কাংখিত সেবা না পেয়ে বাড়ছে ক্ষোভ

না’গঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ডায়রিয়া রোগীর ভীড়

তীব্র গরমে নারায়ণগঞ্জে বাড়ছে ডায়রিয়া আক্রান্ত শিশুর রোগীর সংখ্যা। ১ থেকে ৫ বছর বয়সী শিশুদের পাশাপাশি নবজাতকরাও আক্রান্ত হচ্ছে। মার্চের শুরু থেকে জেলায় ডায়রিয়ার প্রকোপ বাড়লেও বর্তমানে কম বয়সীদের আক্রান্তের হার বেড়েছে বলে জানিয়েছে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ।

এদিকে হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে গিয়ে একদিকে কাংখিত সেবা না পাওয়া অন্যদিকে নার্সদের র্দুব্যবহারের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন রোগীদের স্বজনরা।

বুধবার (২০ এপ্রিল) বিকালে নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে (ভিক্টোরিয়া) ঘুরে দেখা যায়, ডায়রিয়া ওয়ার্ডে আক্রান্তদের উপচে পড়া ভীড়। হাসপাতালের ডায়রিয়া ওয়ার্ডের বারান্দাতেও জায়গা নেই। রোগী সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছেন চিকিৎসকরা। অনেক শিশুদের কাহিল অবস্থায় নিয়ে আসছেন তাদের স্বজনরা। অধিক রোগী হওয়ায় এক বেডে একাধিক রোগীকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

হাসপাতালে অসুস্থ শিশুকে ভর্তি করার আগে দুই বছরের শিশু আনিসা মায়ের কোলে কাতরাচ্ছে। অশ্রুসজল চোখে দিশেহারা মা ওয়ার্ডে একটি বেড পাওয়ার অপেক্ষায় দাড়িয়েছিলেন। মেয়ের কষ্টে কথা বলতে পারছিলেন না। বেড না পাওয়ায় অন্য একটি শিশুর পাশেই শুইয়ে দিয়ে স্যালাইন পুশ করেন নার্স।

কান্নাজড়িত কণ্ঠে আনিসার মা আশা বেগম বলেন, সকাল থেকে মেয়ের পেট খারাপ। প্রথমে ঘরোয়াভাবে চিকিৎসা করি। কিন্তু অবস্থা আরো খারাপ হয়েছে। এজন্য এখানে নিয়ে আসছি।

সাংবাদিক এম আর কালাম জানান, তার নাতি সায়মা হাসান সিলভীকে মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১২টায় হাসপাতালে নিয়ে আসেন। সেখানে দুটি স্যালাইন দিয়ে বাসায় নিয়ে যেতে বলে। কিন্তু বাসায় আনার পর অবস্থা আবার খারাপ হয়ে যায়। পরে বুধবার সকাল সাড়ে ৮টায় দ্রুত অ্যাম্বুলেন্সযোগে মহাখালী কলেরা হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করি।

সাংবাদিক এম খান মিঠু জানান, তার মেয়ে মঙ্গলবার রাত থেকে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়। হাসপাতালে নিয়ে সন্তোষজনক চিকিৎসা পাইনি। বর্তমানে বাসায় রেখেই তার চিকিৎসা করানো হচ্ছে।

চিকিৎসা নিতে আসা অনেক ডায়রিয়া রোগীর স্বজনরা অভিযোগ করেন, হাসপাতালের নার্সদের অসৌজন্যমূলক আচরন আমাদের অনেক কস্ট দিয়েছে। দশবার বললে একবার জবাব দেয়। আবার সামান্যতেই রেগে যায়।

হাসপাতালের তথ্যমতে, এপ্রিলের শুরু থেকে বুধবার বিকাল ৫টা পর্যন্ত মোট  ৫ হাজার ৩৯৫ জন ডায়রিয়া জনিত কারণে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়া ২০ এপ্রিল সকাল ৮ থেকে বিকাল পাঁচটা পর্যন্ত ১৫৮ জন রোগী ভর্তি হয়েছেন। যার মধ্যে অধিকাংশ শিশুরোগী।  ১৯ এপ্রিল সারাদিনে শিশু রোগী ভর্তি হয় ৮৪ জন, ১৮ এপ্রিল ছিল ১৩৭ জন, ১৭ এপ্রিল ছিল ৯৬ জন, ১৬ এপ্রিল ছিল ১০৭ জন, ১৫ এপ্রিল ছিল ৯৪ জন, ১৪ এপ্রিল ছিল ৯৬ জন, ১৩ এপ্রিল ১১১ জন শিশু রোগী ভর্তি ছিলেন। এছাড়াও প্রতিদিন প্রায় শতাধিক শিশু রোগীর বহি.বিভাগে চিকিৎসা হচ্ছে।

শিশু হাসপাতালের দায়িত্বরত নার্সরা জানান, মাসের শুরুর দিকে রোগীর চাপ থাকলেও এখন শিশুদের সংখ্যা কম ছিল। কিন্তু এখন অন্যান্য রোগীর পাশাপাশি শিশুদের সংখ্যাও বাড়ছে। প্রতিদিন গড়ে ৮০-৯০ জন শিশু রোগী ভর্তি হচ্ছে। শিশুদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম থাকায় গরমে সহজেই তারা ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছে। আমরা রোগীদের প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছি।

হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল কর্মকর্তা (আরএমও) ডা. এস কে ফরহাদ হাসপাতালে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত শিশু রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধির বিষয়ে বলেন, শিশুদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম থাকায় গরমে সহজেই তারা ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছে। গরমের মাত্রা দিন দিন বাড়ছে। আবহাওয়া পরিবর্তনের কারণে এই সমস্যা দেখা দিচ্ছে। অধিক তাপমাত্রায় খাবারে দ্রুত জীবাণু জন্ম নেয়। এছাড়া রাস্তার খাবার, লেবুর শরবত। সবাই একসঙ্গে এসব খাচ্ছে এবং রোগটি ছড়াচ্ছে।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ