বন্দরে পুলিশের বিরুদ্ধে স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ

বন্দর রেললাইন এলাকায় কিশোর অপরাধী দুই গ্রুপের সংঘর্ষে উভয় পক্ষের পাল্টাপাল্টি মামলা দায়েরের ঘটনায় শাক দিয়ে মাছ ডাকার চেষ্টা করছে বন্দর থানা প্রশাসন। গত মঙ্গলবার ১৭ মে বন্দর রেললাইন এলাকায় কিশোর শান্ত ও জাহিদ গ্রুপের মধ্যে সৃষ্ট সংঘর্ষের ঘটনায় প্রশাসনের সেচ্ছাচারিতা চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেছে স্থানীয় এলাকাবাসী। এদিকে প্রকৃত ঘটনাকে আড়াল করার উদ্দেশ্য প্রনোদিত ভাবে একটি পক্ষ প্রশাসনকে ম্যানেজ করে নিরপরাধ ব্যাক্তিসহ মুক্তিযুদ্ধ প্রজন্মলীগ সদস্য রাজু আহমেদের নামে হয়রানী মূলক মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টায় নূরবাগ পঞ্চায়েত কমিটি, নূরবাগ যুব সংগঠনসহ বিভিন্ন সংগঠনের ব্যানারে বন্দর প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন করে।

তথ্য সূত্রে জানা গেছে, সম্প্রতি ১৭মে মঙ্গলবার রাতে কিশোর অপরাধী শান্তগং ও জাহিদগংদের মধ্যে দুই গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। ওই সময় স্থানীয় জনতা ধারালো অস্ত্রসহ ৩ কিশোর অপরাধী শান্ত, মেহেদী ও শাকিলকে আটক করে। পরে বন্দর ফাঁড়ী পুলিশকে অবগত করলে তাৎক্ষনিক বন্দর ফাঁড়ী এএসআই দিলিপ সহ সঙ্গীয় র্ফোস দ্রুত ঘটনাস্থলে আসে।

পরে এক ব্যাক্তি জরুরী সেবা ৯৯৯ ফোন করলে সংবাদ পেয়ে বন্দর থানার উপ-পরিদর্শক রফিকুলসহ সঙ্গীয় র্ফোস দ্রুত ঘটনাস্থলে আসে পরে স্থানীয় এলাকাবাসী ধারালো অস্ত্রসহ আটককৃত তিন কিশোর অপরাধীকে পুলিশের কাছে সোর্পদ করে। পরে পুলিশ আহতদের স্থানীয় এলাকাবাসী সহযোগীতায় বন্দর স্বাস্থ কমপ্লেক্সে প্রেরণ করে। পরে জাতীয় ছাত্র সমাজের এক নেতা সুপারিশে পুলিশ আটককৃত তিন কিশোর অপরাধীকে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দিলেও ধারালো অস্ত্রের কোন হদিস পাওয়া যায়নি।

এদিকে ধারালো অস্ত্রসহ তিন কিশোর অপরাধী শান্ত, মেহেদী ও শাকিল আটকের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে কিশোর শান্ত গ্রুপের হামলায় আহত আহত জাহিদ বাদী হয়ে ঘটনার ওই রাতেই থানায় কিশোর অপরাধী শান্ত, মেহেদী ও শাকিলকে আসামী করে থানায় অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ বিপাকে পড়ে যায়। সঙ্গে সঙ্গে ৩ কিশোর অপরাধীকে থানায় ডেকে এনে আটক করে মামলা দায়ের করে আদালতে প্রেরণ করে। পরে ছাত্র সমাজের এক নেতার সুপারিশে রাহাদ খান বাদী হয়ে থানায় মুক্তিযোদ্ধ প্রজন্মলীগ সদস্য রাজু আহাম্মেদ ও তার বড় ভাই নুরুজ্জামানসহ ৮ জনের নাম উল্লেখ্য করে বন্দর থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের ওই রাতে বন্দর থানার এসআই রফিকুলসহ সঙ্গীয় র্ফোস ছাত্র সমাজের নেতাদের কাছ সুবিধা নিয়ে নুরুজামানকে গ্রেপ্তার করে।

এ ব্যাপারে বন্দর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মহসিন জানান, ভিকটিম বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছে। কেউ নিরপরাধ থাকলে তদন্ত করে তাদের নাম বাদ দেওয়া হবে।

আরও পড়ুন

- Advertisement -

কমেন্ট করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

ডেইলি নারায়ণগঞ্জে প্রকাশিত কোন সংবাদ, তথ্য, ছবি এবং ভিডিও কন্টেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ