সড়কের দখল ঠেকাতে মেয়রকে লিখিত অভিযোগ

নারায়ণগঞ্জের তল্লা মসজিদ এলাকায় সিটি করপোরেশনের সড়ক দখলে নিয়ে গৃহনির্মাণের অভিযোগ উঠেছে। সিটি করপোরেশনের অর্থায়নে নির্মান করা সড়কের প্রায় দুই ফুট যায়গা দখলে নিয়ে গৃহ নির্মাণ কর্মযজ্ঞ চালাচ্ছেন স্থানীয় মোক্তার হোসেন। স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর নিষেধ করার পরেও আমলে নেননি তিনি। পেশায় ব্যবসায়ী মোক্তার মহানগর মহিলা লীগের ইসরাত স্মৃতির বোন জামাতা বলে এলাকায় নিজের পরিচয় দেন তিনি।

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ১১নং ওয়ার্ডের তল্লা মসজিদ এলাকায় বুধবার (১৮ মে) সড়েজমিনে অনুসন্ধানে বিষয়টির সত্যতা মিলে। সড়কটিতে পিলার নির্মাণ করায় এইসড়ক ব্যবহারকারীদের বেশ বেগ পেত হচ্ছে। এ ঘটনায় স্থানীয় ভুক্তভোগী হোসনে আরা বেগম (৫৫) নামে একজন গতকাল মঙ্গলবার (১৭ মে) নগর ভবনে মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন।

তল্লা মসজিদ এলাকার মাহাবুবুর রহমান সুমন (৩২) বলেন, এই রাস্তাটি বিগত পাঁচ বছর আগে সিটি করপোরেশন নির্বিগ্নে চলাচলের জন্য আর সিসি ঢালাই করে দিয়েছে। এত দিন কারো কোন অভিযোগ ছিলনা। হঠাৎ মোক্তার হোসেন (৪৫) এই রাস্তার আরসিসি ঢালাই ভেঙ্গে দুইটি পিলার নির্মাণ করেছে। স্থানীয় সকলে মিলে নিষেদ করারে পরেও তোয়াক্বা করনেনি তিনি।

এ বিষয়ে ১১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. অহিদুল ইসলাম ছক্কু জানায়, তল্লা মসজিদ এলাকায় সড়ক দখল করে ভবন নির্মানের অভিযোগ আসলে সেখানে গিয়ে নির্মাণ কাজ বন্ধকরতে বলি। তবে তার পরেও অভিযুক্ত মোক্তার হোসেন তা আমলে না নিলে হোসনে আরা বেগম মেয়র মোহদয় বরাবর অভিযোগ করেন। পরে বিষয়টি আমলে নিয়ে সংস্থাটির রোড কাটিং বিভাগের কার্য সহকারি মফিজুর রহমান কাজ বন্ধের নির্দেশ দেওয়ায় আজ নির্মাণ কজ বন্ধ রাখা হয়।

সড়ক দখল মুক্ত করতে নগর প্রশাসনের ভুমিকা জনতে চাইলে সিটি করপোরেশনের রোড কাটিং বিভাগের কার্য সহকারি মফিজুর রহমান বলেন, আমরা গতকাল একটি অভিযোগ পেয়ে আজ বুধবার মোক্তার হোসেনকে নির্মাণ কাজ বন্ধ করে তা অপসারনের নির্দেশ দেই। তিনি এই নির্দেশ অমান্য করলে তার বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেয়া হবে। আগামিকালের মধ্যেই এই পিলার সড়িয়ে সড়ক দখলমুক্ত করা হবে।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ