গণতন্ত্র হত্যা করে দেশকে পুলিশি রাষ্ট্রে পরিণত করা হয়েছে : আব্দুস সালাম

- Advertisement -

স্বৈরাচারী সরকার অবৈধভাবে ক্ষমতায় আসার পর, একটার পর একটা দেশ বিরোধী আইন প্রতিষ্ঠা করেছে। অনৈতিক ভাবে দেশকে ধ্বংসের মুখোমুখি করা হচ্ছে। দেশের নির্বাচন ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে জনগণকে নির্বাচন বিমুখ করা হয়েছে। গণতন্ত্র হত্যা করে দেশকে পুলিশি রাষ্ট্রে পরিণত কার হয়েছে। দেশব্যাপী আওয়ামী সন্ত্রাস, নৈরাজ্য ও দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির প্রতিবাদে জেলা ও মহানগর বিএনপির আয়োজনে প্রতিবাদ সভায় প্রধান বক্তার বক্তব্য বিএনপি’র ঢাকা বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ এমন মন্তব্য করেছেন। শনিবার (১৪ মে) বিকালে নারায়ণগঞ্জের কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে এ প্রতিবাদ সভার আয়োজন করা হয়।

এসময় অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ বলেন, আজকে দেশে কোনো নির্বাচন ব্যবস্থা নেই, এক দলীয় শাসন ব্যবস্থা কায়েম করা হয়েছে। বাকশাল কায়েমের মাধ্যমে দেশের সকল রাজনৈতিক দলগুলোর কার্যক্রম বন্ধ করা হচ্ছে। অন্যদিকে বর্তমানে দেশে কোন আইনের শাসন নেই, আইনের শাসন বন্ধ করে দেশকে পুলিশি রাষ্ট্রে পরিণত করা হয়েছে। এইজন্য দেশের স্বাধীনতার যুদ্ধ করা হয় নাই, এই জন্য জিয়াউর রহমান স্বাধীনতার ঘোষণা করেন নাই।

তিনি বলেন, বাংলাদেশকে মুক্ত করতে হবে, গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে হবে। আজকে দেশে পর্যাপ্ত নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য মজুদ থাকলেও একটি সরকারি সিন্ডিকেটের মাধ্যমে তা পরিচালিত হচ্ছে। ফলে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি কোন ভাবেই রোধ করা যাচ্ছে না। দুর্নীতিবাজদের দ্বারা বাণিজ্যিক নীতি বান্ধব দেশ গড়ে তোলা হচ্ছে। এভাবে তো দেশ চলতে পারেনা। গণতন্ত্রের প্রতিষ্ঠায় এই সরকারের বিপক্ষে কথা বলায় তারেক রহমানকে মিথ্যা মামলায় জড়ানো হয়েছে। দেশনেত্রী খালেদা জিয়া যদি মানুষের কাছে যেতে পারতেন, তবে শেখ হাসিনা অবৈধ নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতায় বসে থাকতে পারতেন না। এজন্যই বেগম খালেদা জিয়াকে গৃহবন্দি করে রাখা হয়েছে।

তিনি আরোও বলেন, আজকে তারেক রহমানকে যদি মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে হয়রানি করা হতো, তিনি যদি আমাদের বাসায় থাকতেন তবে এই ফ্যাসিবাদী সরকার এক মিনিটও ক্ষমতায় টিকতে না। জননেতা তারেক রহমানের হাত ধরেই শেখ হাসিনার সরকারের কবর রচনা হত। তারেক রহমানকে দেশে আসতে দেন আর না দেন, আপনাদের স্পষ্ট করে বলতে চাই, এই বছরের মধ্যেই তারেক রহমানের হাত ধরে আওয়ামী ফ্যাসিবাদী সরকারের কবর রচনা করা হবে। শুধু আমাদের সকলকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। আওয়ামী লীগ সরকারের তথ্য মন্ত্রী হাসান মাহমুদেক উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, হাছান মাহমুদ পালাবার রাস্তা পাবে না। হসান মাহমুদ, প্রধানমন্ত্রী আপনারা ঐ শ্রীলংকার দিকে তাকান, পাকিস্তানের দিকে তাকান, আজকে তারা পালিয়েও যেতে পারছেন না। পুলিশ প্রশাসনকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আপনারা জাতির পাহারাদার, আওয়ামী লীগের পাহারাদার হবেন না, শেখ হাসিনার পাহারাদার হবেন না, এ কারণে বাংলাদেশের মাটিতে আপনাদেরও একদিন জবাব দিতে হবে।

জেলা বিএনপির আহ্বায়ক মনিরুল ইসলাম রবির সভাপতিত্বে জেলা বিএনপির যুগ্ন আহ্বায়ক জাহিদ হাসান রেজেল ও মহানগর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আবু আল ইউসুফ খান টিপুর সঞ্চালনায় প্রতিবাদ সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ব্যারিষ্টার মো. শাহজাহান ওমর বীর উত্তম। অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এ্যাড. আব্দুস সালাম আজাদ। এছাড়াও বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সহ-আন্তর্জাতিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম আজাদ, বিশেষ বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক আব্দুস সবুর খান সেন্টু ও জেলা ও মহানগর বিএনপির অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page