ফতুল্লার শিক্ষার্থী ধ্রুব হত্যা মামলায় ৬ জন গ্রেফতার

কিশোরগ্যাংয়ের হামলায় নিহত শিক্ষার্থী ধ্রুব চন্দ্র দাশের ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা মডেল থানায় নিহতের পিতা মধাব চন্দ্র দাস বাদি হয়ে বুধবর (১৮ মে) মামলাটি দায়ের করেন। এত দশ জনের নাম উল্লেখ করে আসামি করা হয়। ফতুল্লা থানার অফিসার ইনচার্জ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। মামলায় আসামিরা হলেন- ফতুল্লা থানার ইসদাইর বাজার এলাকার মো. মিঠুর ছেলে ইয়াসিন (১৬), ইসদাইর উকিলের বাড়ীর লিটন দাসের ছেলে পিয়াশ দাস (১৬), বলয় চন্দ্র রায়ের ছেলে রিপন (১৭), উজ্জল চন্দ্র দাসের ছেলে রুদ্র চন্দ্র দাস (১৬), বিমল চন্দ্র শিলের ছেলে অন্তু চন্দ্র শীল (১৬), শ্যামল চন্দ্র দাসের ছেলে জয় চন্দ্র দাস (১৭), প্রান্তোষের ছেলে প্রভাত (১৬), একই এলাকার তুহিন (২১), ফয়সাল (২১) ও হিমেল (১৯)।তবে এ ঘটনার পর পুলিশ ছয়জন কে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃতরা হলেন- ফতুল্লা থানার ইসদাইর এলাকার ইয়াসীন, পিয়াস দাস, অন্ত চন্দ্র শীল, রিপন, জয় চন্দ্র দাস ও রুদ্র চন্দ্র দাস।

ফতুল্লার শিক্ষার্থী ধ্রুব হত্যা মামলায় ৬ জন গ্রেফতার
ফতুল্লার শিক্ষার্থী ধ্রুব হত্যা মামলায় ৬ জন গ্রেফতার

মামলায় সূত্রে জানা গেছে, মামলার বাদী মধাব চন্দ্র দাসের একমাত্র ছেলে ধ্রুব চন্দ্র দাস (১৬) শহরের ইসদাইর এলাকার রাবেয়া হোসেন উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণীর ছাত্র। ঘটনার দিন গতকাল সোমবার (১৭ মে) সন্ধ্যায় ধ্রুব বাসায় লেখাপাড়া করছিল। রাত ৮ টার দিকে তার সহাপাঠি রিপন ও রুদ্র চন্দ্র দাস বাসায় আসে এবং তাদের আরেক সহপাঠির জন্মদিনের উপহার কেনার কথা বলে বাসা থেকে ডেকে ডেকে নিয়ে যায়। পরে রাবেয়া স্কুলের সামনে রাস্তায় পৌঁছালে নিহতের সহাপাঠি রিপন ও রুদ্র চন্দ্র দাস সহ অভিযুক্ত আসামীরা তাদের হাতে থাকা ছোড়া চাকু, সুইচ গিয়ার চাকু, লোহার পাইপ ইত্যাদি দেশীয় অস্ত্রে দিয়ে ধ্রুবকে এলোপাথারী মারতে থাকে। এমন সময় অভিযুক্ত ইয়াসীন তার হাতে থাকা ছুরি দিয়ে ধ্রুবকে ছুরিকাঘাত করলে রাস্তায় পরে যায় ধ্রুব

সংবাদ পেয়ে বাদীর ছোট ভাই মিঠুন চন্দ্র দাস ও তুষার তাকে রক্তাক্তবস্থায় উদ্ধার করে শহেরের ভিক্টোরিয়া জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেল কর্তব্যরত চিকিৎসক ধ্রুব কে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে অবস্থা আশংকা জনক হওয়ায় দ্রুত উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যেতে বলেন। বাদী সহ স্বজনেরা ধ্রুবকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে রাত সোয়া দশটার দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করে।

মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে ফতুল্লা মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি) শেখ রিয়াজুল হক দিপু জানায়, আজ বুধবার থানায় নিহতের বাবা মধাব চন্দ্র দাস বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। এই মামলায় তিনি দশ জনের নাম উল্লেখ করেন, যার ছয়জনকে আমরা গ্রেফতার করেছি। গ্রেফতারকৃতরা প্রথমিক জিজ্ঞাসাবাদে হত্যাকান্ডে জড়িত বলে শিকারক্তিমূলক জবারবন্দি দিয়েছে। অন্নান্যদের আইনের আওতায় আনতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ