ঢাকাবুধবার , ২০ এপ্রিল ২০২২
  1. আন্তর্জাতিক
  2. এক্সক্লুসিভ
  3. খেলা
  4. জাতীয়
  5. তথ্যপ্রযুক্তি
  6. নগর-মহানগর
  7. নাসিক-২০২১
  8. বিনোদন
  9. রাজনীতি
  10. লাইফ-স্টাইল
  11. লিড
  12. লিড-২
  13. লোকালয়
  14. শিক্ষা
  15. শিক্ষাঙ্গন

ঈদবাজারে কাঁচা বাদাম ও পুষ্পার কদর

ডেইলি নারায়ণগঞ্জ স্টাফ
এপ্রিল ২০, ২০২২ ৫:৪৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

নারায়ণগঞ্জ শহরের ডিআইটি ও কালিবাজার ফ্রেন্ডস মার্কেট মেয়েদের পোশাকের জন্য সর্বাধিক পরিচিত। ঈদের এই সময়টাতে এই দুই মার্কেটে পা ফেলার জায়গা থাকে না। এবারেও এর ব্যতিক্রম নয়। ঈদের আর বেশি দেরি নেই, তাই কেনাকাটার ধুম চলছে। এসব কিছু পরিচিত চেহারা। কিন্তু একটি বিষয় ব্যতিক্রম সেটা হল, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঝড় তুলে ঈদের বাজারেও দাপিয়ে বেড়াচ্ছে ‘কাঁচা বাদাম’। ভুবন বাদ্যকরের ভাইরাল হওয়া সেই গানের নাম দিয়ে ঈদের বাজারে দেদার বিকোচ্ছে মেয়েদের পোশাক ‘কাঁচা বাদাম’। তবে এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে ভারতের সুপার হিট পুষ্পা ছবির নাম করণে পুষ্পা ও কেজিএফ নাম করণের পোশাক।

বুধবার (২০ এপ্রিল) শহরের ডিআইটি এলাকায় বিভিন্ন দোকান ঘুরে দেখা যায়, কাঁচা বাদাম, পুষ্পা, কেজিএফ নামের জামার পসরা সাজিয়ে রেখেছেন বিক্রেতারা। ক্রেতারা আসতেই এসব পোশাকের সঙ্গে তাঁদের পরিচয় করিয়ে দিচ্ছেন। আবার অনেক ক্রেতাও দোকানে ঢুকে আগ্রহভরে দেখছেন এসব পোশাক। পরিচিত নাম হওয়ায় এসব পোশাকের চাহিদাও বেড়েছে।

হামিদ ফ্যাশনের সেলসম্যান জানান, এবারের ঈদে কাঁচা বাদাম, পুষ্পা নামের পোশাকের চাহিদা বেশি। অন্যসব জামার থেকে এসব পোশাকই বেশি বিক্রি হচ্ছে।

দোকানে কথা হয় অপর এক সেলসম্যান রাশিদের সঙ্গে। তিনি জানান, প্রতি বছরই কিছু নামের পোশাক বেশ পরিচিতি পায়। এ বছরও তার ব্যতিক্রম হয়নি। এ বছর মার্কেট জুড়ে পুষ্পা, কাঁচা কাদামের কদর বেশি। এরই মধ্যে একজন ক্রেতার প্রশ্নে  তিনি বলেন বলেন, কাঁচাবাদাম শেষ, পুষ্পা নিয়া যান।

এই মার্কেট থেকে ‘পুষ্পা’ নামের পোশাক ক্রয় করেছেন শামীমা নামের একজন নারী। তিনি বলেন, ভারতের পুষ্পা নামের ছবিটি খুবই জনপ্রিয় হয়েছিল। তাছাড়া আমার মেয়ে পোশাকটি পছন্দ করেছে। তাই কিনে দিলাম।

বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, কাঁচা বাদাম, পুষ্পা এসব পোশাক দেশেই তৈরী হয়। তাই ক্রেতাদের চাহিদা থাকায় এখনো পোশাক তৈরীর অর্ডার দিচ্ছে বিক্রেতারা। প্রতিটি পোশাক ১ হাজার ৫০০ থেকে ২ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তবে ভারতীয় পোশাক পুষ্পার দাম হাকানো হচ্ছে ৪ হাজার ২০০ টাকা ও কেজিএফ এর দাম ৪ হাজার ৪০০ টাকা।

মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্ত পরিবারের মানুষেরা নিজের সাধ্যের মধ্যে ঈদের খুশি ক্রয়ের চেষ্টা করছেন। কিন্তু দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির কারণে নিজের শখকে দমিয়ে পোশাক ক্রয় করছেন ক্রেতারা। শহরের সমবায় মার্কেটে পোশাক পছন্দ করেও সাধ্যের বাহিরে হওয়ায় নিজের ছেলে মেয়ের পোশাক কিনতে পারছেন না নাছিমা আক্তার। এই ক্রেতার সাথে কথা হলে তিনি  বলেন, পরিবারে একজনের আয়ে সংসার চলে। রমজান মাসে সব ধরনের জিনিসের দাম বেড়েছে।  ঈদের জামা কিনতে আসছি। ছেলে-মেয়ে দুজনের জন্য পোশাক কি কিনব, যে দাম বলে একজনের পোশাকই কিনতে কষ্ট হয়ে যাচ্ছে। 

নগরের মার্কেটগুলোতে কিছু দোকানে ক্রেতাদের উপস্থিতি থাকলেও অধিকাংশ বিক্রেতারাই মনে করছেন পূর্বের তুলনায় ক্রেতাদের উপস্থিতি এবার কম। বিক্রেতারা বলেন, করোনার কারণে গত দুই বছর কেনা বেচা ছিল অনেক কম। ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছি। এ বছর ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়ার আশা করেছিলাম। কিন্তু এখন পর্যন্ত ক্রেতা আগের মতো নেই। 

কালিবাজার ফ্রেন্ডস মার্কেটের বিক্রেতা আমির হোসেন দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির প্রভাব ঈদের বাজারে পড়েছে বলে মনে করছেন তিনি। তিনি বলেন, গত দুই বছর আগে রোজার শুরুর থেকেই ক্রেতাদের সংখ্যা বৃদ্ধি পায়। কিন্তু এবার এখনো সেই পরিস্থিতি হয়নি। হয়তো নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বেশি এজন্য।

আরোও পড়ুন

বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।