না’গঞ্জের কদমরসুল দরগাহর ৫০০ বছরের ইতিহাস

- Advertisement -

শীতলক্ষ্যার পূর্ব পাড়ে ৫০০ বছরের ইতিহাসের নিরব স্বাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে রয়েছে নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলার নবীগঞ্জে অবস্থিত ঐতিহাসিক কদম রসুল দরগাহ শরীফ। যেখানে রয়েছে বিশ্বের সর্বশ্রেষ্ঠ মানব সর্বশেষ নবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর পদচিহ্ন সম্বলিত পবিত্র কদম মোবারক।প্রায় ৫০০ বছর পূর্বে হাজী নূর মোহাম্মদ নামক এক তাপস ও সাধক পুরুষ আরব দেশ থেকে এই কদম রসূল নিয়ে নবীগঞ্জে আসেন। এরপর নবীপ্রেমে অনেক অলিগণ এসে সেখানেই গোটা জীবন কাটিয়ে দেন। যার মধ্যে রয়েছেন বেশ কয়েকজন বিদেশীও। পরে মোঘল আমলে নির্মিত হয় দরগাহ। প্রতি বছর দূর দূরান্ত থেকে কদমরসুলের বরকতের আশায় ছুটে আসেন লাখো ভক্ত-অনুরাগী-আশেকানগন।

কদমরসূলের ইতিহাস: মির্জা নাথান এর “বাহারিস্থান-ই-গায়বী” গ্রন্থ ও বিভিন্ন ঐতিহাসিক সূত্রের আলোকে এবং খাদেম পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে আলাপকালে জানা গেছে, অন্তত সাড়ে ৪ শতাধিক বৎসর পূর্বে আরব দেশ থেকে হাজী নূর মোহাম্মদ নামক এক তাপস ও সাধক পুরুষ হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) এর পবিত্র পদচিহ্নটি (পদাঙ্গুলী চিহ্নিত পবিত্র কাল পাথর) বাংলাদেশে নিয়ে আসেন। এই “পদচিহ্ন” কদম রসূলের কারণে এই এলাকার নামকরণ “কদম রসূল” হয়। এছাড়া ওয়ার্ডের নামও নবীগঞ্জ হিসেবে পরিচিতি লাভ করে।

জানা গেছে, ঈশা খাঁ তার সেনাপাতিগণের মাধ্যমে কদম মোবারকের সন্ধান লাভ করেন এবং এখানে এসে পদচিহ্ন দেখে আকৃষ্ট হন এবং ফয়েজ ও বরকত লাভের আশায় পদচিহ্নের উছিলায় মহান আল্লাহর দরবারে দোয়া প্রার্থনা করেন। তিনি কদম মোবারকের ফয়েজ ও বরকত লাভে সন্তুষ্ট হয়ে পবিত্র কদম মোবারকটি (পদচিহ্ন) সম্মান ও মর্যাদা বৃদ্ধি কল্পে উপযুক্ত উঁচু স্থানে স্থাপন করার জন্য আফগান সেনাপতি মাসুম খাঁন কাবুলিকে (যিনি সম্রাট আকবরের প্রচারিত ধর্মীয় মতবাদ দীনে এলাহি এর বিরুদ্ধাচরণ করে যুদ্ধ করেছিলেন এবং পরবর্তীতে বঙ্গে এসে ঈশা খাঁর সাথে যোগ দেন) দায়িত্ব প্রদান করেন। মাসুম খাঁন কাবুলির নেতৃত্বে বর্তমান কদমরসুল দরগাহ শরীফের পূর্বদিকে একটি পুকুর খনন পূর্বক সংগৃহীত মাটি দ্বারা প্রায় ৩০ (ত্রিশ) ফুট উঁচু বিরাট এলাকা নিয়ে একটি টিলা তৈরী করে টিলার ঠিক মাঝখানে একটি কক্ষে পবিত্র কদম মোবারক (পদচিহ্ন) সংরক্ষণ করার ব্যবস্থা করেন।

পরবর্তিতে ঢাকার জমিদার দরবারের ভক্ত গোলাম নবী ১৭৭৭-৭৮ সালে উক্ত উচু স্থানে এক গম্বুজ বিশিষ্ট একটি কক্ষ নির্মান করে দেন। পরবর্তীতে ধর্মপ্রাণ ভক্তরা বিভিন্ন সময় ভক্তির নিদর্শন স্বরূপ এখানে বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণ করেন। বর্তমানে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন ও খাদেম পরিবারের সদস্যরা বিভিন্ন সংস্কার কাজ করছেন।

জানা গেছে, নদীবহুল বাংলাদেশে তৎকালে নৌবহর নিয়ে সম্রাট, রাজা, বাদশা, সেনাপতিগণ চলাচল করতেন। এমনভাবে সম্রাট জাহাঙ্গীর এর আমলে তার সেনাপতি ইহাতিমাম খাঁন, তার পুত্র মির্জা নাযান, শাহাজাদা খুররম, সম্রাট শাহজাহানও এই দরগাহ্ শরীফ পরিদর্শনে জিয়ারতে আসেন।মির্জা নাথান এর গ্রন্থ অনুযায়ী, কদম রসূল দর্শন করে সম্রাট শাহজাহান দরগাহের খাদেমগণের সঙ্গে সাক্ষাৎ এবং কদম মোবারক (পদচিহ্ন) এবং দরগাহ রক্ষনাবেক্ষণের জন্য হাজী নূর মোহাম্মদকে তিনি ৮০ (আশি) বিঘা করমুক্ত জমি দানের ওয়াদা করেন। শাহজাহান পুত্র শাহসুজা বাংলার সুবেদার নিযুক্ত থাকা কালীন সেই ওয়াদা বাস্তবায়নে দুই সনদে যথাক্রমে ৬০ এবং ২০ বিঘা জমি (যাহা সম্পূর্ণ করমুক্ত) দান করে শাহি ফরমান জরী করেন যা হাজী নূর মোহাম্মদ ওয়াকদ এস্টেট (আল-হাওলাদ) হিসাবে গণ্য এবং বর্তমানেও পরিচিত। দরগাহ শরীফের খাদেমগণ ইহার সর্বপ্রকার রক্ষনাবেক্ষণ করে থাকেন।

তবে বিভিন্ন সময়ে দরবারের ৮০ বিঘা সম্পত্তির কিছু অংশ বিভিন্ন প্রভাবশালী বহিরাগত দ্বারা বেহাত হয়েছে। কদম রসূল দরগাহ্ শরীফ ৩০ ফুট উঁচু একটি টিলায় স্থাপিত। সামনে (পশ্চিম) দিকে স্থাপত্য নকশায় মনোরম স্থাপনার প্রধান প্রবেশদ্বার। যেখানে রয়েছে কষ্টিপাথরের দ্বারা নির্মিত কারুকার্য সম্বলিত চৌকাঠ। দরবারের ভক্ত ঢাকার জমিদার গোলাম নবির ছেলে গোলাম মুহাম্মদ ১৮০৫-০৬ সালের দিকে এই প্রধান ফটকটি নির্মান করে দেন। এই স্থাপনা সংলগ্নে (পূর্ব প্রান্তে) উত্তর দক্ষিণে একটি মুক্ত স্থান। যাতে ঈদের নামায, জানাযা এবং বিভিন্ন ধর্মীয় অনুষ্ঠানাদিতে ব্যবহৃত হয়। উত্তর দিকে একটি সুন্দর মসজিদ। বর্তমানে যার দ্বিতীয় তলায় নির্মান কাজ চলছে। মাঝখানে কদম মোবারক রাখার (পাইতিঘর) ঘর। শুরু থেকে কদম মোবারক একটি পাত্রে রাখা হলেও ২০১৪ সালের ৯ অক্টোবর থেকে স্বচ্ছ কাচের বেষ্টনীতে রাখা হয়েছে। কদম মোবারকটি স্থাপনের জন্য চার ফুট ব্যসার্ধের একটি চৌকিতে আধুনিক মার্বেলে বেষ্টন করে উপরিঅংশে ষ্টিল ফ্রেমের মধ্যে উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন স্বচ্ছ কাচের বেষ্টনিতে রাখা হয়। কদম মোবারকে সার্বক্ষনিক বিশুদ্ধ পানি প্রবাহের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে, যে পানি আগত ভক্ত-অনুরাগী-আশেকানগন পান করেন।

দক্ষিণ দিকে কবরস্থান হিসেবে বিদ্যমান যাতে হাজী নূর মোহাম্মদ (রহঃ) সাহেবের মাজার। তাছাড়া হযরত শাহজালাল (রহঃ) এর একজন অন্যতম সাথী শেখ বোরহান উদ্দিন (রহঃ) যিনি ধর্ম প্রচারে অত্র অঞ্চলে এসেছিলেন তার মাজার বিদ্যমান। সম্রাট জাহাঙ্গীরের সেনাপতি ইহতিমাম খাঁন এর মাঝার এই দরবার শরীফে রয়েছে। এ ছাড়া নাম না জানা অনেক অলিগণের মাজার এখানে রয়েছে। দরবারের পূর্বদিকের সিড়ির পাশেই মহিলাদের নামাজের জন্য রয়েছে একটি আলাদা ঘর। দরবার শরীফে উঠার জন্য চারদিকে চারটি সিঁড়ি রয়েছে। রয়েছে সামনে আধুনিক ওজুখানা এবং এস্তেঞ্জাখানা। আরো রয়েছে বিভিন্ন গাছগাছরা। সব মিলিয়ে অপূর্ব মনোরম পরিবেশ। প্রতি বছর রবিউল আউয়াল মাসের ১১ তারিখ দিনগত রাতে এখানে জিকির আসগারের ব্যবস্থা করা হয় এবং দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে অসংখ্য ভক্তবৃন্দ এখানে আসেন।

খাদেম পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে আলাপকালে জানা গেছে, অনুরুপ একটি পবিত্র কদম রসুল জেরুজালেমে দেখা যায়; যা নবী করিম (সঃ) মিরাজ এর সময় যেখানে অবস্থান করেছিলেন আল্লাহর কুদরতে নবীজির বসার স্থানে পবিত্র কদম মোবারকের চিহ্ন পাথরের উপর পড়েছিল। তাছাড়া একটি পদচিহ্ন ইস্তাম্ভুলে টপকাপি মিউজিয়ামে সংরক্ষিত আছে। ভারতের মধ্যে দিল্লি এবং বাহরাইচ (উত্তর প্রদেশ), আহমেদাবাদ (গুজরাট), এবং মুর্শিদাবাদেও (পশ্চিমবঙ্গ) রয়েছে। এই পবিত্র স্মৃতি পদচিহ্নযুক্ত (কদম মোবারক) দরগাহে সর্বদাই দেশ বিদেশের ধর্মপ্রাণ সকলশ্রেণীর লোকজন দর্শন করেন এবং ধর্মীয় বিধি-বিধান মতে শ্রদ্ধা নিবেদন করে থাকে।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page