৭ খুন ইস্যুতে বিউটি

আ’লীগ করেও বিচার না পাওয়া দুক্ষজনক

- Advertisement -

২৭ এপ্রিল বুধবার নারায়ণগঞ্জে আলোচিত সাত খুনের আট বছর পূর্ণ হতে যাচ্ছে। এরই মধ্যে বিচারের দুটি ধাপ সম্পন্ন হয়েছে। নিন্ম আদালত ও হাইকোর্টে বিচারিক আদালতের কার্যক্রম শেষে বর্তমানে আপিল বিভাগে মামলা বিচারাধীন রয়েছে। তবে বিচারের এই দীর্ঘ সূত্রতার কারণে হতাশা প্রকাশ করেছেন ভুক্তভোগী পরিবারের স্বজনরা।

হত্যাকান্ডের শিকার ওই সময়ের সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র ও যুবলীগ নেতা নজরুল ইসলামের স্ত্রী সেলিনা ইসলাম বিউটি বিউটি বলেন, ‘এটা দুঃখজনক যে আওয়ামী লীগ কইরা যদি আওয়ামী লীগের আমলে বিচার না পাই তাইলে এর চাইতে দুঃখের কিছু দুনিয়াতে নাই। সে সারাজীবন আওয়ামী লীগ কইরা গেছে। আর আওয়ামী লীগের আমলে র‌্যাব বাহিনী তারে নির্মমভাবে হত্যা করলো। বিচার বলতে হাইকোর্টের রায়ের পর থেকে আপিল বিভাগে সব কিছু আটকে আছে। ওরা (নূর হোসেন) টাকা পয়সা দিয়ে কার্যক্রম আটকে রাখছে। আসলে প্রধানমন্ত্রী চাইলেই বিচারটা হয়। উনার উপরেই সবকিছু। উনার কাছে আমাদের প্রার্থনা, উপরে আল্লাহ নিচে উনি। প্রধানমন্ত্রী যেন আমাদের ৭ পরিবারের দিকে তাকায়া বিচারটা কার্যকর করে। মানুষ তো আর ফিরে পাবো না, কিন্ত আত্মার যেন শান্তিটা হয়।’

বিচারের বিষয়ে নিহত লিটনের ছোট ভাই মিন্টু বলেন, ‘এটা বলার অপেক্ষা রাখে না, যে আমরা ৮ বছরেও বিচারের রায় কার্যকর হতে দেখলাম না। মামলা আছে সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগে আটকে। মামলাটা রানিং না, স্টপ করে রাখা হয়েছে। কতদিন এভাবে ঝুলে থাকবে আমরা কেউ জানিনা। হাইকোর্ট যেই রায় দিয়েছে সেই রায়টা যদি দ্রুত কার্যকর হতো তাহলে খুশি হতাম। সত্যি বলতে আমরা অনেক হতাশ। একটা আলোচিত বিচার যদি ৮ বছরেও কার্যকরের দিকে না যায় তাহলে আর কি প্রত্যাশা রাখবো? আমার মনে হয় না এই বিচার আর কার্যকর হওয়া সম্ভব।’

সাতখুনে নিহতদের অনেকের পরিবারই তাদের আড়াল করে ফেলেছেন গণমাধ্যম কর্মীদের কাছ থেকে। কেউ কেউ নিজেদের ঠিকানা পাল্টে মুছে  ফেলতে চাইছেন অতীতের দুঃসহ স্মৃতি। আর তাই অনেক পরিবারের সাথেই যোগাযোগ করা খুব একটা সহজ হয়না।

হত্যার ৮ বছরে নিহত লিটনের পরিবার কোন আয়োজনই করছে না। তবে লিটনের আত্মার মাগফেরাতের জন্য মাদ্রাসায় দোয়ার আয়োজন করবেন। একই ভাবে কাউন্সিলর নজরুলের পরিবারের তরফ থেকে বুধবার সকাল ৯টায় কোরআন খতম এবং দোয়ার আয়োজন করা হয়েছে।

২০১৪ সালের ২৭ এপ্রিল কাউন্সিলর নজরুল সহ সাতজন ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোড থেকে অপহৃত হয়। ওই ঘটনার তিন দিন পর শীতলক্ষ্যা নদীতে সাতজনের লাশ ভেসে ওঠে। প্রত্যেকের লাশের সাথে বাঁধা ছিলো রশি ও ইট। যা দেখে অনেকেই একে পেশাদার এবং প্রশিক্ষিত ব্যক্তির কাজ বলে শনাক্ত করেন। সেই থেকে নারায়ণগঞ্জের সাতখুন ঘটনাটি সারা দেশে ব্যপক আলোচিত।

সাতখুনে নিহত ব্যক্তিরা হলেন, সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম, আইনজীবী চন্দন সরকার, যুবলীগ নেতা মনিরুজ্জামান স্বপন, স্বপনের গাড়ির চালক জাহাঙ্গীর আলম, নজরুলের সহযোগী তাজুল ইসলাম, নজরুলের বন্ধু সিরাজুল ইসলাম লিটন ও চন্দন সরকারের গাড়িচালক ইব্রাহিম হোসেন।

লাশ উদ্ধারের পর নিহত কাউন্সিওর নজরুল ইসলামের স্ত্রী সেলিনা ইসলাম বিউটি ও আইনজীবী চন্দন সরকারের জামাতা বিজয় কুমার বাদী হয়ে ফতুল্লা মডেল থানায় পৃথক দুটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এই মামলায় ২০১৭ সালের ১৬ জানুয়ারি নারায়ণগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালত সাবেক কাউন্সিলর নূর হোসেন, র‌্যাব-১১ চাকরিচ্যুত সাবেক অধিনায়ক লে. কর্নেল তারেক সাঈদ, মেজর আরিফ হোসেন, লে. কমান্ডার রানাসহ ২৬ জনকে মৃত্যুদন্ড এবং ৯ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা প্রদান করেন। এই রায়ের বিরুদ্ধে ২৮ আসামী উচ্চ আদালতে আপিল করেন। ২০১৮ সালে ২২ আগস্ট উচ্চ আদালত ১৫ জনের মৃত্যুদন্ডের আদেশ বহাল রাখেন এবং ১১ আসামীকে যাবজ্জীবন দন্ড প্রদান করেন।

প্রসঙ্গত নারায়ণগঞ্জবাসীর ললাটে কলঙ্ক এটে দেয়া আলোচিত সাত খুনের নৃশংসতা শুধু নারায়ণগঞ্জবাসীকেই নয় পুরো বিশ্ববাসীকেও নাড়া দিয়েছিল। দেশের গন্ডি পেরিয়ে আর্ন্তজাতিক গণমাধ্যমেও আলোচিত ছিল ৭ খুনের ইস্যুটি। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর এলিট ফোর্স র‌্যাব সদস্যদের সম্পৃক্ততায় নারায়ণগঞ্জের ইতিহাসে তো বটেই দেশের ইতিহাসেও ন্যাক্কারজনক ঘটনার একটিতে পরিণত হয়েছিল ৭ খুনের ঘটনাটি। তবে আলোচিত ওই হত্যাকান্ডের ৬ বছর পূর্ণ হলেও অদ্যাবধি হত্যাকান্ডের রায় বাস্তবায়ন হয়নি। নিম্ন আদালতের পরে হাইকোর্টেও দ্রুত রায় ঘোষণা করা হলেও আপিল বিভাগে রায়টি নিস্পত্তি হতে ধীরগতির অভিযোগ করেছেন নিহতের স্বজনরা।

নারায়ণগঞ্জে আলোচিত সাত খুন মামলার প্রধান আসামী নাসিকের বরখাস্তকৃত কাউন্সিলর নূর হোসেন, র‌্যাবের চাকরিচ্যুত অধিনায়ক লে. কর্নেল (অব:) তারেক সাঈদ মোহাম্মদ, উপ অধিনায়ক মেজর (অব:) আরিফ হোসেন ও ক্যাম্প ইনচার্জ লে. কমান্ডার (অব:) এম এম রানাসহ ২৬ জনের ফাঁসির আদেশ দেন আদালত। বাকি ৯ জনের মধ্যে অপহরণ ও লাশ গুমের সঙ্গে জড়িত থাকায় এক আসামীকে ১৭ বছর, অপহরণের সঙ্গে জড়িত থাকায় ৬ জনকে ১০ বছর এবং লাশ গুমে জড়িত থাকায় ২ জনকে ৭ বছরের কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত।

পরবর্তীতে ২০১৭ সালের ২২ আগস্ট সাত খুন মামলায় সাবেক কাউন্সিলর ও আওয়ামী লীগ নেতা নূর হোসেন, র‌্যাব-১১-এর সাবেক অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল (অব.) তারেক সাঈদ মোহাম্মদ, সাবেক কোম্পানি কমান্ডার মেজর (অব.) আরিফ হোসেনসহ ১৫ জনের মৃত্যুদন্ডের রায় বহাল রেখেছেন হাইকোর্ট। বাকি ১১ জনের মৃত্যুদন্ড পরিবর্তন করে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দেওয়া হয়েছে।

রায়ে যে ২৬ জনের মধ্যে মৃত্যুদন্ড দিয়েছিল নারায়ণগঞ্জের নিম্ন আদালত তাদের মধ্যে প্রধান চার আসামী সহ ১৫জনের মৃত্যুদন্ড তথা ফাঁসির আদেশ বহাল রাখে হাইকোর্ট। মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত বাকি ১১জনকে সাজা কমিয়ে যাবজ্জীবন দন্ড দেওয়া হয়েছে।

আরোও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page