটে ব্যত্যয় ঘটায় এখন জলাবদ্ধতা উপজেলার মানুষের প্রধান সমস্যা। তাই প্রতিবছর শঙ্কায় থাকে স্থানীয়রা।

তবে এবার সেখানেও হাত দিয়েছে দেশের জনপ্রিয় সংসদ সদস্য ও প্রভাবশালী নেতা একেএম শামীম ওসমান। পাশাপাশি উপজেলার বাকি অংশের জলাবদ্ধতা নিরসনে ড্রেন ব্যবস্থার কাজ হবে।

১৪৯ কোটি ৭০ লাখ টাকা ব্যয়ে ‘নারায়ণগঞ্জ জেলার সদর উপজেলার জলাবদ্ধতা নিরসন’ নামের প্রকল্পের মাধ্যমে ছোট নালা, রাস্তার পাশের ক্যাচপিট উন্নয়নের পরিকল্পনা রয়েছে।

গত ১৯ এপ্রিল শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপারসন শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সেই প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়।

সম্প্রতি সদর উপজেলার চেয়ারম্যান মেম্বারদের উদ্দেশ্যে সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমান বলেছেন, ‘ফতুল্লা থানা এলাকার জন্য একটা প্রজেক্ট করেছি, সেই প্রজেক্টে ১৭৫ কোটি টাকা ছিল। ড্রেনেজ ব্যবস্থা আর রাস্তা ঘাটের জন্য। এটা কেটে এখন ১৫০ কোটি টাকার প্রকল্পে দাঁড় করানো হয়েছে। আমার জানা মতে, এটা আজকে ফাইনাল হবে। আশা করি, আগামী রোববার এটা একনেকে যাবে। এটা হয়ে যাওয়ার পরে, আমার ফতুল্লা এলাকায় মনে হয় না, আর কোন রাস্তা-ঘাট আর ড্রেনের সমস্যা থাকবে। এই কাজ গুলো আনার দায়িত্ব আমার, দেখার দায়িত্ব আপনাদের সকল চেয়ারম্যান-মেম্বার সাহেবদের।’

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ