প্রধানমন্ত্রী সুষ্ঠু নির্বাচন দিতে ভয় পায় : শাহ্জাহান

- Advertisement -

প্রধানমন্ত্রী সুষ্ঠু নির্বাচন দিতে ভয় পায়। সুষ্ঠু নির্বাচনতো দূরের কথা সে অসুষ্ঠু নির্বাচনও দেবে না। এভাবে নির্বাচন করতে দেয়া হবে না। এই নির্বাচন কমিশন বেহুদা কমিশন, এই বেহুদা কমিশনের মত নির্বাচন কমিশন দিয়ে আর নির্বাচন করতে দেয়া যাবে না। যে কোন মূল্যে তত্বাবধায়ক সরকার প্রতিষ্ঠিত করে তত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে।দেশব্যাপী আওয়ামী সন্ত্রাস, নৈরাজ্য ও দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির প্রতিবাদে জেলা ও মহানগর বিএনপির আয়োজনে প্রতিবাদ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিএনপি’র ভাইস চেয়ারম্যান ব্যারিষ্টার শহ্জাহান ওমর এমন মন্তব্য করেছেন। শনিবার (১৪ মে) বিকালে নারায়ণগঞ্জের কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে এ প্রতিবাদ সভার আয়োজন করা হয়।

ব্যারিষ্টার শহ্জাহান ওমর বলেন, প্রকৃত নির্বাচনে আওয়ামী লীগ কখনও বিএনপির সাথে বিজয়ী হতে পারেনি। আমি উধাহরণ দিয়ে বলতে চাই, ৭৩ সালে তারা একদলীয় নির্বাচন করেছে। এর পরে তারা প্রতিবার লজ্জাজনক ভাবে হেরেছে। ৯৬ সালে মখা আলমগীরের নেতৃত্বে জনতার মঞ্চ করে অল্প কিছু ভোটের ব্যবধানে জিতেছিলেন। ২০০১ সালে তারা আরও খারাপ ভাবে হেরেছিল। এক এগারোর সরকারের সময় কারচুপি করে হাসিনাকে ক্ষমতায় বসানো হয়েছে। এর পরে যা ঘটেছে সেই ঘটনা আপনারা সবাই জানেন। সংগ্রামী ভাইয়েরা আপনাদের ব্যানারে লেখা প্রতিবাদ। শেখ হাসিনা কি প্রতিবাদ বোঝেন? সে বোঝে না। সে শুধু বোঝে মুগুরবাদ। এ হল আজকের বক্তব্যের সারমর্ম। প্রতিবাদ করে লাভ নেই, প্রতিবাদ করে লাভ হবে না। সুন্দর কথা তিনি (শেখ হাসিনা) বোঝেন না। এবার প্রতিরোধ করতে হবে, প্রয়োজনে মুগুরবাদও দিতে হবে। আগামীতে আমরা বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের নেতৃত্বে অবশ্যই আমরা নারায়ণগঞ্জের পাঁচটা সিট বেগম খালেদা জিয়াকে উপহার দিতে সক্ষম হব।

তিনি বলেন, হঠাৎ আওয়ামী লীগের কিছু নেতার শুভবুদ্ধির উদয় হয়েছে দেখে ভাল লাগলো। এই কিছুদিন আগে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সাহেব বলেছেন ফরিদপুরে আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ শেখ হাসিনার আত্নীয় পরিচয়ে হাজার হাজার কোটি টাকা লুটপাট করেছে, একই ভাবে বিভিন্ন জেলায় তারা এই লুটপাট চালাচ্ছে। আমরা ও ক্ষমতায় ছিলাম। আমরা কোটি টাকা চোখেও দেখিনি, আর আজকে ইউনিয়ন পর্যায়ের নেতারাও কোটি কোটি টাকার মালিক। আওয়ামী লীগই আজকে আওয়ামীলেিগর বড় শত্রু হয়ে দাড়িয়েছে। আপনার (শেখ হাসিনা) ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয় তিনি নাকি কম্পিুটার বিজ্ঞানী। তার বেতন দুই লক্ষ ডলার। এ টাকা উৎস কি, কোথা থেকে আসে এই টাকা? জনগণ কি তাকে কখণোই প্রশ্ন করবে না। তিনি প্রবাসে থেকে কি এমন কাজ করছে যে তাকে প্রতি মাসে এত টাকা দিতে হবে।

তিনি বলেন, আজকে কোথায় গণতন্ত্র? দেশে শুধু পরিবার তন্ত্র কায়েম করেছে আওয়ামী লীগ সরকার। জাতীয় সংসদে শুধু শেখ হাসিনার পরিবারের ৪১ জন সংসদ সদস্য রয়েছেন। শ্রীলংকার দিকে তাকালে দেখতে পাবেন, সেখানে এমপি মন্ত্রীদের ধরে মানুষ মুগুরবাদ দিচ্ছে। আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চারটি বিশেষ গুণ রয়েছে। কি সেই গুণ? তার গুণ হলো হামলা, মামলা, গুম, খুন। সাত খুন কোথায় হয়েছিল, এই নারায়ণগঞ্জে। আপনারা সবাই যদি জাগতে পারেন তাহলে তারা পালাবে।

জেলা বিএনপির আহ্বায়ক মনিরুল ইসলাম রবির সভাপতিত্বে জেলা বিএনপির যুগ্ন আহ্বায়ক জাহিদ হাসান রেজেল ও মহানগর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আবু আল ইউসুফ খান টিপুর সঞ্চালনায় প্রতিবাদ সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ব্যারিষ্টার মো. শাহজাহান ওমর বীর উত্তম। অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এ্যাড. আব্দুস সালাম আজাদ। এছাড়াও বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সহ-আন্তর্জাতিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম আজাদ, বিশেষ বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক আব্দুস সবুর খান সেন্টু, মহানগর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আবু আল ইউসুফ খান টিপু, জেলা যুবদলের আহবায়ক গোলাম ফারুক খোকন, সদস্য সচিব মশিউর রহমান রনি, মহানগর যুবদলের আহবায়ক মমতাজ উদ্দিন মন্তু, সদস্য সচিব মনিরুল ইসলাম সজল, মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি শাহেদ আহমেদ ও জেলা ও মহানগর বিএনপির অঙ্গসংগঠনের অন্নান্য নেতাকর্মীরা।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page